ওয়েবিনারে বিডিইউ উপাচার্য 

‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার আধুনিক রূপই ডিজিটাল বাংলাদেশ’

‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার আধুনিক রূপই ডিজিটাল বাংলাদেশ’
‘ওয়ার্ল্ড টিচার্স ডে এন্ড আওয়ার’স চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক ওয়েবিনার। ছবি: ভিডিও থেকে নেওয়া

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটির (বিডিইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ড.মুনাজ আহমেদ নূর বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার আধুনিক রূপই ডিজিটাল বাংলাদেশ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৮ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ না নিলে আজকে আমরা প্রযুক্তিতে এতদূর এগিয়ে যেতে পারতাম না।

মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি কর্তৃক আয়োজিত ‘ওয়ার্ল্ড টিচার্স ডে এন্ড আওয়ার’স চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারে সভাপতির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ নূর বলেন, এখন বাংলাদেশের ৯৭ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা ভোগ করছে, ৬০ শতাংশের বেশি মানুষ মোবাইল ইন্টারনেট সেবা ভোগ করছে এবং শহর এলাকাতে ৮০ শতাংশ মানুষ ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহার করছে। যা গত ১১ বছরের সবচেয়ে বড় অর্জন। সে কারণে আমরা আশা করছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশে পরিণত হবো।

তিনি বলেন, বিশ্ব এখন জোর পায়ে এগিয়ে যাচ্ছে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের দিকে। বাংলাদেশও রয়েছে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের দ্বারপ্রান্তে, এই চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির লক্ষেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং তার সুযোগ্য পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় এই বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেছেন। যার কারণে এই বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আরও পড়ুন: বাঘায় ৭ ক্লিনিক ও ১৭ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের আড়ালে চলছে প্রতারণা !

উপাচার্য আরও বলেন, আমরা চতুর্থ শিল্প বিপ্লব উপযোগী (ইন্টারনেট অব থিংস, আইসিটি ইন এডুকেশন)প্রোগ্রামগুলোর মাধ্যমে আমাদের শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছি। ইতিমধ্যে বিগ ডেটা অ্যানালাইসিস এন্ড ম্যানেজমেন্ট প্রোগ্রাম চালু করার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ অথরিটি (সিন্ডিকেট)অনুমোদন দিয়েছে।ধীরে ধীরে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, রোবটিক্স, মেকাট্রনিক্সসহ চতুর্থ শিল্প বিপ্লব উপযোগী প্রোগ্রামগুলো এই বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল পাঠ্য হিসেবে বিবেচিত হবে।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ নূর বলেন, এই করোনার সময়ে বিশ্ব একটি কঠিন পরিস্থিতির মধ্যদিয়ে যাচ্ছে। এই কঠিন পরিস্থিতিতে আমাদের শিক্ষার্থীদের মানসিকভাবে উৎসাহিত করতে আমারা অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি।

ওয়েবিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন, কানাডার আঠাবাসকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ররি ম্যাকগ্রিল, আয়ারল্যান্ডের ডাবলিন সিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর মার্ক ব্রাউন এবং কমনওয়েলথ লার্নিং কানাডা এর ড.সানজায় মিশ্রা।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত