বুধবার, ০৪ অক্টোবর ২০২৩, ১৯ আশ্বিন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিজেই শিখে নিয়েছে বাংলা

আপডেট : ১০ জুন ২০২৩, ১৬:০৭

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে শেখাতে হয়। কিন্তু অনেক সময় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিজেও অনেক কিছু শিখে নেয়। এই বিষয়টিকে বলা হয় এমার্জেন্ট প্রপার্টিজ। এই অদ্ভুত পদ্ধতিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিজে নতুন দক্ষতা অর্জন করে।

সম্প্রতি একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিজে নিজে বাংলা শিখে চমকে দিয়েছে। এই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এখন ইংরেজি থেকে বাংলায় সহজেই অনুবাদ করতে পারে।

এই ঘটনার পর অনেক প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। এমনটা কিভাবে হলো। এর একটি সহজ উত্তর এআই ব্ল্যাক বক্স। মূলত ব্ল্যাকবক্সে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কিছু ডাটা ইনপুট করে যা ইউজারের অগোচরে থেকে যায়। ব্ল্যাকবক্সে ব্যবহারকারীরা প্রবেশ করতে পারে না। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিজেই একটি উপসংহারে চলে আসে।

এ বিষয়ে গুগলের সিইও সুন্দার পিচাই নিজে একটি ব্যাখ্যা দিয়েছেন। তিনি বলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে আমরা যারা কাজ করছি তারা ব্ল্যাক বক্স সম্পর্কে সচেতন। এর কাজ বা পদ্ধতি এখনো আমাদের পুরোপুরি জানা নেই। অবশ্য এ বিষয়ে আমাদের কিছু ধারণা রয়েছে। কিন্তু এখানেই তো আসল মজা।'

ব্ল্যাক বক্স এক হিসেবে ভালো। কিন্তু এর কিছু সমস্যাও আছে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় ব্ল্যাক বক্স থাকা মানে এই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিশ্বস্ততা কমে যাওয়া। তাছাড়া ব্ল্যাক বক্স এক হিসেবে কিছুটা হুমকিস্বরুপ। কারণ এই ব্ল্যাক বক্স নিজেই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে। আর এই সিদ্ধান্ত তারা কিভাবে নিয়েছে সে সম্পর্কে আমাদের কোনো ধারণাই নেই। 

এক্ষেত্রে এআই বায়াস শব্দটিকে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে। এই সমস্যাটিকে ভালোভাবে শনাক্ত করার জন্য ব্ল্যাক বক্স নিয়ে আরও কাজ করতে হবে। তবেই একটি সমাধান ও সহজ পদ্ধতির দিকে এগিয়ে যাওয়া যাবে। হতে পারে আরও বড় সম্ভাবনা খুঁজে পাওয়া যাবে। 

সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস 

ইত্তেফাক/এআই

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন