বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

আসামির স্ত্রীর মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে মারধরের ঘটনায় তদন্তের নির্দেশ আদালতের

আপডেট : ১৪ মে ২০২৪, ২০:৫৫

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আসামিকে না পেয়ে স্ত্রীর মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে স্বর্ণালঙ্কার ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনায় অবশেষে আদালতে মামলা করেছেন ভুক্তভোগী নারী। মামলায় ডিবি পুলিশের এসআই রেজাউল করিমসহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাত আরও ৮ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ মে) বেলা ১২টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক বেগম আফরিন আহমেদ হ্যাপীর আদালতে এজাহার জমা দেন ভুক্তভোগী বন্যা বেগম। এ সময় বিচারক অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে (সদর সার্কেল) মামলাটি তদন্তের নির্দেশ দেন।

মামলায় সদর উপজেলার চান্দিয়ারা এলাকার এনামুল হক, একই এলাকার সামসুল ইসলাম ও তাজুল ইসলাম ও ভাই মো. সাগর এবং জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) এসআই রেজাউল করিমের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

এর আগে গতকাল সোমবার সকালে মামলার আবেদন করেন ভুক্তভোগী বন্যা বেগম। এদিন বিকাল ৪টা পর্যন্ত মামলাটি নথিভুক্ত করেনি আদালত। বিকাল সাড়ে ৫টায় মামলাটি প্রত্যাহার করে নেন ভুক্তভোগী। পরে আজ মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় আবারও এজাহার জমা দিলে (দ্রুত বিচার) আইনে মামলাটি রুজু হয়।

জানা গেছে, গত শুক্রবার বিকালে আসামিকে ধরতে সদর উপজেলার থলিয়ারা গ্রামের বাসিন্দা ও সৌদিপ্রবাসী নূরুল আলমের বাড়িতে অভিযান চালায় ডিবি পুলিশ। নুরুল ইসলামকে না পেয়ে এসআই রেজাউল করিম বাড়ির নারী ও শিশুদের মারধর এবং আসামির স্ত্রী বন্যা বেগমের মাথায় পিস্তল ঠেকান বলে অভিযোগ উঠে।

এ ঘটনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ) মো. জয়নাল আবেদীনকে প্রধান করে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে পুলিশ। তদন্ত কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. বিল্লাল হোসেন ও পুলিশ পরিদর্শক (অপরাধ) হাবিবুল্লাহ সরকার।

বন্যা বেগমের আইনজীবী মো. শওকত আলী বলেন, এজাহারে ত্রুটি থাকায় সোমবার ভুক্তভোগী বন্যা বেগম আদালত থেকে আবেদনটি ফিরিয়ে নেন। তবে আজ মঙ্গলবার আবারও আদালতে জমা দিলে মামলাটি রুজু হয়।  

ইত্তেফাক/এবি