মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী নেই

আপডেট : ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৩:৫৮

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে এবারও আওয়ামী লীগ থেকে কোনো প্রার্থী নেই। শুধু রাজনীতির মানুষেরা নন, আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারাও মনে করছেন জাতীয় রাজনীতিতে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতির বেশ কদর রয়েছে। কিন্তু নির্বাচনের সময় এখানকার আওয়ামী লীগ নেতাদের কোনো পাত্তাই দেন না কেন্দ্রীয় নেতারা। বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জ সদর-বন্দরবাসীর এই আসনটি আওয়ামী লীগের কাছে সবসময়ই অবহেলিত থাকে বলে মনে করেন তারা।

যদিও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় নেতারা বরাবরই বলে থাকেন, আওয়ামী লীগের জন্মস্থান এই নারায়ণগঞ্জ। সেই নারায়ণগঞ্জের এই আসনে বিগত ৩৭ বছরের মধ্যে মাত্র একবার নৌকা বিজয়ী হয়েছে। এবার নৌকায় কোনো প্রার্থীই নেই নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে। ফলে এই আসনে নেতাকর্মীরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। 

দেশ স্বাধীন হওয়ার অর্ধশতাব্দীর ইতিহাসে নারায়ণগঞ্জ সদরের এই আসনে মাত্র দুইবার নির্বাচিত হয়েছেন মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব প্রদানকারী ও প্রবীণ রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ। যা স্থানীয় আওয়ামী লীগের জন্য খুবই হতাশাব্যাঞ্জক বলে মনে করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ সমর্থকরা। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী পরিবারখ্যাত ওসমান পরিবারের দ্বিতীয় প্রজন্মের সদস্য এ কে এম শামসুজ্জোহার হাত ধরে ১৯৭৩ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে এই আসন থেকে নির্বাচিত হন। এরপর ওসমান পরিবারেরই আরেক সদস্য এ কে এম নাসিম ওসমানের হাত ধরে ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে জাতীয় পার্টি প্রথম নির্বাচিত হন। এরপর মাত্র একবার এস এম আকরাম ১৯৯৬ সালে এই আসনে নৌকায় বিজয়ী হন। পরে এখানকার আওয়ামী লীগের ভাগ্যে আসনটি জয় করা আর সম্ভব হয়নি। অথচ ১৯৮৬ সালের পর আওয়ামী লীগ চারবার ক্ষমতায় আসে। কিন্তু জাতীয় নির্বাচন এলেই নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের নেতারা কেন্দ্রের কাছে কোনো পাত্তা পান না বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ-৫ আসন থেকে আওয়ামী লীগের নৌকায় প্রার্থী দেওয়ার দাবি ওঠে। এর মধ্যে বিভিন্ন ইউপি নির্বাচনেও নেতৃত্ব হারাতে থাকে আওয়ামী লীগ।

এবারের দ্বাদশ নির্বাচনে এই আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে ছিলেন ছয়জন। তারা হলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাই, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল (ভিপি বাদল), মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জি এম আরাফাত ও মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলী রেজা উজ্জল। কিন্তু আওয়ামী লীগ প্রথম থেকেই এবারের নির্বাচনে এই আসনে কোনো প্রার্থী দেয়নি।

স্থানীয় রাজনীতিকদের ধারণা, সেলিম ওসমানকে সুবিধা দিতেই আওয়ামী লীগ এই আসনে প্রার্থী দেয়নি। তবে এবারের নির্বাচনে নিজ দলীয় প্রতিদ্বন্ধীসহ সব আসনেই আওয়ামী লীগের শক্তিশালী নেতাদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে উৎসাহিত করা হয়। কিন্তু নারায়ণগঞ্জ-৫ আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে চাওয়া এই নেতারা কেউ সেই সুযোগ নিতেও সাহস করেননি।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ সমর্থকদের অভিযোগ, যেহেতু এবার স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বিষয়ে দলীয়ভাবে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে না। তাই আওয়ামী লীগ নেতাদের সুযোগ ছিল স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের একবার দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে নেতাকর্মীদের চাঙা রাখা। এখানকার নতুন প্রজন্মের কারও এখনও নৌকা প্রতীকের নির্বাচনে ভোট দেওয়ার সৌভাগ্য হয়নি। তাই এবারের নির্বাচনে একজনও যদি সাহস করে আওয়ামী লীগের কেউ স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশ নিত, তবে এই আসনের অবহেলিত ও নিষ্পেষিত আওয়ামী লীগের কর্মীসহ নতুন প্রজন্ম নৌকায় ভোট দেওয়ার সুযোগ পেত বলে মনে করেন তারা।

ইত্তেফাক/এইচএ