বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

মন্ত্রণালয় ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরস্পরবিরোধী নীতিমালা!

আপডেট : ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৯:২০

বেসরকারি কলেজ পরিচালনায় ‘শিক্ষা মন্ত্রণালয়’ ও ‘জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়’ পৃথক দুটি বিধিমালা তৈরি করেছে, যার গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোতেই নেই কোনো সমন্বয়। একটি অপরটির সঙ্গে সাংঘর্ষিকও। ফলে দুই বিধিমালার আলোকে কলেজ পরিচালনা করতে গিয়ে নানামুখী ভোগান্তিতে পড়ছেন শিক্ষকেরা। কখনো ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষকদের উচ্চ আদালতে গিয়ে সমাধান নিতে হচ্ছে। এতে শিক্ষকেরা আর্থিক ক্ষতিরও সম্মুখীন হচ্ছেন।

ডিগ্রি, অনার্স ও মাস্টার্স স্তরের বেসরকারি কলেজগুলো পরিচালনার জন্য ‘জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বেসরকারি কলেজ শিক্ষকদের চাকরির শর্তাবলি রেগুলেশন’ মানতে হয়। আবার এসব কলেজে নিয়োগ ও পরিচালনার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবলকাঠামো এবং এমপিও নীতিমালা’ রয়েছে, যা মানার বাধ্যবাধকতাও রয়েছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মশিউর রহমান গতকাল ইত্তেফাককে বলেন, এ দুটি বিধিমালার সমন্বয় দরকার। এর উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে। এ পর্যন্ত তিনটি সভা করা হয়েছে। তবে সিদ্ধান্ত পর্যায়ে যেতে আরও কয়েকটি সভার প্রয়োজন হবে।

শিক্ষকেরা বলছেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিভিন্ন সময়ে পরিপত্র, সার্কুলার ও নীতিমালা জারির মাধ্যমে বিভিন্ন শর্তারোপ করে। এসব পরিপত্র বা সার্কুলার কখনো কখনো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালার সঙ্গে সাংঘর্ষিক। 

গত ১১ জানুয়ারি অধ্যক্ষ নিয়োগের বিষয়ে নতুন একটি সার্কুলার জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সেখানে বলা হয়েছে, বেসরকারি কলেজে অধ্যক্ষ নিয়োগের কমিটিতে জেলা প্রশাসকের (ডিসি) প্রতিনিধি থাকবেন। পাঁচ সদস্যের এই নিয়োগ কমিটিতে শিক্ষা বোর্ড ও মাউশির একজন করে প্রতিনিধিও থাকতে হবে। নিয়োগ পরীক্ষায় প্রতি পদের বিপরীতে কমপক্ষে তিনজন প্রার্থী থাকতে হবে।

তবে মন্ত্রণালয়ের এই সার্কুলারের বিষয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বলেন, অধ্যক্ষ নিয়োগের ক্ষেত্রে মন্ত্রণালয়ের এই সিদ্ধান্ত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ‘সরকারি সিদ্ধান্ত’ হিসাবে বাস্তবায়ন করবে। পরবর্তী একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় বিষয়টি উত্থাপিত হবে।

সাংঘর্ষিক যেসব ক্ষেত্রে :জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধিমালা অনুযায়ী বেসরকারি কলেজসমূহে অনার্স কোর্স পরিচালনার জন্য প্রতিটি বিভাগে সাত জন শিক্ষক থাকতে হবে এবং মাস্টার্স কোর্সে অতিরিক্ত আরও পাঁচ জন শিক্ষক, অর্থাৎ মোট ১২ জন শিক্ষকের প্রয়োজন হবে। প্রতিটি বিভাগে এক জন অধ্যাপক, দুই জন সহযোগী অধ্যাপক, চার জন সহকারী অধ্যাপক ও পাঁচ জন প্রভাষকসহ মোট ১২ জন থাকার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। 

অন্যদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবলকাঠামো ও এমপিও নীতিমালায় অনার্স কলেজে প্রতি বিষয়ে শূন্য পদে মাত্র তিন জন শিক্ষক নিয়োগের বিধান আছে। অতিরিক্ত শিক্ষক নিয়োগের সুস্পষ্ট কোনো নির্দেশনা নেই। কোনো কলেজে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা অনুসরণ করে অধ্যাপক ও সহযোগী অধ্যাপক পদে নিয়োগ দিলে তা গ্রহণ করছে না শিক্ষা মন্ত্রণালয়। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম মেনে শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে বেতন-ভাতা দেওয়া হলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টিতে তা অবৈধ।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধিমালা অনুযায়ী, চাকরিতে পাঁচ বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন এক জন সহকারী অধ্যাপক উক্ত অধ্যক্ষ/উপাধ্যক্ষ পদে আবেদন করতে পারবেন। অন্যদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় নীতিমালা অনুযায়ী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ নিয়োগের ক্ষেত্রে এমপিওভুক্ত হিসেবে তিন বছরের অধ্যক্ষ/উপাধ্যক্ষ পদের অভিজ্ঞতা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এবং উপাধ্যক্ষ নিয়োগের ক্ষেত্রে এমপিওভুক্ত হিসেবে উচ্চমাধ্যমিক কলেজের অধ্যক্ষ/ডিগ্রি কলেজের উপাধ্যক্ষ/এমপিওতে তিন বছরের সহকারী অধ্যাপক পদে এবং মোট ১২ বছরের শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা থাকার বিধান রয়েছে। ফলে নিয়োগ নিয়ে জটিলতা লেগেই আছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য বলেন, অধ্যক্ষ পদে নিয়োগের জন্য উপাধ্যক্ষ পদের অভিজ্ঞতার শর্ত দেওয়া হলে প্রার্থী কম পাওয়া যায়। এ কারণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় উপাধ্যক্ষ পদের বিষয়ে শর্ত দেয়নি।

আবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা অনুযায়ী, কলেজে শিক্ষক পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে একটি নিয়োগ নির্বাচনি বোর্ড গঠন করে গভর্নিং বডির মাধ্যমে সরাসরি শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার বিধান রয়েছে। অথচ ২০১৫ সালের ২২ অক্টোবরের পর থেকে এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে গভর্নিং বডির ক্ষমতা রহিত করা হয়েছে। পাশাপাশি এনটিআরসিএর মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের বিধান বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। অনার্স-মাস্টার্স কলেজে অতিরিক্ত শিক্ষক প্রয়োজন হলে কীভাবে নিয়োগ দেওয়া হবে, তার বর্ণনা নেই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিধিমালায়।

শিক্ষকেরা জানিয়েছেন, কলেজে ডিগ্রি (পাস) কোর্স অনুমতি নিতে গিয়ে তিন জন করে শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছে বেসরকারি ডিগ্রি কলেজগুলো। আর এতেই বিপত্তি ঘটে। দুই জন শিক্ষক এমপিওভুক্ত হলেও তৃতীয় জন দীর্ঘদিন ধরে এমপিওভুক্ত হতে পারছিল না। উচ্চ আদালতে গিয়ে বিষয়টির সমাধান করতে হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও এর অধীনস্থ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি (পাস) কলেজের এই জনবলকাঠামোকে সমন্বয়হীনতার কথা বলেছেন সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে দেশের অনার্স মাস্টার্স কোর্সের ৩৫০টি বেসরকারি কলেজের শিক্ষকেরা মানবেতর জীবন যাপন করছেন। দীর্ঘ ২৮ বছরেও জনবলকাঠামো তৈরি না করায় শুধু অনার্স ও মাস্টার্স কোর্সের শিক্ষক-কর্মচারীরা এমপিও সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের জনবলকাঠামো অনুযায়ী অনার্স মাস্টার্স স্তরে শিক্ষক নিয়োগের সুযোগ রাখা হয়নি। অথচ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবিধানে এই সুযোগ রয়েছে। এই সুযোগে আট শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনার্স মাস্টার্স কোর্স চালু করেছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়।

ইত্তেফাক/এমএএম