ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
৩২ °সে


ঠাকুরগাঁওয়ে মির্জা ফখরুলের পোস্টার ছেড়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ

ঠাকুরগাঁওয়ে মির্জা ফখরুলের পোস্টার ছেড়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ
হামলায় আহত দুইজন। ছবিঃ ইত্তেফাক।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা রুহিমানপুর মাদারগঞ্জ এলাকায় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের হামলায় স্বেচ্ছাসেবকদলের নেতাসহ কয়েকজন কর্মী আহত হয়েছে। বিএনপির প্রার্থী মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পোস্টার ছেড়াকে কেন্দ্র করে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলায় ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক দলের নেতা আবু সায়েম পরাগ গুরুতর আহত হয়েছে।

আহত আবু সায়েম পরাগ বলেন, 'বিএনপির প্রার্থী মির্জা ফখরুলের পোস্টার লাগালে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ ছিঁড়ে ফেলে। পরে তারাই ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায়। এতে মাথা ফেটে যায়।'

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, 'সদর উপজেলা রুহিমানপুর মাদার গঞ্জ এলাকায় ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক দলের নেতা আবু সায়েম পরাগ স্থানীয় কর্মীসহ বিএনপির প্রার্থী মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পোস্টার লাগাচ্ছিলেন। তখন একই এলাকার যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কতিপয় নেতাকর্মী বাধা প্রদান করে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ সৃষ্টি হলে সেচ্ছাসেবক দলের নেতা আবু সায়েম পরাগ গুরুতর আহত হয়।'

আহত অবস্থায় পরাগকে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা ঘটনার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, 'নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ওপর দায় চাপানোর জন্য যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করছে। আমরা বিএনপির প্রার্থীর পোস্টার লাগানোর বিষয়ে কোন বাধা প্রদান করি না। তাদের অভ্যন্তরীন কোন্দলের কারনে এ ঘটনা ঘটতে পারে।'

ঠাকুরগাঁও জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সভাপতি নুরুজ্জামান নুরু বলেন, 'প্রতিনিয়ত আওয়ামীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা আমাদের প্রার্থীর প্রচার-প্রচারণায় হামলা ও বাধা প্রদান করছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অবগত করলে ব্যবস্থা নিচ্ছে বলে। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয় না।'

আরও পড়ুনঃ নৌকায় ভোট দিয়ে কামালের ষড়যন্ত্র রুখে দিতে হবে: শেখ সেলিম

ঠাকুরগাঁও সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, 'ঘটনাস্থলে তাৎক্ষনিক পুলিশ পাঠানো হয়েছে। সংঘর্ষ এড়াতে আমরা সজাগ রয়েছি।'

ইত্তেফাক/নূহু

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২৪ মে, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন