রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

নির্বাচনে সেনা মোতায়েন নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় ইসি

মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় শেষ হচ্ছে কাল

আপডেট : ২৯ নভেম্বর ২০২৩, ০৮:০০

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনা মোতায়েন নিয়ে এখনো সিদ্ধান্তহীনতায় রয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সেনাবাহিনীর স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোতায়েন করা হতে পারে। তবে সেনা মোতায়েন হবে কি না, সে বিষয়ে নির্বাচন কমিশন (ইসি) এখনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। তবে নির্বাচন কমিশনাররা বলছেন, সে সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল গত রবিবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘সেনাবাহিনী নিয়ে একেবারে শেষ পর্যায়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব। যদি প্রয়োজন মনে করি, চাইলে সরকার আমাদের দেবে। এ নিয়ে কোনো সংশয় নেই।’ অন্যদিকে নির্বাচন কমিশনার বেগম রাশেদা সুলতানা গতকাল মঙ্গলবার বলেছেন, নির্বাচনের আগে সার্বিক পরিস্থিতি দেখে প্রয়োজন হলে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হবে। নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেছেন, আগের জাতীয় নির্বাচনগুলোতে যেহেতু সেনাবাহিনী মোতায়েন ছিল, সেহেতু এবারের নির্বাচনেও সেনাবাহিনী মোতায়েনের সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে নির্বাচনে দায়িত্ব পালনের জন্য পুলিশ, বিজিবি, রেব, আনসার ও কোস্ট গার্ডের জন্য গত ২০ নভেম্বর বাজেট নির্ধারণ হলেও সেনাবাহিনীর জন্য এখনো তা হয়নি। এ বিষয়ে গতকাল নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ বলেন, কমিশন সেনাবাহিনী মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিলে কতদিনের জন্য কতজন সদস্য নিয়োগ করা হবে সে অনুসারে বাজেট বরাদ্দ হবে।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয় সূত্র জানায়, ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের সাত দিন আগে থেকে পরের দুই দিনের জন্য সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়। এছাড়া মোতায়েনের এক সপ্তাহ আগে ঐ বছরের ১৫ ডিসেম্বর থেকে নির্বাচনি এলাকায় যোগাযোগব্যবস্থা, ভৌত অবকাঠামো এবং নির্বাচনি পরিবেশ-পরিস্থিতির ওপর প্রাথমিক তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করার জন্য প্রতি জেলায় সশস্ত্র বাহিনীর ছোট আকারের টিম পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়।

অনলাইন মনোনয়নে সাড়া নেই, জমার শেষ দিন কাল : নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের প্রক্রিয়াকে সহজ ও প্রভাবমুক্ত করতে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অনলাইন মনোনয়নপত্র দাখিল ব্যবস্থাপনায় (অনলাইন নমিনেশন সাবমিশন সিস্টেম-ওএনএসএস) প্রার্থীদের তেমন সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না। ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ জানিয়েছেন, মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় প্রায় শেষ হয়ে এলেও অনলাইনে তেমন সাড়া পড়েনি। এ পর্যন্ত ১১০ জন নিবন্ধন করেছেন। আর জমা দিয়েছেন দুই জন।

ঢাকার ১৫টি আসনে ১৭৪ জন কিনলেন মনোনয়ন :এ দিকে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের ১৫টি আসনে বিভিন্ন দলের ১৭৪ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র তুলেছেন। এর বিপরীতে জমা দিয়েছেন মাত্র ৯ জন। ঢাকার রিটার্নিং অফিসার ও বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এর মধ্যে ঢাকা-৪ আসনে আওয়ামী লীগের দুই জনসহ ১১ জন, ঢাকা-৫ আসনে আওয়ামী লীগের এক জনসহ ১৬ জন, ঢাকা-৬ আসনে আওয়ামী লীগের এক জনসহ ৯ জন, ঢাকা-৭ আসনে আওয়ামী লীগের এক জনসহ ৯ জন, ঢাকা-৮ আসনে আওয়ামী লীগের দুই জনসহ ১৮ জন, ঢাকা-৯ আসনে আওয়ামী লীগের এক জনসহ সাত জন, ঢাকা-১০ আসনে আওয়ামী লীগের দুই জনসহ ১০ জন, ঢাকা-১১ আসনে আওয়ামী লীগের পাঁচ জনসহ ১১ জন, ঢাকা-১২ আসনে আওয়ামী লীগের এক জনসহ সাত জন, ঢাকা-১৩ আসনে আওয়ামী লীগের দুই জনসহ ১০ জন, ঢাকা-১৪ আসনে আওয়ামী লীগের ৯ জনসহ ২৬ জন, ঢাকা-১৫ আসনে আওয়ামী লীগের দুই জনসহ ৯ জন, ঢাকা-১৬ আসনে আওয়ামী লীগের এক জনসহ আট জন, ঢাকা-১৭ আসনে আওয়ামী লীগের দুই জনসহ ১৪ জন এবং ঢাকা-১৮ আসনে আওয়ামী লীগের দুই জনসহ ৯ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন।

হলফনামায় যে আট ধরনের তথ্য প্রদান করতে হবে :সোমবার জারি করা পরিপত্র অনুযায়ী প্রার্থীদের হলফনামায় আট ধরনের তথ্য প্রদান করতে হবে। এর মধ্যে রয়েছে, প্রার্থীর অর্জিত সর্বোচ্চ শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেটসহ উত্তীর্ণ পরীক্ষার নাম, প্রার্থীর বিরুদ্ধে বর্তমানে কোনো ফৌজদারি মামলা আছে কি না, অতীতে প্রার্থীর বিরুদ্ধে দায়েরকৃত কোনো ফৌজদারি মামলার রেকর্ড আছে কি না এবং থাকলে তার রায় কি ছিল সেই তথ্য, পেশার বিস্তারিত বিবরণ, আয়ের উৎস বা উত্সসমূহ :আয়কর রিটার্ন এবং মনোনয়নপত্রের সঙ্গে প্রদত্ত তথ্যের সামঞ্জস্যপূর্ণ হওয়া, প্রার্থীর নিজের ও অন্য নির্ভরশীলদের পরিসম্পদ ও দায় এর বিবরণী দাখিল, ইতিপূর্বে জাতীয় সংসদের সদস্য ছিলেন কি না এবং থাকলে ভোটারদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি কতটা অর্জন সম্ভব হয়েছিল সেই তথ্যাদি, কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রার্থী একক বা যৌথভাবে বা তার ওপর নির্ভরশীল সদস্যের নেওয়া ঋণের পরিমাণ অথবা কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক বা পরিচালক হওয়ার সুবাদে ঐ সব প্রতিষ্ঠান থেকে নেওয়া ঋণের পরিমাণ সংক্রান্ত তথ্য।

ইসির সঙ্গে ইইউর বৈঠক আজ, পর্যবেক্ষকদের জন্য বিমানবন্দর ও হোটেলে থাকবে হেল্প ডেস্ক :নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠানো নিয়ে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সঙ্গে বৈঠকে বসছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। আজ বুধবার নির্বাচন কমিশনে এ যৌথসভায় সংস্থাটির ১০ সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন ইতিমধ্যে জানিয়েছে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তারা পাঁচ সদস্যের একটি পর্যবেক্ষক টিম পাঠাবে, এতে দুই জন টেকনিক্যাল এক্সপার্ট থাকবেন।

এদিকে নির্বাচন দেখতে বিভিন্ন দেশ ও সংস্থার ৮৭ জন পর্যবেক্ষক ইতিমধ্যে আবেদন জানিয়েছে। এছাড়া ৩৮টি দেশ ও চারটি সংস্থার ১১৪ জন পর্যবেক্ষককে ভোট দেখতে আমন্ত্রণ জানিয়েছে ইসি।

ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলম বলেন, বিদেশি পর্যবেক্ষকদের নিরাপত্তাই শুধু নয়, যারা নিজ খরচে আসবেন; তারা কোন হোটেলে থাকবেন, কোন এলাকায় পর্যবেক্ষণে যাবেন এবং আমন্ত্রিত অতিথিদের তাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা, সব মিলিয়ে কমপ্লিট সিদ্ধান্ত নিতে এ সভা করা হয়েছে। তিনি বলেন, এই সভার মূল উদ্দেশ্য ছিল নির্বাচন কমিশনের যে বৈদেশিক পর্যবেক্ষক নীতিমালা আছে, তা অনুসরণ করে যারা নিজ খরচে পর্যবেক্ষণ করতে চান তাদের আগমন এবং ইসি থেকে যাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে, সেই আমন্ত্রিত মেহমানদের কীভাবে একটি নিরবচ্ছিন্ন সেবা দেওয়া।

ইসির প্রস্তুতির বিষয়ে সচিব বলেন, বিদেশি মেহমানদের জন্য বিমানবন্দরে একটা হেল্প ডেস্ক করা হবে। যাতে সহজেই ইমিগ্রেশন সম্পন্ন করে নির্ধারিত হোটেলে যেতে পারেন। সেখানেও একটা হেল্প ডেস্ক করে দেওয়া হবে। সেখান থেকে তারা যেন নির্বাচন সংক্রান্ত তথ্য নিতে পারেন। তাদের নিরাপত্তার বিষয়টিও চূড়ান্ত হয়েছে। হঠাৎ অসুস্থ হলে স্বাস্থ্যসেবার বিষয়টিও আলোচনা হয়েছে।

মাগুরায় ভোটার স্থানান্তরে ইসিতে আবেদন সাকিবের: জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান মাগুরা-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন। কিন্তু তিনি বর্তমান ভোটার বনানী পুরাতন ডিওএইচএস এলাকায়। যদিও সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশি যে কোনো ভোটার যে কোনো আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন। সাকিব আল হাসান ইতিমধ্যেই তার বর্তমান ঠিকানা ঢাকার বনানী থেকে পরিবর্তন করে মাগুরা পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডে নিতে চান। এজন্য নির্বাচন কমিশনে আবেদন করেছেন।

ইত্তেফাক/এমএএম