বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

পাকিস্তানে নির্বাচন

কখন জানা যাবে ফল

আপডেট : ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ২০:১৯

পাকিস্তানে এখন প্রায় সন্ধ্যা ৯টা। এর মধ্যে কিছু নির্বাচনী এলাকায় বর্ধিত দুই ঘণ্টার ভোটগ্রহণের সময়ও শেষ হতে চলেছে। আংশিক ও বেসরকারি ফল সন্ধ্যার পরেই ঘোষণা করার আশায় চলছে ভোট গণনা।

পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা হারুন শিনওয়ারি আল-জাজিরাকে বলেছেন, স্থানীয় সময় রাত ১০টার পরে শহর এলাকা থেকে সম্পূর্ণ ফলাফল আসতে শুরু করবে। তবে প্রত্যন্ত গ্রামীণ এলাকায় দেরি হতে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে।

যেভাবে হয় পাকিস্তানের নির্বাচন

পাকিস্তানে সংসদীয় গণতন্ত্র ও ফেডারেল আইনসভার আসনগুলোর জন্য ভোটগ্রহণ করা হয়। এটিকে বলা হয় জাতীয় পরিষদ এবং চারটি প্রাদেশিক বা রাজ্য অ্যাসেম্বলি।

২৪ কোটি জনসংখ্যার মধ্যে প্রায় ১২ কোটি ভোটার ছিল। ভোটগ্রহণ শেষ হয় স্থানীয় সময় বিকাল ৫টায়। তবে কিছু এলাকায় ভোট গ্রহণের সময় দুই ঘণ্টা বাড়ানো হয়েছিল।

এবারের নির্বাচনে ফেডারেল আইনসভার জন্য ৫ হাজার ১২১ জন এবং প্রদেশগুলোর জন্য ১২ হাজার ৬৯৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি গঠিত ৩৩৬টি আসন নিয়ে। ২২৬টি আসনের প্রার্থী ভোটের দিন সরাসরি ভোটে নির্ধারণ করা হয়। সংরক্ষিত ৭০টি আসনের মধ্যে ৬০টি আসন নারীদের ও ১০টি আসন অমুসলিমদের জন্য। আসনগুলো হাউজের প্রতিটি দলের শক্তি অনুযায়ী বরাদ্দ করা হয়।

বিজয়ী প্রার্থীরা জাতীয় পরিষদের সদস্য হন। নির্বাচনের পর স্বতন্ত্র প্রার্থীদের যেকোনো দলে যোগ দেওয়ার সুযোগ রয়েছে।

একবার গঠিত হলে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি সংসদীয় ভোটে হাউজের একজন নেতা নির্বাচন করে। তিনি হবেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। একজন সফল প্রার্থীকে অবশ্যই হাউজে সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা দেখাতে হবে। অর্থাৎ কমপক্ষে ১৬৯ জন সদস্যের সমর্থন তাকে পেতে হবে।

একবার একজন প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী জাতীয় পরিষদের ভোটে জয়ী হলে, তারা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। নতুন প্রধানমন্ত্রী ক্যাবিনেট মন্ত্রীদের বেছে নেন, যারা ফেডারেল সরকার গঠন করেন।

ইত্তেফাক/এসএটি