মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

ফের টেকনাফ সীমান্তে ভেসে আসছে বিস্ফোরণের বিকট শব্দ 

আপডেট : ২৬ মার্চ ২০২৪, ১৯:৫১

কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তে মিয়ানমারের রাখাইন থেকে থেমে থেমে মর্টারশেল ও গ্রেনেড-গুলির বিস্ফোরণের বিকট শব্দ ভেসে আসছে।

সোমবার (২৪ মার্চ) রাত থেকে মঙ্গলবার (২৫ মার্চ) বিকাল পর্যন্ত টেকনাফ পৌরসভা, হ্নীলা ও হোয়াইক্যং সীমান্তের এপারে বিস্ফোরণের বিকট শব্দ ও ধোঁয়ার কুণ্ডলি উড়তে দেখা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মির দখলে থাকা রাখাইনের অধিকাংশ অঞ্চল এবং বিজিপির ক্যাম্প ও চৌকি পুনরুদ্ধার করতে দেশটির সেনাবাহিনীর আবারও হামলা শুরু করেছে। রাখাইনের আকিয়াব, মংডু শহরের বলি বাজারে আশপাশে দেশটির সেনা ক্যাম্পগুলো আরাকান আর্মি দখল নিতে হামলা চালাচ্ছে। অপরদিকে, দেশটির সেনাবাহিনীর সেগুলো নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে পাল্টা আক্রমণ করছেন। হেলিকপ্টার থেকে নিক্ষেপ করা হচ্ছে মর্টারশেল ও ভারি গুলি। এতে ওপার থেকে টেকনাফ সীমান্তে ভেসে আসছে বিস্ফোরণের বিকট শব্দ।

টেকনাফ পৌরসভার বাসিন্দা রহমত উল্লাহ বলেন, রাতভর মর্টারশেল ও গুলির শব্দে ঘুম আসেনি। মিয়ানমারের রাখাইন থেকে দফায় দফায় ভেসে আসা বিস্ফোরণের বিকট শব্দে বাড়ি-ঘর কেঁপে উঠে।

হোয়াইক্যং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ নুর আহমেদ আনোয়ারী বলেন, মিয়ানমারের রাখাইনে সংঘাতের কারণে এপারের সীমান্তের বাসিন্দারা আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। রোহিঙ্গা আসার পর থেকে নাফ নদী বন্ধ থাকলেও সীমান্তের বেড়িবাঁধের কাছে হোয়াইক্যং ইউনিয়নের বহু মানুষের চিংড়ি ও কাঁকড়া ঘেরসহ চাষাবাদের জমি রয়েছে। সেখানে তারা যেতে ভয় পাচ্ছেন।

তিনি বলেন, সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার সারাদিন ওপার থেকে থেমে থেমে এপারে ভেসে আসছে বিস্ফোরণের বিকট শব্দ। তবে আগের মতো টেকনাফ সীমান্তের এপারের কোথাও গোলা বা মর্টারশেল পড়েনি বলে জানা গেছে। 

এদিকে মিয়ানমারের সংঘাতময় পরিস্থিতির কোনো পরিবর্তন না হওয়ায় বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) সীমান্তে কঠোর নজরদারি অব্যাহত রেখেছে। 

বিজিবি-২ (টেকনাফ) ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, রাখাইন পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। অনুপ্রবেশ ঠেকাতে নাফ নদীসহ সীমান্তে বিজিবির টহল বাড়ানো হয়েছে।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আদনান চৌধুরী বলেন, রাখাইন রাজ্যে বিস্ফোরণে ঘটনা ঘটলেও টেকনাফ সীমান্তের গ্রামগুলোতে বিশেষ নজর রাখা হচ্ছে। এছাড়া, ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা প্রদানের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

ইত্তেফাক/এবি