মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

নারায়ণগঞ্জে বকেয়া বেতনের দাবিতে বিক্ষোভ, শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ

আপডেট : ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১৪:৩৯

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বকেয়া বেতনের দাবিতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করা শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে৷ আজ রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ফতুল্লায় বিসিক শিল্পাঞ্চলের অবন্তী কালার টেক্স লিমিটেড নামে কারখানার শ্রমিকদের সঙ্গে এ সংঘর্ষ শুরু হয়।

জানা গেছে, এদিন দুপুর ১২টার দিকে হঠাৎ দুদিনের ছুটি ঘোষণা করে কারখানা কর্তৃপক্ষ। ঈদের বেতন-বোনাস পেলেও গত মার্চের বেতন না দিয়েই আবার ছুটি দেওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন শ্রমিকরা। এর মধ্যেই বেলা ১২টার দিকে মালিকপক্ষ কারখানার প্রধান গেটে সোমবার ও মঙ্গলবার দু’দিন কারখানা বন্ধ ঘোষণার নোটিশ সাঁটিয়ে দেয়৷ এতে বলা হয়, গত ২০ ও ২১ এপ্রিল কারখানার শ্রমিকরা ‘বেআইনিভাবে ধর্মঘট ও বিশৃঙ্খলা’ সৃষ্টি করে কর্মবিরতি পালন করছেন৷ এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ এর ১৩(১) ধারায় ২২ থেকে ২৩ এপ্রিল পর্যন্ত কারখানা বন্ধ ঘোষণা করা হল৷

এরপরই বকেয়া বেতনের দাবিতে ক্ষুব্ধ শ্রমিকরা বিক্ষোভ করলে তাদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিচার্জ ও জলকামান দিয়ে পানি ছুড়ে পুলিশ। জবাবে পাল্টা ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে শ্রমিকরা৷ এ সময় পুলিশকে কয়েক রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস ও শর্টগানের গুলি ছুড়তে দেখা যায়৷ বেলা ১টা পর্যন্ত এ সংঘর্ষ চলছিল৷ 

নারায়ণগঞ্জের বিক্ষোভরত শ্রমিকরা জানান, ঈদের আগে গত ৮ এপ্রিল দুপুর পর্যন্ত কাজ করার পর কারখানাটি বন্ধ ঘোষণা করা হয়৷ তখন শ্রমিকরা ঈদের বোনাস পেলেও মার্চ মাসের বেতন বকেয়া ছিল৷ সে সময় ঈদের আগেই মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সেই বেতন পরিশোধের আশ্বাস দিয়েছিলেন কারখানার মালিক। কিন্তু ঈদ পার হলেও বেতন পাননি শ্রমিকরা৷ তাদের অভিযোগ, বেতন বকেয়া থাকায় কষ্টে দিন কাটছে তাদের। অনেকে ঈদে গ্রামের বাড়ি যেতে পারেননি৷ দিতে পারেননি বাসা ভাড়াও। 

কারখানার শ্রমিক মো. আলম বলেন, গত ৮ মাস যাবৎ বেতন নিয়ে কারখানার মালিকপক্ষ গড়িমসি করছে। ঈদের দিনও মোবাইল হাতে নিয়া বইসা ছিলাম বেতন ঢুকবো এই আশায়৷ প্রতিমাসেই বেতনের লাইগা রাস্তায় নামতে হইতেছে৷ সামনে কোরবানির ঈদ, ওই ঈদেও আমাগো লগে এমন হইবো৷ সুমি নামে এক নারী শ্রমিক বলেন, আমাগো আর ঈদ আনন্দ নাই৷ রোজার মইধ্যে ডাবল ডিউটি কইরাও বিল পাই নাই৷ এমনকি রোজার ডিউটির সময় ইফতারের খরচটাও দেয় নাই৷ নিজের কষ্টের টাকা পাইতে এখন রইদের মইধ্যে রাস্তায় নামছি৷ এর চেয়ে কষ্টের আর কী আছে!

অন্যদিকে একই দাবিতে আজ সকাল সাড়ে ৯টায় ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ আঞ্চলিক সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন ক্রোনী গ্রুপের রপ্তানিমুখী পোশাক কারখানার কয়েকশ শ্রমিক৷ বেলা ১২টার দিকে ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তছলিম উদ্দিন গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, কয়েকশ শ্রমিক ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কে বৈদ্যুতিক খুঁটি, বাঁশ ও কাঠ ফেলে অবরোধ করছেন৷ এতে সড়কটিকে অন্তত দুই কিলোমিটার এলাকায় যানজট দেখা দিয়েছে। 

আর কারখানাটির মালিক প্রতিষ্ঠান ক্রোনী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আসলাম সানি বুধবার শ্রমিকদের বেতন পরিশোধ করবেন বলে জানান৷

ইত্তেফাক/জেডএইচডি