ঢাকা সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬
৩২ °সে


দেড় হাজার শিক্ষক-কর্মচারীকে বেতন দিচ্ছে না ব্যাংক!

দেড় হাজার শিক্ষক-কর্মচারীকে বেতন দিচ্ছে না ব্যাংক!
চাটমোহর। ছবি: গুগল ম্যাপ থেকে

আয়কর রিটার্ন দাখিল না করায় পাবনার চাটমোহরের ৮৭টি বেসরকারি স্কুল, মাদ্রাসা এবং কলেজের দেড় হাজার শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন-ভাতা বন্ধ রেখেছে চাটমোহর সোনালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। ফলে ঈদের আগে চোখে সর্ষেফুল দেখছেন তারা। করছেন মানবেতর জীবনযাপন।

উপ-কর কমিশন পাবনা থেকে পাঠানো পত্রে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় বেতন-ভাতা বন্ধ রাখা হয়েছে এমনটি বলছেন সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম।

চাটমোহর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মগরেব আলী বলেছেন, বিষয়টি নিয়ে উপ-কর কমিশন এবং তার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন।

মগরেব আলী জানিয়েছেন, উপজেলায় এবদেতায়ী, দাখিল, আলীম ও ফাজিল মিলিয়ে মোট মাদ্রাসা রয়েছে ৩০টি। মাধ্যমিক ও নিম্ন মাধ্যমিক মিলিয়ে স্কুল রয়েছে ৪০টি। সাধারণ কলেজ ৭টি, বিএম ও কারিগরি কলেজ ৯টি এবং স্কুল এন্ড কলেজ রয়েছে ১টি।

এর মধ্যে মাদ্রাসায় ৪৫৭জন, স্কুলে ৪২৫জন, সাধারণ কলেজে ৩৬২ জন এবং একটি স্কুল এন্ড কলেজে কর্মরত রয়েছেন ৬৪জন শিক্ষক-কর্মচারী। তাৎক্ষণিকভাবে তিনি বিএম ও কারিগরি কলেজে কর্মরত শিক্ষক-কর্মচারির সঠিক সংখ্যা জানাতে পারেননি।

মাধ্যমিক এই শিক্ষা কর্মকর্তা আরও বলেন,সরকারি সব সুযোগ-সুবিধা ভোগ করবে, অথচ আয়কর দেবে না সেটা হয় না। আয়কর রিটার্ন করলে বেতন পাবেন তারা (শিক্ষকেরা)।

বিলচলন ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আলতাব হোসেন বলেন, 'সামনে কোরবানির ঈদ। বেতনের টাকা দিয়েই কোরবানির গরু কিনবো। শুধু আমি নই, বেশিভাগ শিক্ষক-কর্মচারী এ টাকা দিয়ে ঈদ করবেন। অথচ আমাদের বেতন-ভাতা দিচ্ছে না ব্যাংক।'

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বেতনের ছাড়পত্রও এসেছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‌'শুধুমাত্র আয়কর রিটার্ন দাখিল না করায় এসব শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন আটকে দেওয়া হয়েছে। বেতন-ভাতা না পেয়ে আমরা মানবেতর জীবনযাপন করছি।'

মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি চাটমোহর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তাপস রঞ্জন তলাপত্র বলেন, 'আয়কর রিটার্ন দাখিলের বিষয়ে আগে কোন নোটিশ দেওয়া হয়নি। ব্যাংকে বেতন তুলতে আসার পর বিষয়টি জানানো হয়। আমরা শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে উপ-কর কমিশন পাবনার সঙ্গে দেখা করেছি। তাকে অনুরোধ করেছি ঈদের বিষয়টি মানবিকভাবে দেখতে। কিন্তু তিনি জানিয়েছেন, চিঠি দেওয়া হয়েছে। এটা প্রত্যাহার করা সম্ভব না। বেতন তুলতে চাইলে আয়কর রিটার্ন দাখিল করতেই হবে।'

শিক্ষক সমিতির এ নেতা আরও বলেন, আয়কর দিতে সময় লাগবে। কিন্তু বেতন-ভাতা না পেলে আমরা চলবো কিভাবে ?

সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের থেকে বেতনের ছাড়পত্র দিলে বেতন-ভাতা প্রদান বন্ধ রাখার এখতিয়ার ব্যাংক কর্তৃপক্ষের নেই। সূত্রমতে, যাদের বেতন ১৬ হাজার টাকার কম, তাদের আয়কর রিটার্ণ দাখিল করতে হবে না। শুধুমাত্র ১৬ হাজার টাকার ওপরে বেতনপ্রাপ্তদের এটা দিতে হবে।

সোনালী ব্যাংক চাটমোহর শাখার ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম বলেছেন, আয়কর রিটার্ন দাখিলকারীদের কেবল বেতন-ভাতা প্রদানের কথা বলা হয়েছে উপ-কর কমিশন পাবনার ওই চিঠিতে। আয়কর রিটার্ন দাখিল করেননি যেসব শিক্ষক-কর্মচারি, তাদের বেতন-ভাতা বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

তিনি বলেন, ১৬ হাজার টাকার কম যাদের বেতন তারা বেতন তুলতে পারছেন। তাদের বেতন-ভাতা বন্ধ রাখা হয়নি।

আরও পড়ুন: ঘুমন্ত স্ত্রীকে জবাই করে ও পায়ের রগ কেটে হত্যা করেছে স্বামী

এ ব্যাপারে উপ-কর কমিশন পাবনার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি তার মুঠোফোন বন্ধ থাকার কারণে। ভুক্তভোগী শিক্ষকেরা এ বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

ইত্তেফাক/নূহু

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৯ আগস্ট, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন