ঢাকা মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬
২৯ °সে


বাংলাদেশের আইসিইউতে ৮০ শতাংশ মারা যায় সুপারবাগে

বাংলাদেশের আইসিইউতে ৮০ শতাংশ মারা যায় সুপারবাগে
ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশের হাসপাতালগুলোতে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র বা আইসিইউতে যারা মারা যান তাদের শতকরা ৮০ ভাগই ‘সুপারবাগ’ এর প্রভাবে মারা যায়। সুপারবাগ হলো অ্যান্টিবায়োটিক সহনশীল ব্যাকটেরিয়া। এসব ব্যাকটেরিয়াকে প্রচলিত অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। নাবঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সিনিয়র ডাক্তার এমন তথ্যই দিয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মোকলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সায়েদুর রহমানকে উদ্বৃত করে এমনটিই জানিয়েছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম টেলিগ্রাফ। অধ্যাপক সায়েদুর রহমানে বলেন, ২০১৮ সালে ৯০০ রোগী এই ইউনিটে ভর্তি হয়। যার মধ্যে মারা যান ৪০০ জন। মৃতদের মধ্যে শতকরা ৮০ জনেরই ব্যাকটেরিয়াল বা ছত্রাকজনিত সংক্রমন ছিল। আর এসব সংক্রমন ছিল অ্যান্টিবায়োটিক সহনশীল।

বাংলাদেশের সঙ্গে ভারত ও পাকিস্তানের অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের চিত্র ভয়াবহ। এসব দেশে অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারে চিকিৎসকের অনুমোদন না নেয়া, গবাদি পশু মোটাতাজা করণে অ্যান্টিবায়োটিকের বহুল ব্যবহার, নিজে নিজে চিকিৎসা এবং দোকান থেকে অবৈধভাবে অ্যান্টিবায়োটিক ক্রয়ের সুযোগ থাকায় মানুষের মধ্যে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্টেন্স (এএমআর) তৈরি হচ্ছে।

বিএসএমএমইউর মাইক্রোবায়োলজি অ্যান্ড ইমিউনোলজি বিভাগের প্রধান আহমেদ আবু সালেহ বলছেন, বাংলাদেশের সব আইসিইউতে মৃত্যু হওয়া মোট রোগীর ৭০ শতাংশের মৃত্যুর পেছনে সুপারবাগের সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে। অথচ ১০ বছর আগেও পরিস্থিতি এতটা ভয়াবহ ছিল না।

আরও পড়ুন : ৭ কলেজে সমস্যার কথা স্বীকার করে দাবি পূরণের আশ্বাস

তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যতে ব্যবহার করার মতো কার্যকর কোনো অ্যান্টিবায়োটিক আমাদের হাতে নেই। বর্তমানে যেসব অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করা হচ্ছে, সেগুলো কার্যকারিতা হারিয়ে ফেলছে। এ কারণে পরিস্থিতি দিন দিন খারাপ হচ্ছে।’

এ অবস্থা থেকে উত্তোরণে পরামর্শ হিসেবে ডা. সায়েদুর রহমান বলেন, ‘নজরদারি আরও জোরদার করতে হবে। যেখানে সেখানে অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধ করতে হবে। কেবল নিবন্ধিত হাসপাতালগুলো থেকে চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ীই অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রির ব্যবস্থা করতে হবে।’

ইত্তেফাক/কেআই

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন