শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

চট্টগ্রামে পুলিশ-হকার সংঘর্ষ

১২০০ জনকে আসামি করে চসিকের মামলা

আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫:৪৭

নগরীর নিউমার্কেট এলাকায় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) উচ্ছেদ অভিযান চলাকালে হকারদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ এবং ধাওয়া-পালটা ধাওয়ার ঘটনায় ১ হাজার ২০০ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। 

চসিক কর্মকর্তাদের ওপর হামলার অভিযোগে আজ মঙ্গলবার দুপুরে সংস্থাটির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের দপ্তরের কর্মকর্তা আবু জাফর চৌধুরী কোতোয়ালি থানায় এ মামলা করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চসিকের জনসংযোগ কর্মকর্তা আজিজ আহমেদ।

গতকাল সোমবার বিকেলে নগরীর নিউমার্কেট মোড় থেকে ফলমণ্ডি পর্যন্ত হকারদের পুনর্দখল ঠেকাতে চসিকের অভিযান চলাকালে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে। এ সময় অভিযানে ব্যবহৃত চসিকের বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। আহত হন চসিক কর্মী ও পুলিশ সদস্য। ঘটনার সময় হকাররা বিক্ষোভ মিছিলও বের করেন।  

জানা গেছে, এ অভিযানে চসিক কর্মকর্তাদের মধ্যে নেতৃত্ব দেন চসিকের চৈতী সর্ববিদ্যা, শাহরিন ফেরদৌসী, আরাফাত রহমান সানি। চসিক কর্মকর্তারা জানান, চসিকের অভিযানে হকাররা বাধা দিয়েছেন। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ১০-১২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। চসিকের চার-পাঁচটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। সরকারি কাজে বাধা দেওয়ায় মামলা দায়ের করা হচ্ছে। 

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) অ্যাডিশনাল কমিশনার আবদুল মান্নান মিয়া সাংবাদিকদের জানান, পরিস্থিতি পুলিশ নিয়ন্ত্রণে আনে। ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে ফাঁকা গুলি ছোড়া হয়। ঘটনার সময় চার জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম ফুটপাত হকার সমিতির সভাপতি নূরুল আলম লেদু সাংবাদিকদের বলেন, হকাররা নিরাপদ দূরত্বে বসে ছিলেন। চসিকের লোকজন হকারদের মারধর করছিলেন। ম্যাজিস্ট্রেট জরিমানা করেছেন কয়েকজনকে। কারাদণ্ডও দিয়েছেন। এর প্রতিবাদে আমরা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ সমাবেশ করছিলাম। তখন ওত পেতে থাকা বহিরাগতরা পুলিশের দিকে ইট-পাটকেল ছুড়েছে। তারা পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। পুলিশের আক্রমণে হকাররা ছত্রভঙ্গ হয়ে যান। এ সময় কয়েক জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় মামলা সাজানো হবে এবং আমাদের গ্রেফতার করা হবে বলেও আশঙ্কা করছি।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি