ঢাকা শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬
২৫ °সে

চীনে দ্বিতীয় বেল্ট অ্যান্ড রোড ফোরামে যোগ দিচ্ছেন শিল্পমন্ত্রী

চীনে দ্বিতীয় বেল্ট অ্যান্ড রোড ফোরামে যোগ দিচ্ছেন শিল্পমন্ত্রী
শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। ছবি: সংগৃহীত

আগামী ২৫ এপ্রিল চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া তিন দিনব্যাপী উচ্চ পর্যায়ের 'দ্বিতীয় বেল্ট অ্যান্ড রোড ফোরাম'-এ অংশ নেবেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। বুধবার দুপুরে চীনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন তিনি।

বেইজিংয়ের চায়না ন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে (সিএনসিসি) ২৫-২৭ এপ্রিল তিন দিনব্যাপী এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতে শতাধিক দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে রাষ্ট্রপ্রধান, মন্ত্রী এবং উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন। তারা ১২টি থিমেটিক সেশনে দুর্বল ও অস্থিতিশীল বিশ্ব অর্থনীতি থেকে উত্তরণের নীতি নির্ধারণ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, বাণিজ্য পরিসর বৃদ্ধি, অর্থনৈতিক সহযোগিতার দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক ক্ষেত্র চিহ্নিতকরণ এবং জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধির উপায় নিয়ে আলোচনা করবেন। এ ক্ষেত্রে শক্তিশালী আন্তঃযোগাযোগ ও গভীর সহযোগিতার বিষয়টি প্রাধান্য পাবে।

ফোরামে শিল্পমন্ত্রী বিভিন্ন থিমেটিক সেশনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন। ‘ব্যাপক পরামর্শ, যৌথ উদ্যোগ এবং অংশীদারিত্বের মাধ্যমে সুফল ভোগের জন্য নীতি সহায়তা ও সম্মিলিত প্রয়াস জোরদারকরণ ’ শীর্ষক থিমেটিক সেশনে তিনি বক্তব্য রাখবেন। এছাড়াও তিনি উচ্চ পর্যায়ের বিভিন্ন সভায় বাংলাদেশ সরকারের নীতি নির্ধারণী বিষয় এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নে সরকার গৃহিত উদ্যোগগুলো তুলে ধরবেন। পাশাপাশি অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর সাথে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সহযোগিতা বৃদ্ধি এবং শিল্প মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্পে ‘বেল্ট অ্যান্ড রোড ফোরাম’ এর অংশগ্রহণের বিষয়ে মতবিনিময় করবেন।

আরও পড়ুন: সরকারের প্রথম ১০০ দিন উদ্যমহীন, উচ্ছ্বাসহীন ও উদ্যোগহীন: সিপিডি

ফোরামে অংশগ্রহণের পাশাপাশি শিল্পমন্ত্রী চীনের সিনোপ্যাক লুব্রিকেন্ট কোম্পানি লিমিটেড এবং সানজি ইয়াংমি ফার্টিলাইজার ইন্ডাস্ট্রি কোম্পানি লিমিটেড-এর উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করবেন। এতে অংশ গ্রহণের ফলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মধ্যে শিল্প, ভৌত অবকাঠামো, প্রযুক্তি ও সৃজনশীল উদ্ভাবনে দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক সহায়তার ক্ষেত্র প্রসারিত হবে। পাশাপাশি বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে বাণিজ্য বৃদ্ধি, শিল্পখাতে সহায়তা জোরদার, শ্রমঘন শিল্প ও প্রযুক্তি স্থানান্তরের সুযোগ তৈরি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। সেমিনার শেষে আগামী ২৮ এপ্রিল শিল্পমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন