বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

‘উইকেটের দিক থেকে মান আরও বাড়াতে হবে’

আপডেট : ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২:১২

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ থাকায় চলমান বিপিএলের শুরু থেকে যোগ দিতে পারেনি পাকিস্তানের তারকা ব্যাটার ও সাবেক অধিনায়ক বাবর আজম। তবে ঐ সিরিজ শেষেই যোগ দিয়েছিলেন টুর্নামেন্টটিতে। তাকে উড়িয়ে এবারের আসরে দলে ভিড়িয়েছে রংপুর রাইডার্স। দলটির হয়ে প্রথম ম্যাচ না খেলতে পারলেও দ্বিতীয় ম্যাচেই দেখা যাচ্ছে। এরই মধ্যে ৫ ম্যাচ খেলেছেন বাবর। রংপুর রাইডার্সের হয়ে ৫ ম্যাচে ২০৪ রান করেছেন। যেখানে তার ব্যাটিং গড় ৫১ ও স্ট্রাইক রেট ১১১.৯০। টুর্নামেন্টটিতে ছন্দে থাকার পরও আর থাকতে পারছেন না তিনি। 

আজকে দিনের প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত ঢাকার বিপক্ষে মাঠে নেমেই এবারের বিপিএলে তার যাত্রা শেষ করতে যাচ্ছেন বাবর।  মূলত পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) খেলার কারণেই বাংলাদেশ ছাড়তে হচ্ছে পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ককে। যদিও পিএসএল শুরু হচ্ছে ১৭ ফেব্রুয়ারি। ৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) থেকে অনাপত্তিপত্র পেয়েছেন বাবর।

এদিকে বিপিএল ছাড়ার আগে গতকাল আসরটিতে এসে মিরপুরে প্রথম বারের মতো গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন বাবর আজম। এ সময় টুর্নামেন্টটিতে খেলতে এসে নিজের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত ভালো... এখানে আমি পাঁচ ম্যাচ খেলেছি তো যেভাবে দল পারফর্ম করেছে, বোলিং ব্যাটিং এবং ফিলিং তিন ডিপার্টমেন্টেই যেভাবে খেলেছে...। তাদের আসরের পরবর্তী যাত্রার জন্য শুভকামনা জানাই।’

রংপুরে বাবরের সতীর্থ বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার ও টাইগার তিন ফরম্যাটের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। টুর্নামেন্টটিতে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামার আগে বাবর বলেছিলেন, সাকিব আল হাসানের সঙ্গে খেলতে মুখিয়ে আছেন তিনি। শুধু তাই নয় করেছিলেন অনেক প্রশংসাও। তবে চোখের সমস্যার কারণে ঐ ম্যাচে ছিলেন না সাকিব। পরের চার ম্যাচে একসঙ্গেই খেলেছেন বাবর ও সাকিব। এবার আসরটিতে নিজের যাত্রা শেষ হওয়ার আগেও সাকিবের গুণ গান গাইতে ভুললেন না পাকিস্তানের এই ব্যাটার। বলেন, ‘সাকিব ভাই আমার সিনিয়র। আমার মনে হয়, রংপুর রাইডার্স এবং তরুণদের জন্য সম্মানের বিষয় যে, সাকিব তাদের দলে আছেন। তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার অভিজ্ঞতা ছেলেদের সঙ্গে ভাগাভাগি করেন। ম্যাচের সময়ও তিনি এটা করেন; যা খুবই ভালো ব্যাপার। ড্রেসিংরুমে সবসময় ইতিবাচক এবং হাস্যোজ্জ্বল থাকেন।’

তবে এত শত ভালো অভিজ্ঞতার মধ্যেও বিপিএলের এক দিক নিয়ে আঙুল তোলার অবকাশ তিনি পেলেন। বিশ্বব্যাপী চলমান ফ্রাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলতে হলে এই টুর্নামেন্টের উইকেটের মান আরও বাড়াতে হবে বলে মনে করেন বাবর। বলেন, ‘খানিকটা কঠিন (উইকেট)। এখানে উইকেট দিনে একরকম আবার রাতে অন্যরকম আচরণ করে। ধারাবাহিকভাবে বাউন্স পাওয়া যায় না আবার সবসময় স্পিনও হয় না, মাঝে মাঝে স্লো এবং নিচু হয়। আমার মনে হয় বিপিএলের উইকেটের দিক থেকে মান আরও বাড়াতে হবে। তবে সব মিলিয়ে দলগুলো ভালো করছে।’

ইত্তেফাক/জেডএইচ