ঢাকা রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৪ কার্তিক ১৪২৬
২৯ °সে


শিক্ষক পেটানো সেই ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষমা চাইলেন

শিক্ষক পেটানো সেই ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষমা চাইলেন
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন কোটালীপাড়া উপজেলার কান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈ।

শিক্ষক পেটানোর অভিযোগে অভিযুক্ত গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈ অবশেষে শিক্ষক সমাজ ও ইউনিয়নবাসীর কাছে ক্ষমা চেয়েছেন।

শুক্রবার সকালে উপজেলার কান্দি ইউনিয়ন পরিষদ ভবন চত্বরে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি শিক্ষক সমাজ ও ইউনিয়নবাসীর কাছে ক্ষমা চান। এ সময় তিনি লিখিত বক্তব্য পাঠ শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

আরও পড়ুন: মাগুরায় ৬৬০টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে

লিখিত বক্তব্যে উত্তম কুমার বাড়ৈ বলেন, আমার ইউনিয়নের মাচারতারা পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের এক ছাত্রকে পিটানোর ঘটনা নিয়ে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক নারায়ণ চন্দ্র হালদারের ভাই গজালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক অমূল্য রতন হালদারের সাথে ধারাবাশাইল বাজারে আমার কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে অমূল্য রতন হালদার আমাকে নিয়ে ব্যঙ্গ করে ও আমার বাবা-মা তুলে গালি দেয়। তখন আমার ভাই মনি বাড়ৈর সাথে সামান্য হাতাহাতি হয়। আমি তখন আমার ভাই মনিকে শান্ত করি। এই সামান্য ঘটনাটিকে আমার প্রতিপক্ষ লুফে নিয়ে শিক্ষক অমূল্য রতন হালদারের স্ত্রী মনি হালদারকে দিয়ে কোটালীপাড়া থানায় আমি ও আমার দুই ভাই এবং দুজন শিক্ষকসহ ৫জনকে আসামি করে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করায়। এই মামলায় আমরা বর্তমানে জামিনে রয়েছি।

চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈ বলেন, আমার ভাই মনি বাড়ৈর সাথে ধারাবাশাইল বাজারে বসে শিক্ষক অমূল্য রতন হালদারের যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে তার জন্য আমি শিক্ষক সমাজ ও কান্দি ইউনিয়নবাসীর কাছে ক্ষমা প্রার্থী।

সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈর স্ত্রী জেলা পরিষদ সদস্য রীনা মণ্ডল, ইউপি সদস্য সিদ্ধার্থ বাড়ৈ, প্রভাষ বৈরাগী, মনজু হালদার, শিক্ষক ভবতোষ বাড়ৈ, রমেন মণ্ডল উপস্থিত ছিলেন।

ইত্তেফাক/এমআরএম

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২০ অক্টোবর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন