বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

জার্মানি থেকে এসে ৮ গোল হজম করলেন

আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৫:০০

বাংলাদেশকে হারাতে জার্মানি থেকে খেলোয়াড় এনেছিল সিংগাপুর। দানেলি তানলি এরন নামের এক ফুটবলারকে এনেই একাদশে নামিয়ে দিলেন সিংগাপুরের মরক্কোন কোচ করিম বেনশেরিফ। তবে স্ট্রাইকার পজিশনের এই খেলোয়াড়কে নিয়ে কোনো লাভ হয়নি। বরং আরো করুণ চিত্র দেখল।

আশঙ্কা ছিল, দানেলি তানলি এরন বাংলাদেশের রক্ষণে ত্রাস সৃষ্টি করবেন। জার্মানির বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের এই ফুটবলার অনেক অভিজ্ঞ। শক্তির বিচারে সিংগাপুরও অনেক এগিয়ে যাবে। কিন্তু তাকে বোতলবন্দ্বি করে ফেলে।

৯০ মিনিটের খেলায় দানেলি তানলি হাতে গোনা কয়েকবার বল পেয়েছে। একবারও বাংলাদেশের গোলরক্ষক রূপনা চকমাকে ভয় ধরাতে পারেননি। বলই যায়নি রূপনার হাতে। সিংগাপুরের মাঝমাঠ বলতে কিছুই ছিল না। সেই সুযোগটাই নিয়েছিলেন বাংলাদেশের মাঝমাঠের মনিকা চাকমা, মারিয়া মান্ডা, সেই সুযোগে রিতুপর্না চাকমা, অধিনায়ক সাবিনা খাতুন, তহুরা খাতুন, সানজিদাদের লড়াই করতে চাপ নিতে হয়নি। মাঝমাঠেই চাপ তৈরি না হলে জার্মানি থেকে প্লেয়ার উড়িয়ে এনে লাভ কী।

জার্মানির বুরুশিয়া ডর্টমুন্ডে মহিলা দলের ফুটবলার সিংগাপুরের স্ট্রাইকার দানেলি তানলি এরন বলই পাননি। মাঝমাঠ থেকে বল না পেলেও তিনি খেলবেন কীভাবে। প্রথমার্ধে এই দুই বার বল টাচ করলেও বোঝা যেত ঝলক আছে পায়ে। কিন্তু সুবিধা করতে পারছিলেন না। নিজেদের মাঝমাঠের ইঞ্জিন সচল না থাকাটা ছিল সবচেয়ে বড় কারণ। সেই সুযোগে দানেলি তানলিকে শেষ বাঁশি পর্যন্ত বোতলবন্দি করে রেখেছিল।

ইত্তেফাক/এএম