বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

উপজেলা নির্বাচন পরিষদ

দলীয় নির্দেশ অমান্য করে এমপির ছেলে ও ভাইয়ের মনোনয়ন জমা

আপডেট : ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১৮:৪৭

সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ও লালমনিরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য নুরুজ্জামান আহমেদের ছেলে রাকিবুজ্জামান আহমেদ চাচার সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনায়নপত্র জমা দিয়েছেন।

রোববার (২১ এপ্রিল) লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান চাচা মাহবুবুজ্জামান আহমেদের প্রতিদ্বন্দ্বী হতে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তিনি।

লালমনিরহাট-২ (আদিতমারী-কালীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। তার আপন ছোট ভাই মাহবুবুজ্জামান আহমেদ টানা ১০ বছর কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবং জেলা আওয়ামী লীগেরসহ সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। দ্বিতীয় পর্যায়ের আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পদ ধরে রাখতে মনোনয়নপত্র জমা করেছেন সাবেক মন্ত্রীর ছোট ভাই বর্তমান চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমেদ। সেই চাচার প্রতিদ্বন্দ্বী হতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ভাতিজা জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক মন্ত্রী ও বর্তমান লালমনিরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য নুরুজ্জামান আহমেদের ছেলে রাকিবুজ্জামান আহমেদ।

সাবেক মন্ত্রীর ছেলে রাকিবুজ্জামান আহমেদ সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ নিয়ে আওয়ামী লীগের জেলা কমিটিতে নাম অন্তর্ভুক্ত করেন। তবে জনপ্রতিনিধি হতে এই প্রথম কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চাচার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

সাবেক মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের ছোট ভাই মাহবুবুজ্জামান আহমেদ ছাত্রলীগ যুবলীগ করে তুষভান্ডার ইউনিয়ন পরিষদে দীর্ঘ টানা ২১ বছর চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন টানা ১০ বছর ধরে। এবারও চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমেদ।

মাহবুবুজ্জামান আহমেদ বলেন, সাবেক মন্ত্রীর ভাই হলেও মন্ত্রীর সঙ্গে আমার তেমন কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তা দলীয় শীর্ষ নেতারাসহ জেলাবাসীও জানেন। জনগণ ভোট দিয়ে আমাকে দীর্ঘ দিন ধরে দায়িত্ব দিয়ে আসছেন। এবারও জনগণের দাবি পূরণে প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি।

সাবেক সমাজকল্যান মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের ছেলে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুজ্জামান আহমেদ বলেন, জনগণ তরুণ নেতৃত্ব চায়। নতুনত্ব চায়। জনগণের দাবি পূরণে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। মন্ত্রী-এমপি'র আত্মীয়-স্বজন নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবে না প্রধানমন্ত্রীর এমন ঘোষণার বিষয়ে তিনি বলেন, এ নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো কাগজপত্র আসেনি। যখন আসবে তখন দেখা যাবে।

রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে চাচা ভাতিজা ছাড়াও চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন তারিকুল ইসলাম তুষার।

এদিকে আদিতমারী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা করেছেন দুজন। তারা হলেন-বর্তমান চেয়ারম্যান ফারুক ইমরুল কায়েস ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলম। যার মধ্যে রফিকুল আলম সাবেক মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ গ্রুপের। অপরজন ফারুক ইমরুল কায়েস জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এফবিসিআইয়ের সাবেক পরিচালক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজুল হক গ্রুপের।

রিটার্নিং কর্মকর্তা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মাহবুবুর রহমান বলেন, দ্বিতীয় পর্যায়ের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দানের শেষ দিনে প্রতিদ্বন্দ্বিরা মনোনায়ন জমা করেছেন। এই প্রথম অনলাইনে বাসা বা অফিসে বসে মনোনয়নপত্র জমা করছেন প্রার্থীরা। দ্বিতীয় পর্যায়ে আদিতমারীতে চেয়ারম্যান পদে ২ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

একইভাবে কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

ইত্তেফাক/পিও