বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

দুই বিসিএসের চাকরিতে পিছিয়ে সিলেট বিভাগ

আপডেট : ১৭ মে ২০২৪, ০৪:০৫

৪১তম বিসিএস ও ৪৩তম বিসিএসের ফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, এই দুই বিসিএসেই চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে এগিয়ে আছে ঢাকা বিভাগ। আর পিছিয়ে আছে সিলেট বিভাগ। দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে আছে যথাক্রমে চট্টগ্রাম ও রাজশাহী বিভাগ। সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) ২০২৩ সালের যে বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, তাতে এই চিত্র দেখা গেছে।

পিএসসির প্রতিবেদন বলছে, ৪১তম বিসিএসে ঢাকা বিভাগ থেকে চাকরি পেয়েছেন প্রায় ২১ ভাগ প্রার্থী। এরপরে রয়েছে চট্টগ্রামের প্রার্থীরা। তাদের চাকরি হয়েছে প্রায় সাড়ে ১৮ শতাংশ। রাজশাহী ও খুলনা বিভাগ থেকে চাকরির হার প্রায় ১৫ শতাংশ হলেও রাজশাহী সামান্য এগিয়ে আছে। রংপুর বিভাগ থেকে ১৩ শতাংশ, ময়মনসিংহ থেকে সাড়ে ৯ শতাংশ। কমের দিকে আছে বরিশালে ৫ দশমিক ১৭ ভাগ এবং সবচেয়ে কম সিলেটে-সাড়ে তিন ভাগের একটু বেশি। একইভাবে ৪৩তম বিসিএসে ঢাকা বিভাগ থেকে চাকরি পেয়েছেন প্রায় ২২ ভাগ প্রার্থী। এরপরে রয়েছে চট্টগ্রামের প্রার্থীরা। তাদের চাকরি হয়েছে ১৭ শতাংশ। রাজশাহীতে প্রায় ১৫ শতাংশ ও খুলনা বিভাগ থেকে চাকরির হার সাড়ে ১৩ শতাংশের একটু বেশি। রংপুর বিভাগ থেকে ১৩ দশমিক ৫৫ শতাংশ, ময়মনসিংহ থেকে ১০ শতাংশ। এখানেও কমের দিকে আছে বরিশালে প্রায় ৭ ভাগ এবং সবচেয়ে কম সিলেটে-২১ দশমিক ৩১ শতাংশ।

দুই বিসিএসের তুলনা করলে দেখা যায়, দুই বিসিএসের মধ্যে ৪৩তম বিসিএসে সিলেটে আরো কমেছে। বরিশালে কিছুটা বেড়েছে। ময়মনসিংহ আর রংপুরে কিছুটা বেড়েছে। আর ঢাকায় বেড়েছে, কমেছে চট্টগ্রামে। ৪৩তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশিত হলেও এখনো প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি। এটি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে রয়েছে। মাঠপর্যায় থেকে বিভিন্ন প্রতিবেদন নেওয়ার কাজ চলমান বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।

গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ দিকে ৪৩তম বিসিএসে ২ হাজার ৮০৫ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করে পিএসসি। সিদ্ধান্ত অনুসারে ২ হাজার ১৬৩ জনকে ক্যাডার পদে ও ৬৪২ জনকে নন-ক্যাডার পদে মোট ২ হাজার ৮০৫ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়। এই বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছিল ২০২০ সালের ৩০ নভেম্বর। সেই হিসাবে সাড়ে তিন বছর চলে গেলেও আটকে আছে চূড়ান্ত নিয়োগের কার্যক্রম। এই বিসিএসে ২ হাজার ১৬৩ ক্যাডার পদের সর্বোচ্চ ৮০৩ জনকে সরকারি কলেজের প্রভাষক পদে সুপারিশ করা হয়েছে।

এ ছাড়া প্রশাসন ক্যাডারে ৩০০ জন, পররাষ্ট্র ক্যাডারে ২৫, পুলিশ ক্যাডারে ১০০, কর ক্যাডারে ১০১, তথ্য ক্যাডারে ৪৩ ও সহকারী ডেন্টাল সার্জনে ৭৫ জনকে সুপারিশ করা হয়েছে। নন-ক্যাডারে ৯ম, ১০ম ও ১২তম গ্রেডে মোট ৬৪২ জনকে বিভিন্ন পদে সুপারিশ করা হয়েছে। নন-ক্যাডারে ৬৪২ জনের মধ্যে সর্বোচ্চ ২৭৪ জনকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদে সুপারিশ করা হয়েছে।

গত বছরের ২০ আগস্ট ৪৩তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে পিএসসি। এতে উত্তীর্ণ হন ৯ হাজার ৮৪১ জন। জুলাইয়ে পিএসসি এই বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার কার্যক্রম শুরু করেছিল। ২০২১ সালের ২৯ অক্টোবর ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ কেন্দ্রে ৪৩তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

২০২২ সালের ২০ জানুয়ারি ৪৩তম বিসিএসের প্রিলিমিনারির ফল প্রকাশিত হয়। এতে উত্তীর্ণ হন ১৫ হাজার ২২৯ প্রার্থী। ৪৩তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এই বিসিএসে বিভিন্ন ক্যাডারে ১ হাজার ৮১৪ কর্মকর্তা নেওয়া হবে। এর মধ্যে প্রশাসন ক্যাডারে ৩০০ জন, পুলিশ ক্যাডারে ১০০, পররাষ্ট্র ক্যাডারে ২৫, শিক্ষা ক্যাডারে ৮৪৩, অডিটে ৩৫, তথ্যে ২২, ট্যাক্সে ১৯, কাস্টমসে ১৪ ও সমবায়ে ১৯ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ ছিল।

ইত্তেফাক/এসটিএম