শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

গ্লোবাল স্টুডেন্ট এন্টারপ্রেনার’স অ্যাওয়ার্ডস সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত

আপডেট : ২৫ নভেম্বর ২০২৩, ২০:১২

গ্লোবাল স্টুডেন্ট এন্টারপ্রেনার’স অ্যাওয়ার্ডস (জিএসইএ) বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা দেশে নতুন উদ্যোক্তা তৈরি ও স্টার্টআপ সফল করার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে। একইসঙ্গে তরুণ উদ্যোক্তাদের বৈশ্বিক প্লাটফর্মে যুক্ত হওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছে।

শনিবার (২৫ নভেম্বর) রাজধানীর একটি হোটেলে এন্টারপ্রেনার’স অর্গানইজেশন (ইও) বাংলাদেশ পরিচালিত জিএসইএ সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ইও নেতারা এবং সেমিফাইনাল প্রতিযোগিতায় উপস্থিত বিচারকরা তাদের বক্তব্যে এমন অভিমত ব্যক্ত করেন।

জিএসইএ হলো ছাত্র উদ্যোক্তাদের জন্য বিশ্বের অন্যতম বড় বার্ষিক অ্যাওয়ার্ড প্রোগ্রাম যেখানে বিশ্ববিদ্যালয় বা কলেজে পড়ুয়া ছাত্র উদ্যোক্তা যারা ব্যবসা পরিচালনা করেন। তারা পৃথিবীর ৭৬টি দেশের প্রতিযোগীদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্ধিতা করার সুযোগ পান। এবারের জিএসইএ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য বাংলাদেশ থেকে ২৫ জন ছাত্র উদ্যোক্তা আবেদন করেন। এর মধ্যে থেকে সেমিফাইনালে ৯ জন ছাত্র উদ্যোক্তা অংশগ্রহণের সুযোগ পান এবং তারা তাদের ব্যবসায় মডেল উপস্থাপন করেন।

সেমিফাইনাল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন জিএসইএ বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের চেয়ার এবং এলসন কনজ্যুমার প্রোডাক্টস লিমিটেডের পরিচালক সাদাত অমি। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন ইও বাংলাদেশের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও শাসা ডেনিম লিমিটেডের পরিচালক জেরিন মাহমুদ হোসেন, নিট এশিয়া লিমিটেডের পরিচালক আমের সেলিম, আইসিটি বিভাগের ন্যাশনাল কনসালটেন্ট সোহাগ চন্দ্র দাস।

অনুষ্ঠানে ইও বাংলাদেশের বর্তমান প্রেসিডেন্ট ও প্রিস্টিন কেমিক্যাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. জিয়া উদ্দিন, সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট ও আনোয়ার গ্রুপের এমডি হোসেন খালেদ এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট ও এপেক্স প্রপার্টিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান মাইক কাজী, হায়াত এডুকেশনের প্রতিষ্ঠাতা তাহসিন আমান, অ্যারিস্টো ফার্মা লিমিটেডের পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ হাসান, গিয়ার্স গ্রুপের এমডি নাফিস এম খান, ট্রেড ডিজাইন সল্যুশনস লিমিটেডের ফাতিন হকসহ অনেকে।

জিয়া উদ্দিন তার বক্তব্যে ছাত্রদের নিজেকে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার প্রচেস্টার প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, কঠোর পরিশ্রম এবং প্রযুক্তিগত সমাধান একজন ছাত্রকে বর্তমান সময়ে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে উঠার ক্ষেত্রে মূল ভূমিকা পালন করে থাকে।

জেরিন মাহমুদ হোসেন বলেন, জিএসইএ প্রতিযোগিতা দেশে নতুন উদ্যোক্তা তৈরির ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে। তিনি স্টার্টআপা ইকো-সিস্টেম ডেভলপ করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

এন্টারপ্রেনার’স অর্গানইজেশন (ইও) বাংলাদেশ ২০১৬ সাল থেকে জাতীয় পর্যায়ে ছাত্র উদ্যোক্তাদের মধ্যে ব্যবসায়িক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আসছে। এর মাধ্যমে বিজয়ী উদ্যোক্তাদের একজন গ্লোবাল স্টুডেন্ট এন্টারপ্রেনারস অ্যাওয়ার্ডস (জিএসইএ) প্রতিযোগিতায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ পেয়ে থাকে। আইসিটি বিভাগের আইডিএ প্রোগ্রাম বাংলাদেশে জিএসইএ’র স্ট্র্যাটেজি পার্টনার হিসেবে কাজ করছে। 

ইত্তেফাক/পিও