বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

রেলিগেশনের পথে যাচ্ছে শেখ রাসেল

আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭:১১

একসময় আলোড়ন তোলা শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র দেশের ফুটবলে এখন লেজেগোবরে অবস্থা। নিচে নামতে নামতে এখন তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে আবার হেরেছে একসময়ের ঐতিহ্য নিয়ে মাথা উঁচু করা দল শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শহিদ শেখ রাসেলের নামে গড়া ফুটবল দলটা ট্রেবল জয় করেছিল। ফেডারেশন কাপ ফুটবল ও স্বাধীনতা কাপ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হওয়া সেই দল এবার রেলিগেশনে নামতে যাচ্ছে। 

গতকাল লিগের আরেক ম্যাচে হেরেছে। এবার হারিয়েছে চট্টগ্রাম আবাহনী, ২-১ গোলে হেরেছে শেখ রাসেল। ৬১ মিনিটে সোহেল রানা, ৬৯ মিনিটে সাগর গোল করেন। ৯০ মিনিটে ভাগ্যক্রমে পেনাল্টি পেয়ে গোল শোধ করে শেখ রাসেল। ৪ নম্বরে চট্টগ্রাম আবাহনী, ৭ খেলায় চট্টগ্রাম আবাহনীর এটি দ্বিতীয় জয়। অন্যদিকে ৭ ম্যাচে ১ জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ১০ দলের লিগে শেখ রাসেলের অবস্থান ৯ নম্বরে। করুণ চিত্র ফুটে উঠছে। 

অথচ এই শেখ রাসেলের খেলা হলে একসময় বড় দলগুলোকে মাঠে নামতে হতো অনেক হিসাবনিকাশ করে। সর্বশক্তি নিয়োগ করতে হতো। কারণ মাঠের পারফরম্যান্স আর সাংগঠনিক দক্ষতা দুই মিলে প্রতিপক্ষের কাছে এই দলের ওজন ছিল গ্রহণযোগ্য। পয়েন্ট টেবিলে তাদের অবস্থান থাকত শীর্ষে। আর এখন পয়েন্ট টেবিলে শেখ রাসেলকে খুঁজতে হলে নিচের দিক থেকে খুঁজতে হয়।

শেখ রাসেলের ফুটবল পরিচালক, কর্মকর্তারাই নাকি মাঠে যান না। মাঠে দেখা যায় না ডাইরেক্টর ইনচার্জ ইসমত জামিল আকন্দ লাভুল, শাহজাহান কবীর, হাসান জামান, বেলায়েত হোসেন ব্যাপারী, খলিলুর রহমান, জাহাঙ্গীর, আলিমুজ্জামান, সালেহ জামান সেলিমদের। অথচ দলের চেয়ারম্যান সায়েম সোবাহান আনভীর অর্থভান্ডার খুলে দিয়ে ফুটবল গঠনের কাজটি করেছেন। যখন যা চাওয়া হয়েছে দিয়েছেন। বিদেশি কোচ আনা হয়েছে। ক্লাব সূত্রে জানা গেছে, এবার ফুটবল দলের পেছনেই প্রায় সাড়ে ৮ কোটি টাকা খরচা হয়ে গেছে। তাহলে এই দলের এমন অবস্থা হলো কেন? গলদ কোথায়? এমন অবস্থা চলতে থাকলে এবারই নেমে যাবে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র।

ইত্তেফাক/জেডএইচ