শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

পাকিস্তান-ভারত মহারণ আজ

আপডেট : ০৯ জুন ২০২৪, ১২:৫৩

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উন্মাদনায় মেতেছে ক্রিকেট বিশ্ব। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি রোমাঞ্চকর ম্যাচও দেখে ফেলেছে ক্রিকেটপ্রেমীরা। তবে আসরের সব থেকে আকাঙ্ক্ষিত ম্যাচটি মাঠে গড়াবে আজ। যেটি দেখার জন্য টুর্নামেন্টের সূচি প্রকাশের পর থেকেই অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করে আছে সমর্থকরা। বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৮টায় নিউ ইয়র্কের আলোচিত-সমালোচিত নাসাউ কাউন্টি আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তান। ভারত-পাকিস্তানের মাঠের লড়াই উপভোগ করে গোটা ক্রিকেট বিশ্ব। 

তবে দুই দেশের রাজনৈতিক উত্তেজনা ছাড়া বৈশ্বিক কোনো টুর্নামেন্ট ছাড়া একে অপরের বিপক্ষে মাঠে লড়তে দেখা যায় না। তাইতো গোটা ক্রিকেট ভক্তরা মুখিয়ে থাকে এই দুই দলের লড়াই দেখতে। এবারের আসরে এখন পর্যন্ত একটি করে ম্যাচ খেলেছে ভারত ও পাকিস্তান। ২০০৭ সালের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা নিজেদের প্রথম ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে জয় পেলেও প্রথম ম্যাচেই হোঁচট খায় ২০০৯ সালের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। কেননা, স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হেরে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করে বাবর আজমের দল। তাই টুর্নামেন্টে শেষ আটে খেলার দৌড়ে টিকে থাকতে হলে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে জয়ের বিকল্প নাই পাকিস্তানে সামনে। ভারতের বিপক্ষে এই ম্যাচ হারলে এবারের আসর থেকে প্রায় বিদায় নিশ্চিত হয়ে যাবে পাকিস্তানের।

সবশেষ ২০২২ সালে অনুষ্ঠিত হওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে ৪ উইকেট হারায় রোহিত শর্মার দল। এছাড়াও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত সবমিলিয়ে মোট সাত বার মুখোমুখি হয় এই দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। সেসব দেখায় জয়ের পাল্লা ভারী ভারতের। রোহিত-কোহলিদের পাঁচ জয়ের বিপরীতে বারব-রিজওয়ানদের জয় কেবল একটি ম্যাচে। এছাড়াও বাকি একটি ম্যাচ ড্র হয়। শুধু টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ মঞ্চে নয়, ক্রিকেটের এই সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে সব মিলিয়ে মোট ১২ বার মুখোমুখি হয় এই দুই দল। সেখানে পরিসংখ্যান কথা বলে ভারতের পক্ষে। প্রথম আসরের চ্যাম্পিয়নদের ৯ জয়ের বিপরীতে পাকিস্তানে জয় তিনটি ম্যাচ।

‘সিট নম্বর থার্টি’

ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের একটি বিশেষ আসনের এই অবিশ্বাস্য মূল্য উঠেছে। যার নাম রাখা হয়েছে ‘সিট নম্বর থার্টি’। ২৫২  সেকশনের ২০ নম্বর সারির এই টিকিটটির দাম ১ লাখ ৭৫ হাজার ৪০০ মার্কিন ডলার। ১ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রিসেলের ওয়েবসাইটে দেড় কোটি টাকা দাম উঠেছে এক টিকিটের। এই ওয়েবসাইটে যে কোনো জিনিসকেই ফের বিক্রি করা যায়। 

তবে তার মূল্য নির্ধারণ করেন বিক্রেতা। যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষেত্রে আইনসম্মতভাবে এই পদ্ধতিকে ‘কালোবাজারি’ বলা যায় না।  বাউন্ডারি ক্লাব সেকশনের টিকিট মূল্য ১৫০০ মার্কিন ডলার। সেখানে ডায়মন্ড ক্লাবের টিকিটের দাম আইসিসি বেঁধে দিয়েছে ১০ হাজার মার্কিন ডলার। যারা সেই টিকিট আবেদনের মাধ্যমে পেয়েছেন, তাঁদের মধ্যে অনেকেই চড়া দামে রিসেল করছেন। আর  সেখানেই ‘সিট নম্বর থার্টি’র দাম ওঠে দেড় কোটি টাকা।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন