ঢাকা শনিবার, ২৫ মে ২০১৯, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
২৬ °সে


হামলার জবাব দিতে কতটুকু প্রস্তুত ভারতের সেনাবাহিনী?

আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদন
হামলার জবাব দিতে কতটুকু প্রস্তুত ভারতের সেনাবাহিনী?
ভারতীয় সেনাবাহিনী- ফাইল ছবি

গত বছর ভারতীয় সেনাবাহিনীর উপ-প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল সরথ চাঁদ সংসদীয় কমিটিকে জানিয়েছিলেন, সেনাদের শতকরা ৬৮ ভাগ অস্ত্রশস্ত্রই ‘ভিন্টেজ’ বা পুরোনো। মাত্র ৮ শতাংশ অস্ত্রশস্ত্র অত্যাধুনিক। ২৪ শতাংশ অস্ত্রশস্ত্রকে নতুন বলা চলে। তা সত্ত্বেও মোদী সরকারের কাছ থেকে বরাদ্দ মিলছে না। সেনাবাহিনীর আধুনিকায়নের নামে যে অর্থ বরাদ্দ হয়েছে, তার থেকে বেশি টাকা লাগবে প্রয়োজনীয় অস্ত্রশস্ত্র কিনতেই।

পুলওয়ামায় হামলার পরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করেছেন, পাকিস্তানকে উচিত শিক্ষা দিতে সামরিক বাহিনীকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের প্রশ্ন, সামরিক বাহিনী তৈরি তো? সামরিক বিশেষজ্ঞদের যুক্তি, ২০১৬ সালে উরি সার্জিকাল স্ট্রাইকে সেনাদের সাফল্য নিয়ে মোদী সরকার ঢাক-ঢোল পিটিয়েছিল। কিন্তু পাকিস্তান এবং প্রয়োজনে চীনকে একইসঙ্গে টক্কর দেওয়ার ক্ষমতা সেনা বা বিমানবাহিনীর রয়েছে কিনা, তা নিয়ে বড় প্রশ্ন রয়েছে।

২০০১ সালে সংসদে জঙ্গি হামলার পরে বাজপেয়ী সরকার নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর বিপুলসংখ্যায় সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু ৫ লাখ জওয়ান, তিনটি ট্যাঙ্কসজ্জিত ডিভিশন ও তাদের সঙ্গে স্ট্রাইক কোর মোতায়েন করতে তিন মাস সময় লেগে যায়। ততদিনে পাকিস্তানি সেনারা নিয়ন্ত্রণ রেখার উল্টোদিকে নিজেদের শক্তি বাড়িয়ে ফেলেছিল। সেই ‘অপারেশন পরাক্রমে’ ১০ মাস পরে সেনা প্রত্যাহার করতে হয়।

এর পরেই ‘কোল্ড স্টার্ট ডকট্রিন’, অর্থাত্ সীমান্ত ও নিয়ন্ত্রণ রেখায় দ্রুত সেনা মোতায়েনের রণকৌশল তৈরি করে সেনারা। সেনাপ্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়ত আগেই জানিয়েছেন, সেই নীতি মেনে এখন ৮ থেকে ১০ হাজার সেনা, কামান, ট্যাঙ্ক, ক্ষেপণাস্ত্র, হেলিকপ্টার বিধ্বংসী অস্ত্র নিয়ে আট থেকে ১০টি ‘ইন্টিগ্রেটেড ব্যাটল গ্রুপ’ বা ‘আইবিজি’ তৈরির কাজ চলছে। কিন্তু তার জন্য আরও অর্থ দরকার।

আরও পড়ুন: ১৪৪ ধারা ভাঙা নিয়ে দুই ভাষা সংগ্রামীর স্মৃতিচারণ

সেনাবাহিনীর সূত্রের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়েছে, যথেষ্ট যুদ্ধের ট্যাঙ্ক নেই। স্বয়ংক্রিয় কামান, আকাশ হামলা থেকে ট্যাঙ্ক বাহিনীকে রক্ষা করার জন্য ‘এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম’-এর অভাব রয়েছে। আর পুরোদমে যুদ্ধ হলে দু’সপ্তাহের আগেই গোলাবারুদ ফুরিয়ে যাবে। বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল বীরেন্দ্র সিংহ ধানোয়া বলেছেন, অনুমোদিত ৪২ স্কোয়াড্রন যুদ্ধবিমানের মধ্যে মাত্র ৩১ স্কোয়াড্রন যুদ্ধবিমান রয়েছে। এস-৪০০, রাফাল যুদ্ধবিমান এলে ঘাটতি কিছুটা মিটবে। কিন্তু ৪২ স্কোয়াড্রনও পাকিস্তান, চীনকে একসঙ্গে টক্কর দেওয়ার জন্য যথেষ্ট নয়।

ইত্তেফাক/আরকেজি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২৫ মে, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন