মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

কলকাতা থেকে আসা শ্যামলী পরিবহনে দুর্বৃত্তদের হামলা 

আপডেট : ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০১

কলকাতা থেকে ছেড়ে আসা শ্যামলী পরিবহনের ঢাকাগামী একটি বাসে হামলা করেছে দুর্বৃত্তরা। মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) রাত সাড়ে আটটার দিকে যশোর-নড়াইল মহাসড়কের বাঘারপাড়া উপজেলার ধলগা নামক এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। এতে কয়েকজন যাত্রী আহত হয়েছেন।

আহতদের মধ্যে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তার নাম ডি এন চ্যাটার্জি। তিনি অ্যাসোসিয়েট বিল্ডার্স কর্পোরেশন লিমিটেড (এবিসি) কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও)।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শ্যামলী পরিবহনের ঢাকা-কলকাতা রুটের একটি বাস কলকাতা থেকে ঢাকায় ফিরছিল। পথে যশোর-নড়াইল মহাসড়কের ধলগা এলাকায় দুর্বৃত্তরা ইট মেরে গাড়ির গ্লাস ভেঙে ফেলে। এ সময় গাড়ির ভাঙা কাঁচের আঘাতে কয়েকজন যাত্রী আহত হন। 

শ্যামলী পরিবহন বাংলাদেশের প্রথম সারির পরিবহন সংস্থা। দেশের বিভিন্ন জেলা ছাড়াও ভারতের গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যেগুলোতে নিয়মিত যাত্রী পরিবহন করে। ভারতীয় পণ্য বর্জনের একটি প্রচারণা বাংলাদেশে গত কিছুদিন ধরে সামাজিক মাধ্যমের বাইরে গিয়ে এখন রাজনৈতিক চেহারা পেয়েছে। এর মধ্যে সম্প্রতি শ্যামলী পরিবহনের প্রধান নির্বাহী গণেশ চন্দ্র ঘোষের বাংলাদেশ ভারত এক দেখতে চান এমন একটা বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এতে ক্ষুব্ধ হন ভারতীয় পণ্য বর্জনে সরব থাকা দুবৃর্ত্তরা। ফলে যারা ভারতীয় পণ্য বর্জনে সরব হয়েছেন একশ্রেণির দুবৃর্ত্তরা এমন ঘটনা ঘটাতে পারে বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি সূত্র ধারণা করছে। তবে এই বিষয়ে প্রকাশ্যে কেউ মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। রহস্য উদঘাটনে কাজ করছে আইনশৃংখলা রক্ষাবাহিনির বিভিন্ন সদস্যরা।

বাঘারপাড়ার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন  বলেন, ‘দুবৃর্ত্তরা একটি ইট বা পাথর মেরে শ্যামলী পরিবহনের একটি কাঁচ ভেঙে দিয়েছে। গাড়ি দ্রুতগতিতে ছিল। ঘটনা ঘটনার পর পরিবহন থামেনি। ফলে বিস্তারিত জানা যায়নি। ঘটনাস্থল থানা ও হাইওয়ে পুলিশ পরিদর্শন করেছে। আমরা ধারণা করছি মানসিক ভারসাম্যহীনরা এমন ঘটনা ঘটাতে পারে। তারপরও আমরা ঘটনাস্থলের সিসি ক্যামেরা ও আশেপাশের লোকজনের সঙ্গে কথা বলছি।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) বেলাল হোসাইন বলেন, ‘গাড়িতে বাইরে থেকে ইট ছোড়ার ঘটনা ঘটেছে। এটি নাশকতা কিনা এখনো নিশ্চিত নই। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আর শ্যামলী পরিবহনের ওয়েবসাইটে দেওয়া প্রধান অফিসের তিনটি নাম্বারে মুঠোফোনে কয়েকদফা যোগাযোগ করা হলে তারা ফোনটি রিসিভ করেননি। একইসাথে শ্যামলী পরিবহনের যশোর-নড়াইল কাউন্টারে যোগাযোগ করা হলে তারাও এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।’ 

ইত্তেফাক/এসজেড