সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

ইবিতে ছাত্রলীগের ৮ কর্মীকে বহিষ্কার

আপডেট : ২২ আগস্ট ২০২৩, ১৪:১৫

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভা শেষে মারামারির ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে শাখা ছাত্রলীগের আট কর্মীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২২ আগস্ট) সকালে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত ও সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয় স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানা যায়। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ইবি শাখার জরুরি সিদ্ধান্তে সাম্প্রতিক সময়ে ঘটে যাওয়া অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সংগঠনবিরোধী কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে ছাত্রলীগের আট কর্মীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হলো। তাদেরকে স্থায়ী বহিষ্কার করার জন্য কেন্দ্রীয় কমিটি বরাবর সুপারিশ করা হয়েছে।

বহিষ্কৃত কর্মীরা হলেন, জিয়াউর রহমান হল শাখার ছাত্রলীগ কর্মী সাব্বির খান, শামীম রেজা, আকিব মাসুদ অনুভব, পারভেজ হোসেন বানাত ও আব্দুল কাদের। শেখ রাসেল হল শাখার ছাত্রলীগ কর্মী আশিক কুরাইশী। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল শাখার ছাত্রলীগ কর্মী শাহদুল্লাহ সিদ্দিকী সাইমুন ও তাসিন আজাদ।

বহিষ্কৃতদের মধ্যে, সাব্বির খান ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ২০১৮-১৯ এবং আকিব মাসুদ ও আব্দুল কাদের একই বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের, শাহদুল্লাহ সিদ্দীকি হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগ এবং তাসিন আজাদ ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের, আশিক কুরাইশী হিউম্যান রিসোর্চ ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

এছাড়া শামিম রেজা আইন বিভাগের ২০১৮-১৯ এবং পারভেজ হোসেন একই বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

এর আগে গত ২০ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভা শেষে শাখা ছাত্রলীগের ত্রিমুখী সংঘর্ষে গুরুতর ২ জন সহ ৫ জন আহতের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে ছাত্রলীগ কর্মী আকিবের বিরুদ্ধে এক শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাতের অভিযোগ ওঠে। 

এ বিষয়ে জিয়া হলের বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ কর্মী শামীম রেজা বলেন, দলের ভাবমূর্তি রক্ষার্থে সংগঠন থেকে যে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে তার প্রতি আমি শ্রদ্ধাশীল। তবে কোন তদন্ত কমিটি ছাড়া বা কারণ দর্শানো ছাড়া এমন একটি সিদ্ধান্তে আমি মনঃক্ষুণ্ণ। আমরা জড়িত কিনা সে বিষয়েও কোন বক্তব্য নেওয়া হয়নি।

এ প্রসঙ্গে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত বলেন, সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপে জড়িত থাকার কারণে তদন্ত করেই আট কর্মীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে ও তাদেরকে স্থায়ী বহিষ্কার করার জন্য কেন্দ্রীয় কমিটি বরাবর সুপারিশ করা হয়েছে। তবে তাদের আবাসিকতার সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের। 

তিনি আরও বলেন, শুধু কর্মী নয় যেকোনো নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলেও আমরা তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেবো।

ইত্তেফাক/এআই