মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

স্কুলপ্রাঙ্গণে রাস্তা!

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২৩, ১৫:১৭

সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে চকবাজার সরকারি প্রাথমিক স্কুলের মাঠের ভেতর দিয়ে গেছে রাস্তা। রাস্তাটি দিয়ে প্রতিনিয়ত দ্রুতগতিতে চলাচল করছে বিভিন্ন ধরনের গাড়ি। এর ফলে স্কুলটির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে রয়েছে। বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের নিয়ে বরাবরের মতোই উদ্বিগ্ন অভিভাবকরা।

পাকা রাস্তার দুই পাশে রয়েছে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের পাঠদানের শ্রেণিকক্ষ। স্কুলের খেলার মাঠটির মধ্য দিয়ে পাকা সড়ক থাকায় শিক্ষার্থীরা টিফিনের সময় সেখানেই খেলাধূলায় মেতে ওঠে। এতে যেকোনো সময় ঘটে যেতে পারে বড় কোনো দুর্ঘটনা। সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের এই চকবাজার সরকারি প্রাথমিক স্কুলে বর্তমানে দুই শতাধিক শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে।

স্থানীয়রা জানান, স্কুলটি প্রতিষ্ঠার অনেক পরে চকবাজার-নোয়াগাঁও যাতায়াতের রাস্তাটি অপরিকল্পিতভাবে নির্মিত হয়েছে। সে সময় সমস্যার বিষয়টি খেয়াল করা হয়নি। এরপর থেকে ঝুঁকি নিয়েই শিক্ষার্থীরা টিফিনের সময় সেখানেই খেলায় মেতে উঠছে। ফলে অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের নিয়ে ভীষণ উদ্বিগ্ন।

রাস্তার মধ্যে স্কুল থাকায় দুর্ঘটনার শিকার হতে শিক্ষার্থীরা। ছবি: ইত্তেফাক

তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী মোরাদ হোসেন বলে, ‘সব সময় রাস্তায় গাড়ি চলে। তাই পারাপারে ভয় লাগে। কষ্ট করে পার হই।’

বৃষ্টি আক্তার চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে। সে এই সংবাদদাতাকে জানিয়েছে, ‘আমাদের স্কুলে মাঠ নাই। রাস্তায় গাড়ি চলে তাই ক্লাস থেকে বের হতে পারি না।’ 

স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হোসনেয়ারা বেগম জানান, এলাকাবাসীর সহায়তায় স্কুলটি গড়ে ওঠে ১৯৮৯ সালে। কিন্তু রাস্তাটি তারও পরে অপরিকল্পিতভাবে নির্মাণ করা হয়েছে। সে সময় স্কুল কর্তৃপক্ষ রাস্তা নির্মাণে কোনো বাধা দেয়নি। শিক্ষার্থী সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় এখন রাস্তাটি স্কুলের একটি বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে। স্কুলে বাড়তি কোনো জায়গাও নেই। টিফিন ও ছুটির সময় এই রাস্তার ওপর দিয়েই তারা ছোটাছুটি করে। সহজে তাদের ধরে রাখা যায় না।

স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জসিম উদ্দিন দুর্জয় জানান, দুই পাশে স্কুলের ভবন রেখে মাঝ দিয়ে পাকা সড়ক নির্মাণ করাটা মোটেও ঠিক হয়নি। শিশুরা সময় পেলেই রাস্তাটির উপর খেলায় মেতে ওঠে। তা ছাড়া স্কুলের দুই পাশেই ভবন থাকার কারণে শিশুদের শ্রেণিকক্ষে যাওয়ার সময়ও রাস্তা পার হয়ে যেতে হয়। এতে যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। তাই তারা শিশুদের নিরাপত্তায় স্কুল ভবনের পেছন দিয়ে বিকল্প রাস্তা তৈরি ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান দেওয়ান আল তানভীর আশরাফী চৌধুরী বাবু বলেন, ‘স্কুলটি পরিদর্শন করেছি। এর ভেতর দিয়ে সড়ক থাকায় শিক্ষার্থীরা ঝুঁকিতে রয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যানসহ স্থানীয়দের বলে দিয়েছি, এলাকাবাসী যদি স্কুলের পেছন দিকে যে জায়গা রয়েছে সেটি দেয় তাহলে একটি বিকল্প সড়ক তৈরি করা হবে।’

ইত্তেফাক/এইচএ