মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

শ্রীনগরে নিরাপত্তাকর্মীকে গলা কেটে হত্যা: ২৪ ঘণ্টায় ৩ জন গ্রেপ্তার

আপডেট : ১১ মে ২০২৪, ২১:১৫

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে লিজেন্ড রি-রোলিং কারখানার নিরাপত্তা কর্মী আব্দুল কুদ্দুস আকন (৫৫) কে গলা কেটে হত্যার অভিযোগে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৩ জন হত্যাকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।  

শনিবার (১১ মে) বিকালে শ্রীনগর থানায় এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই তথ্য নিশ্চিত করেন শ্রীনগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. তোফায়েল হোসেন সরকার।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার সেনেরচর বড় গোপালপুর এলাকার হালিম মাতুব্বরের ছেলে শহিদুল ইসলাম (৪০), একই এলাকার মৃত জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে মো. রতন হোসেন (৩৪) ও মাদারীপুরের মিবচর উপজেলার  মাদবরবাড়ি এলাকার মৃত রশিদের ছেলে জাবেদ হোসেন ওরফে লালসালু জবেদ (৪৩)। 

সংবাদ সম্মেলনে শ্রীনগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. তোফায়েল হোসেন সরকার বলেন, আসামিরা গত ৯ মে বৃহস্পতিবার রাত ১১ টার দিকে শ্রীনগর উপজেলার কুকুটিয়া ইউনিয়নের সুরদিয়া এলাকার লিজেন্ড স্টীল রি-রোলিং মিলের নিরাপত্তা কর্মী মো. আব্দুল কুদ্দুস আকনকে চেয়ারের সঙ্গে হাত-পা বেঁধে নৃশংসভাবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে জবাই করে হত্যা করে। শুক্রবার সন্ধ্যায় এলাকাবাসীর সংবাদের ভিত্তিতে শ্রীনগর থানার পুলিশ মৃত্যু আব্দুল কুদ্দুস আকনের লাশ উদ্ধার করে। 

এ ঘটনায় শ্রীনগর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর ও ওসি তদন্ত ওয়াহিদ পারভেজের নেতৃত্বে পৃথক দুটি টিম  মাদারিপুর ও মাগুরা জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করে। 

তিনি আরও জানান, লিজেন্ড রি-রোলিং মিলের মালিক মো.মাহাথির উদ্দিন রাতুলের সঙ্গে গ্রেপ্তারকৃত আসামি মো. শহিদুল ইসলাম লিটনের ব্যবসায়ীক লেনদেনের কিছু টাকা পাওনা ছিল। দীর্ঘদিন ধরে মিলের মালিক টাকা দিতে তাল বাহানা করায় ক্ষিপ্ত হয়ে শহিদুল ইসলাম ও তার সহযোগী রতন ও জাবেদ মিলে নিরাপত্তা কর্মী আব্দুল কুদ্দুসকে গলা কেটে হত্যা করে। আব্দুল কুদ্দুস মিল মালিকের বিশ্বস্ত লোক ছিলেন। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে আসামিদের বিরুদ্ধে শ্রীনগর থানা একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

ইত্তেফাক/পিও