বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

আগেই কী নির্ধারণ হয়েছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ২০:১১

পাকিস্তানের স্থানীয় সময় আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে দ্বাদশ সাধারণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ইতিমধ্যে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে, চলছে ভোট গণনা। এবারের নির্বাচনে প্রধান যে দুই দল লড়ছে- তার মধ্যে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)। এ ছাড়া তুমুল জনপ্রিয়তা থাকা সত্ত্বেও পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) প্রতিষ্ঠাতা ইমরান খান এবারের নির্বাচনে অংশ নিতে পারেননি বা দেশটির ক্ষমতাধর সেনাবাহিনী তাকে লড়তে দেয়নি।

ইমরান খান এখন আদিয়ালা কারাগারে বন্দী আছেন। এবারের নির্বাচনে ইমরানের দলের প্রার্থীদের দলীয় প্রতীকও দেওয়া হয়নি। গেল সপ্তাহে ইমরানের বিরুদ্ধে পাঁচ দিনের মধ্যে তিনটি মামলার রায় হয়েছে। এসবের প্রত্যেকটিতে ইমরান খানের কয়েক বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। 

এদিকে এরই মধ্যে পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী কে হতে যাচ্ছেন- তার পূর্বাভাস পাওয়া গেছে। বিবিসি, গার্ডিয়ান এবং এএফপিসহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী পিএমএল-এনের প্রধান নওয়াজ শরীফই চতুর্থবারের মতো পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ফিরে আসছেন। 

দ্য ওয়াশিংটন পোস্টের মতে, পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) যদি ৮ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে বিজয়ী না হয়, তাহলে বিষয়টি অবাক হওয়ার মতো হবে।

এপির রিপোর্টে বলা হয়েছে, গত বছর দেশে ফেরার পর আদালত তার দোষী সাব্যস্ত এবং কারাদণ্ডের রায় বাতিল করার কারণে চতুর্থ মেয়াদে ফেরার পরিষ্কার পথ রয়েছে নওয়াজের।

গ্যালাপের জরিপ ও ব্লুমবার্গ জানিয়েছে, নওয়াজ শরীফই আবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন। শেষবার যখন নওয়াজ শরীফ দেশটির প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন তিনি দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত হন। এর আগে তাকে ক্ষমতা থেকে হটানো হয়। এতোকিছুর পরেও নওয়াজ শরীফ আবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন। 

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক উইলসন সেন্টারের দক্ষিণ এশিয়া ইনস্টিটিউটের পরিচালক মাইকেল কুগেলম্যান বলেছেন, শুধু জনপ্রিয়তার কারণে নওয়াজ শরীফ পাকিস্তানের পরবর্তী নির্বাচনের শীর্ষ প্রার্থী হিসেবে আবির্ভূত হননি। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে তিনি পর্দার আড়ালে সঠিক কার্ডটি খেলেছেন।  

সেনাবাহিনীর সঙ্গে যোগসাজশের ফলেই নওয়াজ শরীফের দেশে ফেরা ও আবার প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন বলেই মতামত বিশ্লেষকদের। কিছু বিশ্লেষকের ধারণা, এবার পাকিস্তানের সেনাবাহিনী নওয়াজ শরীফের ওপর বাজি ধরেছে। নওয়াজ গত বছর পাকিস্তানে ফেরেন এবং তার বিরুদ্ধে দেশটির আদালত দ্রুত সব মামলা তুলে নেন। 

লাহোরভিত্তিক একজন রাজনৈতিক বিশ্লেষক তাহির মেহদি বলেছেন, এবারের ২০২৪ সালের নির্বাচন গত নির্বাচনের মতোই সুষ্ঠু না। তিনি এই নির্বাচনকে কারচুপি হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

ইত্তেফাক/এসআর