রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

মার্কিন রাষ্ট্রদূতের মতে, কানাডা ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র-ভারত সম্পর্ক খারাপ হতে পারে: রিপোর্ট

আপডেট : ০৫ অক্টোবর ২০২৩, ১৯:১৮

ভারতে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত এরিক গারসেটি তার দলকে বলেছেন, কানাডার সঙ্গে নয়াদিল্লির কূটনৈতিক বিরোধের কারণে ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার সম্পর্ক সাময়িক খারাপ হতে পারে। পলিটিকোর এক প্রতিবেদনে এমনটি বলা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্টেট ডিপার্টমেন্টের একজন কর্মকর্তার মতে, গারসেটি আরও বলেছিলেন যে ‘যুক্তরাষ্ট্রকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ভারতীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে তার যোগাযোগ কমাতে হতে পারে’।

তবে মার্কিন দূতাবাস প্রতিবেদনটি প্রত্যাখ্যান করে বলেছে, ‘রাষ্ট্রদূত গারসেটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারতের জনগণ এবং সরকারের মধ্যে অংশীদারিত্বকে আরও গভীর করার জন্য প্রতিদিন কঠোর পরিশ্রম করছেন৷ তার ব্যক্তিগত ব্যস্ততা এবং জনসাধারণের সময়সূচীই বলে দেয় যে রাষ্ট্রদূত গারসেটি ভারতে মার্কিন মিশন দিল্লির সঙ্গে আমাদের গুরুত্বপূর্ণ, কৌশলগত এবং ফলপ্রসূ অংশীদারিত্বকে এগিয়ে নিতে প্রতিদিন কাজ করছে।’

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, জুনে সন্ত্রাসী হরদীপ সিং নিজ্জার হত্যায় ভারতীয় সরকারি এজেন্টদের ‘সম্ভাব্য’ জড়িত থাকার কানাডার অভিযোগ ‘গুরুতর’ এবং তারা পুরো তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে। এটি নয়াদিল্লির সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করার পাশাপাশি তদন্তে সক্রিয়ভাবে অংশ নেওয়ারও আহ্বান জানিয়েছে দেশটি।

পলিটিকোর মতে, মার্কিন রাষ্ট্রদূতের তার দলের সঙ্গে কথোপকথনের বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে, স্টেট ডিপার্টমেন্টের একজন মুখপাত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, তিনি বলেছিলেন এ বিষয়ে আপনাদের বলার মতো আমাদের কাছে কিছু নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘রাষ্ট্রদূত গারসেটি ভারতীয় জনগণ এবং ভারত সরকারের সঙ্গে আমাদের শক্তিশালী অংশীদারিত্বের একজন চ্যাম্পিয়ন। ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ, কৌশলগত এবং ফলপ্রসূ অংশীদারিত্ব।’

জুন মাসে কানাডার ভ্যাঙ্কুভারে শিখ নেতা নিজ্জার হত্যার সঙ্গে ভারতীয় এজেন্টের জড়িত থাকার বিষয়ে প্রকাশ্যে অভিযোগ আনেন প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। এরপর থেকেই ভারত এবং কানাডার মধ্যে সম্পর্ক গত কয়েক মাস ধরে উত্তেজনার মধ্যে রয়েছে।

ভারত এই অভিযোগকে অযৌক্তিক এবং উদ্দেশ প্রণোদিত আখ্যা দিয়ে প্রত্যাখ্যান করেছে। এরপর অটোয়া একজন ভারতীয় কূটনীতিককে বহিষ্কার করে। পাল্টা জবাবে ভারতও কানাডিয়ান কূটনীতিককে বহিষ্কার করে।

২১ সেপ্টেম্বর, ভারত কানাডাকে দেশে তার কূটনৈতিক উপস্থিতি কমানোর জন্য বলেছিল কারণ নয়াদিল্লির বিরুদ্ধে অটোয়ার অভিযোগের পর দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক সর্বকালের সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে গেছে। ভারতও কানাডার নাগরিকদের ভিসা প্রদান সাময়িকভাবে স্থগিত করার ঘোষণা দিয়েছে।

ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় ১৮ জুন দুই মুখোশধারী বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত হন নিজ্জার। ২০২০ সালে ভারত তাকে সন্ত্রাসী হিসেবে ঘোষণা করেছিল।

ইত্তেফাক/এসএটি