বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

সিটি করপোরেশন ও পৌরসভায় ছাদ বাগান করলেই ১০ শতাংশ কর ছাড়

আপডেট : ১৮ জুন ২০২৩, ০২:০৩

দিন দিন কমছে সবুজ, জলাশয় ও খোলা জায়গা। এতে তাপমাত্রা বেড়ে যাচ্ছে। দেশের শহর এলাকার তাপমাত্রা কমাতে ছাদবাগানকে উৎসাহিত করছে সরকার। ছাদবাগান করলে গাছ পরিচর্যার জন্য ওই ভবনের হোল্ডিং ট্যাক্স ১০ শতাংশ মওকুফ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। 

এখন থেকে সব সিটি করপোরেশন ও পৌরসভার বাড়ির মালিকরা এ সুবিধা পাবেন। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এ তথ্য জানান। এর আগে উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম জনগণকে ছাদবাগানে উৎসাহিত করতে ১০ শতাংশ কর ছাড়ের ঘোষণা দেয়। আর সেটি অনুমোদনের জন্য ২০২০ সালের নভেম্বরে মন্ত্রণালয়ে চিঠি প্রেরণ করে। সেখানে উল্লেখ করা হয়, ছাদে বৃক্ষরোপণ করে ঢাকা মহানগরীকে যারা সবুজ ঢাকায় রূপান্তরিত করতে সহযোগীতা করছেন তাদের হোল্ডিং ট্যাক্স চার কিস্তি একত্রে পরিশোধ সাপেক্ষে হালসনের চার কিস্তির উপর ১০ শতাংশ বিশেষ রিবেট সুবিধা জারি করা হয়েছে। এই সিদ্ধান্ত সদয় সম্মতির জন্য অনুরোধ করা হলো। সেই প্রস্তাবের প্রেক্ষিতেই মন্ত্রণালয় সব সিটি করপোরেশনের জন্য পরিকল্পিত ছাদ বাগানের ওপর কর ছাড়ের অনুমোদন দিয়েছে।

এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, গাছ একটি শহরের পরিবেশের অপরিহার্য উপাদান। অথচ ঢাকা শহরে গাছের সংখ্যা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। ঢাকার তাপমাত্রা দিন দিন বেড়েই চলেছে। ঢাকা শহরকে বাঁচাতে হলে গাছ লাগাতে হবে। মেয়র আরও বলেন, আমি আনন্দিত কারণ আমার উদ্যোগের ফলে শুধু ডিএনসিসি নয়, দেশের সব সিটি করপোরেশনের নাগরিকরা এই সুবিধা পাচ্ছেন। আমি বিশ্বাস করি এর ফলে পুরো দেশে কৃষির বিপ্লব ঘটবে।

এর আগে সম্প্রতি একটি সভায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, ছাদবাগানের ধারণা উন্নত দেশগুলোতে অনেক আগে থেকেই প্রচলিত রয়েছে। নাসার মতে, শহর এলাকায় অনেক সময় সাধারণ তাপমাত্রার  চেয়ে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি থাকে, যাকে আরবান হিট আইল্যান্ড ইফেক্ট বলা হয়। এর থেকে কিছুটা স্বস্তির জন্য ছাদবাগান অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। আর অর্থনৈতিক উন্নয়নের কারণে বাংলাদেশেও বর্তমানে বহুতল ভবনের সংখ্যা অনেক বেড়েছে। এই ভবনগুলোর অব্যবহৃত ছাদগুলোকে কাজে লাগিয়ে সবুজ বিপ্লব শুরু করা সম্ভব।

ইত্তেফাক/এমএএম