বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

একটি-দু’টি পত্রিকার রিপোর্টে প্রার্থীকে তলব কখনো দেখিনি: শামীম ওসমান

আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৭:২৬

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি ভঙ্গের নোটিশের জবাব দিয়েছেন। রোববার (৩ ডিসেম্বর) বেলা ১১টার দিকে তিনি সশরীরে নারায়ণগঞ্জ জেলা দ্বিতীয় দায়রা জজ আদালতে হাজির হয়ে এই জবাব দেন তিনি। এর আগে তার নির্বাচনী এলাকার নেতাকর্মীদের শান্তি মিছিল থেকে নৌকায় ভোট চাওয়া ও প্রতীক প্রদর্শনের অভিযোগ এনে আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে শামীম ওসমানকে নোটিশ দেন বিচারকদের নিয়ে গঠিত নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটি। 

জবাব প্রদান শেষে আদালত চত্বরে শামীম ওসমান সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন। এসময় তিনি বলেন, আমি নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ জানাই। আমি মনে করি এ নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে। আর প্রার্থীদের শোকজ দেয়াটাই প্রমাণিত হলো বর্তমান নির্বাচন কমিশন স্বাধীন। যারা বলছে-এবার নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না তাদের  মুখে চুনকালি মেখে দিয়ে তারা প্রমাণ করেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব। নোটিশ পেয়ে আমার দুঃখ পাওয়ার কথা ছিল কিন্তু আমি আনন্দিত ও গর্বিত হয়েছি। কখনো দেখিনি, একটি-দুটি পত্রিকার রিপোর্টে প্রার্থীকে তলব করতে। এতেই প্রমাণিত হয়, নির্বাচন কমিশন স্বাধীন। আমরা এরকম একটি কমিশনই চেয়েছিলাম।’

শান্তি মিছিল থেকে নৌকার ভোট চাওয়া ও প্রতীক প্রদর্শনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সারাদেশে বিএনপি-জামায়াত ও জঙ্গিরা জ্বালাও-পোড়াও, হত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে। এর প্রতিবাদে আমার নেতাকর্মীরা শান্তি মিছিল করেছে। শান্তির প্রতীক নৌকা। সে কারণেই নৌকার স্লোগান এসেছে, প্রতীকও প্রদর্শন করেছেন কেউ কেউ। আপনারা জানেন, মনোনয়নপত্র জমার দিনে আমি একা এসেছিলাম আচরণবিধির প্রতি সম্মান জানিয়ে। এমনকি শান্তি মিছিলে আমি নিজেও উপস্থিত ছিলাম না। আজ নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ করেছি, যারা অগ্নিসন্ত্রাস, জ্বালাও-পোড়াও করছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে।’ 

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ মোহসিন মিয়া ও জেলা কৃষক লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ওয়াজেদ আলী খোকন প্রমুখ।

ইত্তেফাক/এএএম