মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

চলন্ত ট্রেন থামিয়ে স্টপেজের দাবিতে ফরিদপুরে মানববন্ধন

আপডেট : ০৫ মে ২০২৪, ১২:৫৯

রাজবাড়ী থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী ‘চন্দনা কমিউটার ট্রেন’ ফরিদপুর রেলস্টেশনে স্টপেজ দেওয়ার দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। এসময় তারা রাজবাড়ি থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনটি থামিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।

রোববার (৫ মে) ভোর ৫টা ১৫ মিনিট থেকে ফরিদপুর রেলস্টেশনে এ বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু হয়।

রাজবাড়ী থেকে ছেড়ে এসে ভোর পাঁচটা ৪০ মিনিটে ফরিদপুর এসে পৌঁছালে বিক্ষুব্ধরা ট্রেনটির সামনে অবস্থান নেন এবং গতিরোধ করেন। এসময় তারা ফুল দিয়ে ট্রেনের চালক, পরিচালকসহ অন্যান্যদের শুভেচ্ছা জানান।
 
বিক্ষোভের মুখে এসময় প্রায় দশ মিনিট ট্রেনটি সেখানে অবস্থান করে। পরে অবস্থানকারীরা সরে গেলে ৫টা ৫০ মিনিটের দিকে ভাঙ্গা হয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় ট্রেন।
 
এর আগে সেখানে স্থানীয়দের পক্ষে বক্তব্য দেন রেল আন্দোলন কর্মী আবরার নাদিম ইতু, শরিফ খান, তুহিন বিন আলমগীর, আশিষ কুমার কুন্ডু, সেলিম মিয়া, আলী মকিম, ইকবাল হোসেন, সোহান, আরিফ শেখ প্রমুখ।

বক্তাগণ রেল যোগাযোগ চালু করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘বর্তমান সরকারের সাফল্যের আরেকটি নতুন অধ্যায় শুরু হলো রাজবাড়ী থেকে ভাঙ্গা হয়ে ঢাকার সাথে নতুন দুটি কমিউটার ট্রেন চালু। তবে অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় হলো, ফরিদপুরের উপর দিয়ে গেলেও ফরিদপুর রেলস্টেশনের কোন স্টপেজ রাখা হয়নি। এতে ফরিদপুরের যাত্রীরা সুলভে ঢাকার সঙ্গে যাতায়াতের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হলো।
 
বক্তাগণ এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে অনতিবিলম্বে ফরিদপুর রেলস্টেশনে এই চন্দনা কমিউটার ট্রেনের স্টপেজ দাবি করেন। 

এদিকে, বিক্ষুব্ধদের অবস্থানের মুখে চন্দনা কমিউটার ট্রেনের পরিচালক মহিবুল ইসলাম তাৎক্ষণিক ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এসময় তিনি বলেন, আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানিয়েছি। তারা হয়তো আজই এ বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত জানাবেন।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, রাজধানী ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগব্যবস্থা সহজ করতে রাজবাড়ী-ভাঙ্গা-ঢাকা পথে রোববার থেকে বাণিজ্যিক ভাবে নতুন করে এক জোড়া কমিউটার ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। এর আগে শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে এর উদ্বোধন করা হয়। তবে মাঝপথে ফরিদপুর রেলস্টেশনে কোন যাত্রাবিরতি না থাকায় এ নিয়ে ফরিদপুরের রেলযাত্রীদের মাঝে চরম অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে। 

তারা এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য রেলমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

 

ইত্তেফাক/এসজেড