বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

গুলশানে শ্রীলঙ্কান নাগরিকের বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ অবৈধ মদ উদ্ধার

আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩, ২০:৩৯

রাজধানীর গুলশানে একজন শ্রীলঙ্কান নাগরিকের বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ অবৈধ মদ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এই ঘটনায় অবৈধ মদ রাখার দায়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা হয়েছে। তবে পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

গুলশানের ৫৯ নম্বর সড়কের ১৬ নম্বর বাসার দ্বিতীয় তলার ২০৩ নম্বর ফ্ল্যাটে বিপুল পরিমাণ অবৈধ মদ রয়েছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেই ফ্ল্যাটে অভিযান চালায় গুলশানা থানা পুলিশের একটি দল। উদ্ধার করা হয় প্রায় সাড়ে ৩ লাখ টাকা মূল্যমানের মদ। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ফ্ল্যাটটি একজন শ্রীলঙ্কান নাগরিকের ভাড়া নেওয়া। তার নাম দিশান করুনারত্নে। তিনি বেস্ট সেলার নামে একটি ডেনিশ প্রতিষ্ঠানের বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ। চাকরির আড়ালে তিনি অবৈধ মদের ব্যবসাও করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ২৬ নভেম্বর গুলশান থানার উপপরিদর্শক আরিফুজ্জামান ঐ বাসায় অভিযান চালান। এসময় ২৩ বোতল বিদেশি মদ ও সাত ক্যান বিয়ার উদ্ধার করেন। পরে তিনি গুলশান থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় তিনি ঘটনাস্থল পরিবর্তন করে বাসার ছাদ থেকে অবৈধ মাদকদ্রব্য উদ্ধারের কথা উল্লেখ করেন। মামলার আসামিও করা হয় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে। ঐ মামলার এজাহারে একজন পুলিশ কর্মকর্তাসহ তিন জনকে সাক্ষী করা হয়।

মামলার এজাহারে উল্লেখিত এক জন সাক্ষী শ্রীলঙ্কান নাগরিকের বাবুর্চি হিসেবে কাজ করেন। তার নাম সঙ্গীত কামাখ। তিনি জানান, পুলিশ তার বসের বাসায় অভিযান চালিয়েছিল। তার বস বিদেশি অতিথিদের জন্য মদ এনেছিলেন। তাদের অফিসে প্রায়ই বিদেশি ক্রেতারা আসেন। তাদেরকে মদের যোগান দেন তার বস।

সূত্র জানায়, গুলশানের শ্রীলঙ্কান ঐ নাগরিকের বাসায় অভিযান চালিয়ে মাদক উদ্ধার করা হলেও তাকে মামলার আসামি করা হয়নি। এমনকি মামলা থেকে তাকে বাঁচাতে ঘটনাস্থলও ভিন্ন দেখানো হয়েছে। বিদেশি নাগরিক হওয়ার সুযোগে তিনি শুল্কমুক্ত মদ ক্রয়ের সুবিধা নেন। সেই মদ অবৈধভাবে কেনাবেচা করা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ।

ইত্তেফাক/এএএম