রোববার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

কারাগারে জীবিত মানুষকে খেয়ে ফেলল ছারপোকা

আপডেট : ১৫ এপ্রিল ২০২৩, ১৭:৪৫

যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়ার আটলান্টার একটি কারাগারে বিছানার পোকা ও বিভিন্ন পোকামাকড় খেয়ে ফেলেছে জীবিত এক ব্যক্তিকে। কারাগারে মারা যাওয়া বন্দীর পরিবারের আইনজীবী এই অভিযোগ করেছেন। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, লাশন থম্পসন নামের ওই ব্যক্তিকে ছোটখাটো অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত করে কারাগারে পাঠানো হয়। কর্মকর্তারা তাকে মানসিকভাবে অসুস্থ বলে বিচার করে ফুলটন কাউন্টি কারাগারের মনস্তাত্ত্বিক শাখায় প্রেরণ করেন। 

লাশন থম্পসন নামের ওই ব্যক্তিকে ছোটখাটো অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত করে কারাগারে পাঠানো হয়।

পারিবারিক অ্যাটর্নি মাইকেল ডি হার্পার থম্পসনের ছবি প্রকাশ করেছেন। এতে থম্পসনের পুরো শরীর ছারপোকা দিয়ে আচ্ছাদিত দেখানো হয়। আইনজীবী মাইকেল এই ঘটনার ফৌজদারি তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি জানান, এ ঘটনায় একটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

হার্পার এক বিবৃতিতে বলেন, 'থম্পসনকে পোকামাকড় ও বিছানার পোকা জীবিত খায়ে ফেলার পর তাকে কারাগারের একটি নোংরা কক্ষে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। থম্পসনকে যে কারাগারে রাখা হয়েছিল তা অসুস্থ প্রাণীর জন্যও উপযুক্ত ছিল না। তিনি এর প্রাপ্য ছিলেন না।'

পারিবারিক অ্যাটর্নি মাইকেল ডি হার্পার থম্পসনের ছবি প্রকাশ করেছেন।

ফুলটন কাউন্টি মেডিকেল এক্সামিনারের রিপোর্ট অনুযায়ী, থম্পসনকে গ্রেফতারের তিন মাস পর গত বছরের ১৯ সেপ্টেম্বর তার কারাগারের কক্ষে অচল অবস্থায় পাওয়া যায়। স্থানীয় পুলিশ ও চিকিৎসাকর্মীরা তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হন।
 
পরে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয় বলে মার্কিন দৈনিক ইউএসএ টুডের প্রতিবেদনে বলা হয়। অ্যাটর্নি হার্পার জানান, কারাগারের রেকর্ডে দেখা যায়, আটক কর্মকর্তা ও চিকিৎসা কর্মীরা থম্পসনের অবস্থার অবনতি লক্ষ্য করেছেন। কিন্তু তারা তাকে সাহায্য করার জন্য কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

কারাগারের সাইকিয়াট্রিক ওয়ার্ডে থম্পসনের কক্ষে 'ব্যাপক বেডবাগ ইনফেকশন' ছিল।

মেডিকেল পরীক্ষকের প্রতিবেদনে বলা হয়, কারাগারের সাইকিয়াট্রিক ওয়ার্ডে থম্পসনের কক্ষে 'ব্যাপক বেডবাগ ইনফেকশন' ছিল। তবে থম্পসনের শরীরে আঘাতের কোনো সুস্পষ্ট চিহ্ন পাওয়া যায়নি। প্রতিবেদনে তার মৃত্যুর কারণ অজানা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

আইনজীবীর প্রকাশিত ছবিতে থম্পসনের একটি অসুস্থ ছবি দেখা যায়। যার মুখ ও ধড় ছারপোকা দিয়ে ঢাকা। ইউনিভার্সিটি অব কেন্টাকির কীটতত্ত্ববিদ ও বিটল বিশেষজ্ঞ মাইকেল পটার বলেন, 'ছবিগুলোতে কারাগারের কক্ষগুলোকে 'ভয়াবহ' অবস্থায় দেখা গেছে। আমি বিশ বছরেরও বেশি সময় ধরে কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রণে কাজ করেছি। কিন্তু এই স্তরের কিছু আমি কখনও দেখিনি।'

থম্পসনকে গ্রেফতারের তিন মাস পর গত বছরের ১৯ সেপ্টেম্বর তার কারাগারের কক্ষে অচল অবস্থায় পাওয়া যায়।

বিছানার পোকার কামড় সাধারণত মারাত্মক হয় না। যাইহোক, কিছু বিরল ক্ষেত্রে বড় সংখ্যক ছারপোকার দীর্ঘমেয়াদী সংস্পর্শের কারণে গুরুতর রক্তাল্পতা দেখা দিতে পারে। এবং যদি চিকিত্সা না করা হয় তবে এটি মারাত্মক হতে পারে।

পটার বলেন, 'বিছানার পোকাগুলো রক্তে খাওয়ায় এবং যত বেশি বিছানার পোকা থাকে, তারা তত বেশি রক্ত গ্রহণ করে। তবে চরম ক্ষেত্রে আক্রান্তরা অ্যালার্জির পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া অনুভব করতে পারে এবং অ্যানাফিল্যাকটিক শকে যেতে পারে, যা শেষ পর্যন্ত মারাত্মক হতে পারে।'

ইত্তেফাক/ডিএস

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন