মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

উৎকণ্ঠার মধ্যেই ১৫৬ উপজেলায় ভোট আজ

আপডেট : ২১ মে ২০২৪, ০০:২০

সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কা, উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা আর সহিংসতার আশঙ্কার মধ্যেই ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদের দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন আজ। এদিন ১৫৬ উপজেলায় সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোটগ্রহণ চলবে। ইতিমধ্যে ভোটগ্রহণের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এই ধাপে ২৪ উপজেলায় ইভিএমে ভোট হবে। বাকি উপজেলায় ভোট হবে ব্যালটে।

এছাড়া দ্বিতীয় ধাপে ২২ জন একক প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন, যাদের মধ্যে সাত জন চেয়ারম্যান, আট জন ভাইস চেয়ারম্যান ও সাত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রয়েছেন। বিএনপিসহ সমমনা দলগুলো অংশগ্রহণ করছে না। জনগণকে ভোট বর্জনের আহ্বান জানিয়ে বিভিন্ন উপজেলায় গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ করেছে তারা। নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ করতে আওয়ামী লীগ এবার দলীয় প্রতীকে প্রার্থী দেয়নি, যার ফলে ক্ষমতাসীন দলটিরই একাধিক প্রার্থী ভোটে রয়েছেন। এতে দ্বিতীয় ধাপেও ভোটার উপস্থিতি কম হওয়ারও আশঙ্কা রয়েছে। পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে বাগেরহাটের ফকিরহাটের ওসিসহ দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে বদলির নির্দেশ দিয়েছে ইসি।

অন্যদিকে ধান কাটার মৌসুম, বৈরী আবহাওয়া, বড় রাজনৈতিক দল নির্বাচনে না আসা এবং কর্মস্থল থেকে ভোট দিতে না যাওয়ার কারণে ভোটার উপস্থিতি কম বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর। তবে সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, নির্বাচন কমিশনের প্রতি মানুষের আস্থা নেই। ভোট দিলেও তা গণনা করা হবে কি না, ভোটারদের মনে এমন সন্দেহ রয়েছে। এ ছাড়া বিএনপিসহ বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচন বর্জন করেছে। তারা সাধারণ মানুষকে এই ভোট বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে। এই নির্বাচন নিয়ে মানুষের মধ্যে কোনো উত্সাহ-উদ্দীপনাও নেই। বরং ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে ভোটার উপস্থিতি বাড়বে না বলে মনে করেন তিনি।

ভোটের হার কম হলে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই—ইসি: ভোটের হার বেশি হলে ইসি খুশি। কিন্তু না হলে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। গতকাল নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে ইসি মো. আলমগীর এমন মন্তব্য করেন। ধান কাটা তো শেষ, এখনো কি ভোট কম পড়বে বলে মনে করেন—এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আপনারা যেভাবে বলছেন, বিষয়টা তো এ রকম নয়। আরও তো কারণ আছে। ভারতের যে নির্বাচন হচ্ছে, সেখানে সব দল অংশ নিয়েছে। তার পরও ৬০ শতাংশের মতো ভোট পড়েছে। আমাদের যে প্রথম ধাপের নির্বাচন হলো, ঐ দিন সকালে বৃষ্টি ছিল, ধান কাটার সময় ছিল, একটি বদ দল নির্বাচনে অংশ নেয়নি। এই তিনটা কারণ তো আছেই। এছাড়া আরও অন্যান্য কারণ আছে হয়তো, সেগুলো হয়তো আমরা জানি না। আবার স্থানীয় নির্বাচনে অনেকেই কর্মস্থল থেকে এসে ভোট দিতে চান না। এটাও একটা কারণ। দ্বিতীয় ধাপে কেমন কাস্টিং হতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘২১ মে কেমন আবহাওয়া থাকবে, প্রার্থীর জনপ্রিয়তা কেমন—এসবের ওপর নির্ভর করবে। ভোটের হার বেশি হলে আমরা খুশি, কিন্তু না হলে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা সবটাতেই সন্তুষ্ট। কেননা, ভোটের হার টার্গেট করা নেই। ফ্রান্সের নির্বাচনে যেমন বলা আছে, এত শতাংশ ভোট না পড়লে আবার নির্বাচন হবে। তুরস্কে আছে। পৃথিবীর অনেক দেশেই আছে এরকম। তাদের সংবিধানে বলে দিয়েছে যে এত শতাংশ ভোট পড়তে হবে, সেটা না হলে ফের নির্বাচন হবে। আমাদের এ রকম আইন নেই। তাই যে হার হলেই আমরা খুশি।

ফকিরহাটের ওসিসহ দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে বদলির নির্দেশ ইসির: বাগেরহাটের ফকিরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ (ওসি) দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে বদলির নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গতকাল ইসির উপসচিব মো. মিজানুর রহমান নির্দেশনাটি খুলনা রেঞ্জের উপ-মহাপুলিশ পরিদর্শককে পাঠিয়েছেন। নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয়েছে, ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ সাধারণ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে বাগেরহাট জেলার ফকিরহাট মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আশরাফুল আলম এবং বাগেরহাট জেলার ডিবির ওসি স্বপন রায়কে ডিআইজি, খুলনা রেঞ্জ, খুলনায় নির্বাচনের সময় পর্যন্ত সংযুক্ত করে উক্ত কর্মকর্তাদ্বয়ের পরবর্তী কোনো কর্মকর্তাকে ফকিরহাট মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ এবং ডিবির ওসির দায়িত্ব প্রদানের জন্য নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত প্রদান করেছে। 

সম্প্রতি ঐ দুই কর্মকর্তার পক্ষপাতের অভিযোগ আনা হয়েছিল ইসিতে। এক প্রার্থীর করা অভিযোগের ভিত্তিতে কমিশন তাদের বদলির সিদ্ধান্ত দিয়েছে।

ইত্তেফাক/এমএএম