শনিবার, ০৩ জুন ২০২৩, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

চেতনানাশক খাইয়ে স্বামীর গোপনাঙ্গ কর্তন, সহযোগী নারী আটক

আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২৩, ২০:৪৩

সাভারের আশুলিয়ায় স্বামীকে দুধের সঙ্গে চেতনানাশক খাইয়ে গোপনাঙ্গ কর্তনের অভিযোগ উঠেছে স্ত্রীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত স্ত্রী আকলিমা বেগম পালাতক থাকলেও তার সহযোগী কুলছুম বেগমকে (২৮) আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (৩১ মার্চ) দিনগত রাত সাড়ে ৯টার দিকে আশুলিয়ার ডেন্ডাবর দশতলা রোড এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

এর আগে গত ২৪ মার্চ ভোররাতে দুধের সঙ্গে চেতনানাশক খাইয়ে অচেতন করে ফল কাটার চাকু দিয়ে স্বামী বাবুল ফকিরের (৪৫) গোপনাঙ্গ কর্তন করেন স্ত্রী আকলিমা বেগম ও তার সহযোগী কুলছুম বেগম।

আটক কুলছুমের বাড়ি সিলেট জেলার বালাগঞ্জ থানার বড় হাজীপুর গ্রামে। তিনি আশুলিয়ার ডেন্ডাবর দশতলা রোড এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন বলে জানা যায়। অপরদিকে, ভুক্তভোগী বাবুল ফকির ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা থানার বনেরসঙ্গী এলাকার আব্দুর রহমান ফকিরের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, পাঁচ বছর আগে বাবুলের সঙ্গে আকলিমা বেগমের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে দু'জন শিশুসন্তান আছে। কিছুদিন আগে বাবুলের চাকরি চলে গেলে আকলিমা তার দুই শিশু সন্তানকে বাবার বাড়িতে রেখে আসেন এবং এক পর্যায়ে তিনি বাবুলের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। এর কিছুদিন পরে আকলিমা বাচ্চাদের খরচের জন্য বাবুলকে ফোন করে টাকা চান। এ সময় তিনি কোথায় আছে জানতে চাইলে আকলিমা স্বামীকে আশুলিয়ার পল্লী বিদ্যুৎ এলাকায় যেতে বলেন। আকলিমার কথামতো বাবুল ২৩ মার্চ রাত সাড়ে ৮টার দিকে পল্লী বিদ্যুৎ এলাকায় গেলে তাকে ডেন্ডাবর এলাকায় খালা কুলসুমের বাসায় নিয়ে যান আকলিমা। সেখানে খালার কথামতো দুধের সঙ্গে চেতনানাশক খাওয়ানো হলে বাবুল অচেতন হয়ে পড়েন। পরে তার খালার পরামর্শে আকলিমা ফল কাটার চাকু দিয়ে বাবুল ফকিরকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার গোপনাঙ্গ কর্তন করেন। এ ঘটনায় বাবুল চিৎকার করে রুমের বাহিরে গিয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়লে স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে আহত বাবুল বাদী হয়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে আশুলিয়া থানায় একটি মামলা করেন।

আশুলিয়া থানায় এসআই অপুর্ব সাহা বলেন, এক ব্যক্তির গোপনাঙ্গ কর্তনের ঘটনায় থানায় মামলা করা হলে শুক্রবার রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযুক্ত কুলছুমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় অপর আসামি আকলিমা বেগমকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

ইত্তেফাক/এসকে