শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

লঙ্কা বধ হবে?

আপডেট : ০৭ জুন ২০২৪, ১৬:১০

সংস্কৃত মহাকাব্য রামায়ণে বাল্মীকি যে পাণ্ডিত্যের পরিচয় দিয়েছেন সেটি জগদ্বিখ্যাত। তার সেই রচনার পরে ‘লঙ্কা বধ’ শব্দ এখন বহুল পরিচিত। সীতাকে উদ্ধারের জন্য হনুমান যেভাবে লঙ্কা জ্বালিয়ে রাবণকে পরাস্ত করেছিল, তাই লঙ্কা বধ হিসেবে সামনে এসেছে। কিন্তু টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এই লঙ্কা বধ এসেছে ভিন্ন প্রেক্ষাপটে। 

আগামীকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৬টায় যুক্তরাষ্ট্রের ডালাসে অবস্থিত গ্র্যান্ড প্রেইরি স্টেডিয়ামে নামবে বাংলাদেশ। এটাই টাইগার বাহিনীর প্রথম ম্যাচ। প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা। এ কারণেই লঙ্কা বধের বিষয়টি সামনে এসেছে। ইতিমধ্যে শ্রীলঙ্কা একটি ম্যাচ খেললেও বাংলাদেশের যাত্রাটা সবে শুরু হবে।

প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বিধ্বস্ত হওয়ার পরে লঙ্কান বাহিনী এবার মুখিয়ে রয়েছে একটি জয়ের জন্য। নাজমুল হোসেন শান্তরা এই ম্যাচে জয় পেলেই শ্রীলঙ্কার পরের আসরে যাওয়ার পথটা কিছুটা কঠিন হয়ে যাবে। অন্যদিকে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা দুর্দান্ত শুরু দিয়ে বিশ্বকাপ রাঙাতে পারবে। সেটি কোটি কোটি ভক্তের কাছে লঙ্কা বধ হিসেবেই পরিচিত হবে। ভারত বিশ্বকাপের পর থেকে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ পেয়েছে ভিন্ন মাত্রা। উদযাপন কিংবা লড়াই সবকিছু যেন চলে সেয়ানে-সেয়ানে। এশিয়ার দুই ক্রিকেট দলের লড়াই এখন ভিন্ন এক দ্বৈরথে পরিণত হয়েছে।

গেল মার্চে ঘরের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একটি পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ। শান্তরা ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হারান। সে সময়ে টাইমড আউট উদযাপন করে টাইগারদের তাতিয়ে দিয়েছিলেন লায়নরা। পরে বাংলাদেশ ওয়ানডে সিরিজ জিতে পালটা প্রতিক্রিয়া জানায়। এভাবেই দুই দলের লড়াই এখন ভিন্ন মাত্রা যোগ করেছে। এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও সেই লড়াই দেখার অপেক্ষায় উদগ্রীব ভক্তরা। তবে তার আগে স্বস্তিতে নেই টাইগাররা। দলটির সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বকাপের আগে স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সিরিজ হার ও ভারতের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচের ভরাডুবি সেই অস্বস্তি এনেছে। এখান থেকে বের হওয়ার জন্য লঙ্কা বধ ছাড়া শান্তদের কোনো উপায় নেই।

নিজেদের প্রথম ম্যাচে মাঠে নামার আগে বেশ ফুরফুরে মেজাজে রয়েছেন লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। গতকাল রৌদ্রোজ্জ্বল আবহাওয়ায় শান্ত অধিনায়কের কাজটা একটু বাড়তি দায়িত্বের সঙ্গে করেছেন। অনুশীলনকালে সবার সঙ্গে আলাদা করে কথা বলেছেন। বুঝিয়েছেন কীভাবে আগাতে হবে, কী দায়িত্ব পালন করতে হবে। 

সবমিলিয়ে দলটি পুরোনো ফরমহীনতা ঝেড়ে ফেলে নতুন করে শুরু করার শরীরী ভাষা প্রকাশ করেছে। অন্যদিকে শ্রীলঙ্কা নিজেদের বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছে খুব বাজেভাবে। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে মাত্র ৭৭ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পরে দেখতে হয়েছে লজ্জার হার। তাতে কিছুটা বাড়তি চাপে রয়েছে তারা। বাংলাদেশের বিপক্ষে হারলে পরের পর্বে যাওয়া নিয়ে তৈরি হবে শঙ্কা। সবকিছু মাথায় রেখে তাদের নামতে হবে ডালাসে। এই ম্যাচে অবশ্য নিউ ইয়র্কের মতো উইকেটের বিরূপ আচরণ দেখার শঙ্কা নেই বললেই চলে। তারপরও সতর্ক অবস্থানে রয়েছে দুই দলই।

ইত্তেফাক/জেডএইউচ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন