নারী ফুটবলারদের অভিভাবকদের সম্মতি নিলো বাফুফে

নারী ফুটবলারদের অভিভাবকদের সম্মতি নিলো বাফুফে
ছবি : সংগৃহীত

বাফুফের ক্যাম্পে এখন নারী ফুটবলার রয়েছেন ৫০ জন। এই ৫০ জনের অভিভাবকদের বাফুফে ভবনে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। সোমবার অভিভাবকরা বাফুফের নারী ফুটবল কমিটির সঙ্গে বসে। যেখানে ছিলেন বাফুফের সভাপতি কাজী সালাহউদ্দিন। তিনি নারী ফুটবলারদের নিয়ে কী পরিকল্পনা করতে চান তা নিয়ে সরাসরি খেলোয়াড়দের বাবা-মায়ের সঙ্গে কথা বলেন। সবার বাবা-মা আসেননি। কারো ভাই, বোনজামাই, আত্মীয় এসেছেন। তাদের কাছে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাহউদ্দিন জানিয়ে দিয়েছেন, এই মেয়েদের নিয়ে তিনি আরো দূর যেতে চান। নারী ফুটবল উন্নয়নে বাফুফের কী পরিকল্পনা রয়েছে সেটি অভিভাবকের জানিয়ে দিয়েছেন সালাহউদ্দিন।

দেশের নারী ফুটবলকে এগিয়ে নিতে হলে শুধু ফুটবলারদেরই নয়, তাদের অভিভাবকদেরও সহযোগিতা কীভাবে প্রয়োজন সেটিও জানিয়ে দিয়ে সালাহউদ্দিন বলেন, ‘আগামী চার বছর আপনাদের মেয়েরা আমাদের কাছে থাকবে। আমরা তাদের রাখব। এই মেয়েদের রাখতে আপনাদের সম্মতি চাই।’

তহুরা, মনিকা, শিউলী, সানজিদা, আঁখিদের অভিভাবকরা সবসময় খুশি ছিল। এখনো তারা খুশি। তাদের একসময় ঘরের বোঝা মনে করা হতো। এখন সেই কন্যারা ঘর আলো করে আছে। বাংলাদেশের নারী ফুটবল আলোকিত করে রেখেছে। সেই কন্যাদের নিয়ে দেশের ফুটবল আরো দূর এগিয়ে যেতে চায়, অভিভাবকরা কেন অসম্মতি দেবে।

সরাসরি না বললেও বাফুফে মনে করছে তারা অর্থ খরচ করবে ফুটবলারদের প্রতি আর হঠাৎ এক দিন অভিভাবক এসে বলবেন, ‘বিয়ে ঠিক করেছি। আমার মাইয়া ফুটবল খেলবে না।’

এমনটি যেন না হয় সেদিকটা মনে করিয়ে দিতেই কালকের এই অভিভাবক সম্মেলন। মেয়েদের বিয়ে হবে, সংসারও হবে। কিন্তু কোনো মেয়ে যেন অসময়ে এবং নিজের অমতের বাইরে পারিবারিক চাপে বিয়ে না করেন। নারী লিগ নিয়ে কথা হয়েছে কালকের সভায়। বাফুফে সভাপতি জানালেন তিনি নিজেও পুলের পক্ষে না। কিন্তু পরিস্থিতির বিবেচনায় পুল হলে ছোট দলগুলো ভালো পারফরম্যান্স করতে পারে।

ইত্তেফাক/বিএএফ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x