বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় দিবস আজ

আপডেট : ২২ নভেম্বর ২০২৩, ১৪:১৩

আজ ২২ নভেম্বর ৪৫ তম ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) দিবস। ১৯৭৯ সালের এই দিনে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহের শান্তিডাঙ্গা-দুলালপুরে স্বাধীন বাংলার প্রথম এ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পথচলা শুরু হয়। এরপর ১৯৮৩ সালে এক আদেশে বিশ্ববিদ্যালয়টিকে গাজীপুর বোর্ড বাজারে স্থানান্তর করা হয়।

পরে ১৯৯২ সালের ১ নভেম্বর মূল ক্যাম্পাসে শিক্ষা ও প্রশাসনিক কাজ শুরু হয়। ১৯৮৫-৮৬ শিক্ষাবর্ষে দুটি অনুষদের অধীনে চারটি বিভাগে ৩ শত ছাত্র ভর্তির মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির একাডেমিক যাত্রা শুরু হয়।

সর্বশেষ জুন ২০২৩ সালের তথ্যানুযায়ী, বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টির ৮টি অনুষদের ৩৬টি বিভাগে ১৪ হাজার ৯৯ শিক্ষার্থী অধ্যায়ন করছেন, যাদের মধ্যে ছাত্র ৯ হাজার ২৪ এবং ছাত্রী ৫ হাজার ৭৫। বর্তমানে ৪০৫ জন শিক্ষক শিক্ষাদানে নিয়োজিত রয়েছেন। এছাড়াও রয়েছেন ৫০৪ জন কর্মকর্তা, ১০৮ জন সহায়ক কর্মচারী এবং ১৫৪ জন সাধারণ কর্মচারী। 

এ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ৪টি সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শিক্ষা ও গবেষণার পাশাপাশি ক্রীড়াক্ষেত্রেও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়েছে ঈর্ষণীয় সাফল্য। সাংস্কৃতিক অঙ্গনেও রেখে চলছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। ক্যাম্পাসে রয়েছে চোখজুড়ানোসব স্থাপনা। মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব ম্যুরাল যা দেশের দ্বিতীয় উচ্চতম বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল। এছাড়া মুক্তবাংলা, শহীদ মিনার, সততা ফোয়ারা, শাশ্বত মুজিব ম্যুরাল এবং ৭ মার্চের ভাষণ সম্বলিত মুক্তির আহ্বান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিত্তিক সবচেয়ে বৃহত্তম মসজিদসহ বিভিন্ন দৃষ্টিনন্দন স্থাপনা নির্মিত হয়েছে। 

তবে প্রতিষ্ঠার পর থেকে নানা সংকটে কেটেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের গত ৪৪টি বছর। দীর্ঘ সময় পার হলেও প্রতিষ্ঠার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয়টি। অধ্যাদেশ অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রথম লক্ষ্য ছিল- এটি একটি পূর্ণাঙ্গ আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরিত হবে। তবে ৪৪ বছরে পদার্পণ করলেও পূর্ণাঙ্গ আবাসিকতা অর্জন করতে পারেনি এ বিশ্ববিদ্যালয়। 

ফলে এর ভুক্তভোগী হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ থেকে যথাক্রমে দীর্ঘ ২৪ ও ২২ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে আসতে হয় শিক্ষার্থীদের। এছাড়া একাধিক বিভাগে রয়েছে সেশনজট। পিছিয়ে রয়েছে মানসম্মত গবেষণায়ও। 

এদিকে ৪৫তম ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে নানা কর্মসূচী হাতে নিয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ও প্রক্টর প্রফেসর ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ। তিনি বলেন, এ উপলক্ষে বুধবার (২২ নভেম্বর) জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন, মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন, বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালি, আলোচনাসভা, কেক কাটা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, স্টুডেন্টস ই-পেমেন্ট কার্যক্রমের উদ্বোধন, বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলোকে আলোকসজ্জিত করা হয়েছে। এছাড়াও আলপনা অঙ্কন ও সড়কে রঙিন পতাকাসজ্জিত করা হয়েছে।  

সার্বিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. শেখ আবদুস সালাম দৈনিক ইত্তেফাককে বলেন, নির্মাণাধীন হলগুলোর কাজ সম্পন্ন হলে আবাসন সমস্যা অনেকাংশে লাঘব হবে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে মেগাপ্রকল্প শুরু করতে দু'বছর দেড়ি হয়েছিল। নতুন করে টেন্ডারে যেতে হয়েছিল! সেই নতুন টেন্ডার থেকে এক বছর সাত মাসের যে অর্জন, তা চমকপ্রদ। গবেষণায় উন্নয়নে আমাদের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের জন্য কোটি টাকা ব্যয়ে কেন্দ্রীয় ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। তারা ল্যাবে নিয়মিত সময় দিচ্ছে। কিছু বিভাগে শিক্ষা জট আছে। তাদের চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলেছি। জট সমাধানে তারা আমাকে এক বছরের প্লান দিয়েছেন। তবে আমার দৃঢ় বিশ্বাস বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় পেছনের সকল কালিমা ঝেড়ে মুছে আগামী দিনের নতুন যাত্রায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় তার আবিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবে।

ইত্তেফাক/এআই