রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

৬০ লাখ লোকের সমাধিস্থল ওয়াদি আল সালাম

আপডেট : ২২ নভেম্বর ২০২৩, ১৯:১৮

ইরাকের নাজাফ শহরটি বিশ্বের মুসলিম ধর্মাবলম্বী লোকের কাছে পবিত্র শহর হিসেবে পরিচিত। এখানে অবস্থিত পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সমাধিক্ষেত্র ওয়াদি আল সালাম (শান্তির উপত্যকা)। ইউনেস্কোর তথ্যমতে ৯১৭ হেক্টর জায়গা নিয়ে গড়ে উঠা ওয়াদি আল সালাম পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সমাধিক্ষেত্র হিসেবে পরিচিত। এটি এত বিশাল যে ১ হাজার ৭০০টি বড় ফুটবল খেলার মাঠও এই সমাধিক্ষেত্রের তুলনায় ছোট।

এখানে মোহাম্মদ (সা.) এর জামাতাসহ দাফন করা হয়েছে ইসলাম ধর্মের গুরুত্বপূর্ণ লোকদের। ইউনেস্কোর তথ্যমতে, এই সমাধিক্ষেত্রে ধর্মীয়, রাজনৈতিক, বিজ্ঞানীসহ ৬০ লাখ মানুষের কবর রয়েছে।

সমাধিক্ষেত্রটি নাজাফ শহরের মধ্যস্থল থেকে সুদূর উত্তর-পশ্চিম প্রান্তে বিস্তৃত, যা শহরটির ১৩ শতাংশ জায়গাই দখল করে আছে। তবে দিন দিন এর সীমারেখা বেড়েই চলছে। ২০২১ সালে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ওয়াদি আল সালাম দিগুণ হারে বড় হয়ে উঠছে।

দূর থেকে দেখলে সমাধিক্ষেত্রটিই যেন একটি শহর মনে হয়। যেখানে সারি সারি কবর। কোনোটি উঁচু, কোনোটি নিচু। কবরগুলো যেন শহরের মাঝখানে দাঁড়ানো সরু বিল্ডিংয়ের মতো।

ইউনেস্কোর তথ্যমতে, প্রাচীন যুগ থেকে এখানে বিভিন্ন মানুষকে সমাহিত করা হচ্ছে। এখানে সমাধিস্থদের ভেতর আল-হীরার রাজা, আল সাসানি যুগের নেতারা, সুলতান হামদানিয়া, ফাতিমিয়া, সাফাওয়াইকাসহ প্রাচীন রাজবংশের লোকেরা আছেন।

প্রতি বছর বিভিন্ন দেশের মুসলিম দর্শনার্থীরা এখানে ভিড় করেন। শিয়া মুসলিমদের কাছে জায়গাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখানে মোহাম্মদের জামাতা ইমাম আলি ইবনে আবু তালিবকে সমাহিত করা হয়েছে।

প্রতি বছর এখানে ৫০ হাজার নতুন সমাধি যোগ হয়। এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়, এখানে কবর খোঁড়ার জন্য ১০০ ডলার ও পাথর কিনতে ১৭০ থেকে ২০০ ডলার খরচ হয়।

ওয়াদি আল সালাম বিশ্বের একটি ঐতিহাসিক সাংস্কৃতিক নিদর্শন হিসেবে পরিচিত। প্রতি বছর এখানে প্রচুর দর্শনার্থী আসলেও তাদের গাইড করার জন্য কোনো ম্যাপ নেই।

ইত্তেফাক/টিটি/এসএটি