মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

কুবিতে শিক্ষকদের ওপর হামলা, উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি

আপডেট : ২৮ এপ্রিল ২০২৪, ২০:০৯

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) ছাত্রলীগের একাংশ, সাবেক শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন মামলার আসামিদের নিয়ে শিক্ষকদের ওপর হামলা করেছেন উপাচার্য, ট্রেজারার ও প্রক্টর। এই হামলার জেরে উপাচার্যের অপসারণ চেয়ে এক দফা দাবি ঘোষণা করেছে কুবি শিক্ষক সমিতি।

রোববার (২৮ এপ্রিল) দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এএফএম আবদুল মঈন, প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) কাজী ওমর সিদ্দিকী, সহকারী প্রক্টর অমিত দত্ত, জাহিদ হাসান ও মোশাররফ হোসেন এবং আইকিউএসির পরিচালক ড. রশিদুল ইসলাম শেখের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ও সাবেক শিক্ষার্থীরা এ হামলা চালান।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, শিক্ষক সমিতি ঘোষিত ৭ দফা দাবি না মানায় উপাচার্য, ট্রেজারার ও প্রক্টরকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে তাদের দপ্তরে তালা দেওয়ায় উপাচার্যসহ সাবেক শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের কিল-ঘুষি, লাথি ও ধাক্কা দিয়ে প্রশাসনিক ভবনে প্রবেশ করেন। 

ভিডিও ফুটেজে আরও দেখা যায়, উপাচার্য অধ্যাপক ড. এএফএম আবদুল মঈন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষক মোর্শেদ রায়হানকে কনুই দিয়ে ঘুষি মারেন এবং মার্কেটিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মাহফুজুর রহমানকে ধাক্কা দেন। এছাড়া প্রক্টর কাজী ওমর সিদ্দিকী বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোকাদ্দেস-উল-ইসলামকে ঘুষি দিতে দেখা যায়। এরপর হামলায় আহত শিক্ষকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যালে চিকিৎসার জন্য প্রবেশ করলে সাবেক শিক্ষার্থীরা দ্বিতীয় দফায় আবারও শিক্ষকদের ওপর হামলা করেন। 

এ বিষয়ে শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান বলেন, ‘আমরা পূর্ব ঘোষিত দাবি আদায়ের লক্ষ্যে প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান করছিলাম। তখন উপাচার্য এসে আমাকে ধাক্কা দেন। পাশাপাশি সিনিয়র ও জুনিয়র শিক্ষকদের ঘুষি মেরে, সন্ত্রাসী কায়দায় ভিতরে প্রবেশ করেন। তার সঙ্গে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা, অছাত্র, ফৌজদারি মামলার আসামিরাও ছিল।’
 
এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এএফএম আবদুল মঈন বলেন, ‘এখানে আমাদের কোনো দোষ নেই। তাদের দাবিগুলো অযৌক্তিক। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশৃঙ্খলা করছে। আমি তাদের সব সমস্যার সমাধান করে দিয়েছি।’   

ইত্তেফাক/ডিডি