বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

কুমিল্লায় বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরির হিড়িক!

আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০২:০০

কুমিল্লা অঞ্চলে বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরির হিড়িক পড়েছে। কৃষি জমিতে সেচের এ মৌসুমে কুমিল্লাসহ আশপাশের ছয়টি জেলায় ট্রান্সফরমার চোর চক্রের অন্তত অর্ধশত চোর সক্রিয় রয়েছে। এরই মধ্যে চক্রটি এসব জেলার বিভিন্ন স্থানের এবং মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কের অন্তত ৩ শতাধিক বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরি করেছে। এ চক্রের ঢাকায়ও রয়েছে ট্রান্সফরমার চুরিসহ মালামাল ক্রয়-বিক্রয়ের শক্তিশালী নেটওয়ার্ক। সম্প্রতি ট্রান্সফরমার চুরির একটি মামলার তদন্তে মাঠে নেমে গত শনিবার চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতারের পর তাদের জিজ্ঞাসাবাদে জেলা ডিবি পুলিশ এসব তথ্য উদঘাটন করেছে। 

এরই সূত্র ধরে জেলা ডিবি পুলিশের টিম সোমবার গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে আন্তঃজেলা ট্রান্সফরমার চোর চক্রের আরও আট সদস্যকে গ্রেফতার করেছে। এ সময় তাদের কাছ থেকে চোরাই দুইটি ট্রান্সফরমার ও বিপুল পরিমাণ মালামাল উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার কুমিল্লা পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়েছেন।

জানা গেছে, কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চাঁদপুর, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর ও ফেনী জেলার বিভিন্ন স্থানে এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কসহ আঞ্চলিক সড়কে গত কয়েক মাস ধরে বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরির হিড়িক পড়ে। ট্রান্সফরমার চুরি বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে কুমিল্লা পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান চোর চক্রকে ধরতে জেলা ডিবির ওসি রাজেস বড়ুয়ার নেতৃত্বে একটি বিশেষ টিম গঠন করেন। সোমবার গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ডিবি পুলিশ চোর চক্রের আট সদস্যকে গ্রেফতার করে। 

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে- জেলার দেবীদ্বারের সৈয়দপুর গ্রামের কবির হোসেন (৩০), আদর্শ সদরের বড় দৌলতপুর গ্রামের জহিরুল ইসলাম (২৮), সদর দক্ষিণের দুর্গাপুর গ্রামের রুবেল (২৬), লালমাইয়ের ভূশ্চি গ্রামের মাসুদ রানা (২৩), রবিউল আলম ওরফে রফিক (২৬), চেঙ্গাহাটা গ্রামের মেহেদী হাসান ওরফে শাকিল (২৩), ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরের আহাম্মদপুর গ্রামের রুবেল (২৮) ও পাবনার ভেড়া উপজেলার পায়না গ্রামের রফিকুল ইসলাম ওরফে মনছুর (৪৮)। এ সময় তাদের কাছ থেকে চোরাই দুইটি ট্রান্সফরমারসহ বিপুল পরিমাণ মালামাল উদ্ধার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে ঢাকা, কুমিল্লা ও আশপাশের জেলার বিভিন্ন থানায় দুই থেকে ছয়টি করে মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। এর আগে গত শনিবার এই চক্রের আরও পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়।

মঙ্গলবার বিকালে জেলা ডিবি ওসি রাজেস বড়ুয়া জানান, গত শনিবার থেকে সোমবার রাত পর্যন্ত পৃথক অভিযানে আন্তঃজেলা ট্রান্সফরমার চোর চক্রের মোট ১৩ জন সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে চুরির দায় স্বীকার করে তারা জানিয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে তারা কুমিল্লাসহ আশপাশের ছয়টি জেলার বিভিন্ন এলাকায় ট্রান্সফরমার চুরি করে আসছে। প্রতিটি এলাকায় তাদের সদস্য রয়েছে। তারা দিনের বেলায় ট্রান্সফরমার টার্গেট করে এবং রাতে ট্রান্সফরমার চুরি করে নিয়ে যায়। একটি ট্রান্সফরমার চুরিতে তাদের সময় লাগে মাত্র ২০ থেকে ২৫ মিনিট। তিনি আরও বলেন, চক্রের অন্য চোরদের শনাক্ত ও গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে। ঢাকায় এ চক্রের সদস্যদের গ্রেফতারে ডিএমপির টিম কাজ করছে।

ইত্তেফাক/এমএএম