মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

হাফ পাস আন্দোলন, সমাধান কোন পথে 

আপডেট : ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩:৫৪

গণপরিবহণে হাফ পাসের দাবিতে কয়েকদিন ধরে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলছে। শনিবার (২০ নভেম্বর) রাজধানীতে এই আন্দোলন তীব্র আকার ধারণ করেছে। আবদুল্লাহপুর, ফার্মগেট, মিরপুর, দনিয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় সড়ক অবরোধ করেছেন আন্দোলনকারীরা। তবে, এই  আন্দোলন শিক্ষার্থীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে শুরু করলেও দিন গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে  বিভিন্ন সংগঠনও তাতে সমর্থন দিচ্ছে। এই আন্দোলনের পুরোভাগে রয়েছেন ২০১৮ সালে গড়ে ওঠা নিরাপদ সড়ক আন্দোলন (নিসআ)-এর নেতারা। এখন প্রশ্ন উঠছে, হাফ পাসের দাবিতে গড়ে ওঠা আন্দোলনের সমাধান কোন পথে?

এদিকে, এবার পাঁচ দফা দাবিতে রাস্তায় নেমেছেন শিক্ষার্থীরা। দাবিগুলো হলো,  গণপরিবহনে বর্ধিত ভাড়া বাতিল;  সড়ক-নৌ-রেলপথসহ সব ধরনের পরিবহণে শিক্ষার্থীদের হাফ পাস নিশ্চিত করা;  জ্বালানি তেল ও এলপিজি গ্যাসের মূল্য কমানো; সড়কে ব্যক্তিগত পরিবহন কমানোর পাশাপাশি গণপরিবহনের মানোন্নয়ন এবং গণপরিবহনে কাউন্টারভিত্তিক টিকিট সিস্টেম চালু করা। 

এছাড়া, বর্ধিত বাসভাড়া প্রত্যাহার ও হাফ পাস কার্যকরের দাবিতে আগামী ২৩ নভেম্বর নীলক্ষেত মোড়ে বিক্ষোভ করবে আটটি ছাত্র সংগঠন। এগুলো হচ্ছে বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন (গোলাম মোস্তফা), বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন (মিতু সরকার), গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিল, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ও বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলন।

বাসে হাফ পাস কার্যকরে পরিবহন মালিকদের কিছু করার নেই বলেই দাবি করেছেন মালিক নেতারা। তারা বল ঠেলে দিয়েছেন সরকারের কোর্টে। আর আন্দোলনকারীরা বলছেন, সরকারের তরফ থেকে কেউ তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। তবে, রাজনীতিবিদরা জানালেন, সরকার ও পরিবহন মালিক, দুই পক্ষকেই সমস্যার সমাধান করতে ভূমিকা নিতে হবে।

আন্দোলনের সময় একটি বাস ভাঙচুর করেছে শিক্ষার্থীরা। ছবি: ফোকাস বাংলা

নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক ইনজামুল হক ইত্তেফাক অনলাইনকে বলেন, ‘আমাদের দাবিগুলো স্মারকলিপি আকারে সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের কাছে পাঠিয়েছি। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)-এর কার্যালয়ের সামনে প্রোগ্রাম করেছি। এরপর বিআরটিএ  চেয়ারম্যানের মাধ্যমে স্মারকলিপি মন্ত্রীকে পাঠানো হয়েছে। এখনো সরকারের তরফ থেকে কেউ যোগাযোগ করেননি। হাফ পাস দেওয়া আমাদের মুখ্য দাবি। এই দাবি মেনে নিলে শিক্ষার্থীরা শান্ত হতে পারে।’

ইনজামুল হক আরও বলেন, ‘স্বতঃস্ফূর্তভাবেই আন্দোলন চলছে। সাধারণ শিক্ষার্থীরাই মাঠে নেমেছেন। আমরা এখন পর্যন্ত দুই শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সংগঠিত হয়েছি। আমাদের প্ল্যাটফর্ম নিরাপদ সড়ক আন্দোলন থেকে শিক্ষার্থীদের সার্বিক সহায়তা করছি।’

আন্দোলনে কেউ বাধা দিচ্ছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে ইনজামুল  বলেন, ‘আন্দোলনে বিভিন্ন জায়গায় আমাদের বাধা দেওয়া হচ্ছে।  গত বুধবার তিতুমীর কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর তারা হামলা চালায়। আমাদের বিভিন্ন রাজনৈতিক ট্যাগ দেওয়ার চেষ্টাও করা হচ্ছে।’

গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব ও সাবেক ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর ইত্তেফাক অনলাইনকে বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের দাবি খুবই যৌক্তিক। তাদের আন্দোলনে আমাদের সমর্থন আছে। ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতাকর্মীরাও সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আছেন। ২০১৮ সালে নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের পর  ওবায়দুল কাদের হাফ পাস নিশ্চিত করার কথাও বলেছিলেন। এখন এটা অবিলম্বে কার্যকর করা উচিত।’

বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ইকবাল কবির ইত্তেফাক অনলাইনকে বলেন, ‘হাফ পাসের আন্দোলন নতুন নয়। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন এলাকায় এটা কার্যকরও ছিল। এটা অনানুষ্ঠানিকতার মধ্যে চলছিল। ঢাকা শহরে গত আট-দশ বছরে গণপরিবহণে হাফ পাস তুলে দেওয়ার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। শিক্ষার্থীরা এখন যে আন্দোলন করছেন, তা খুবই ন্যায্য আন্দোলন। শুধু বাসেই না, লঞ্চ-ট্রেনেও হাফ পাস থাকা উচিত। এটা শিক্ষার্থীদের অধিকার। রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে আমরা এই আন্দোলনের সঙ্গেই আছি।’

ইকবাল কবির আরও বলেন, ‘এখানে বাসমালিক সমিতির করণীয় রয়েছে। শিক্ষার্থীদের হাফ পাস দিলে তাদের কোনো লস হবে না। হাফ পাস দিতে না চাওয়া আসলে টালবাহানা ছাড়া কিছু নয়। সরকারের সংসদ সদস্যরাই মালিক সমিতিতে আছেন। তার মানে সরকার ও সমিতি আলাদা কিছু না।’

ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা

যাত্রীকল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক ইত্তেফাক অনলাইনকে বলেন, ‘আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের প্রতি পূর্ণ সমর্থন আছে। আমাদের সমিতির দাবিতেও হাফ পাসের কথা আছে। শিক্ষার্থীদের প্রতি অনুরোধ তারা শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করুক।’  

সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি মশিউর রহমান রাঙা ইত্তেফাক অনলাইনকে বলেন, ‘হাফ পাস দেওয়া বা না দেওয়া একান্তই সরকারের এখতিয়ার। এখানে মালিক সমিতির কিছু করার নেই। সরকার মালিক সমিতির সঙ্গে আলোচনা না করে কিছু করবে বলে মনে হয় না।’

ইত্তেফাক/এনই

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

গণপরিবহণের নৈরাজ্য থামাবে কে?

নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বাড়ানোর পরামর্শ

অকটেন, পেট্রলের মূল্য ও রফতানি নিয়ে বিতর্ক কেন?

লঞ্চ ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়নি, ওয়ার্কিং কমিটি গঠন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

কোন রুটে কত ভাড়া

তেলের দাম বৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন স্থগিত চেয়ে রিট

সেচ ও জলাবদ্ধতা নিরসনে খাল খননের গুরুত্ব অপরিসীম: কৃষিমন্ত্রী

জাতীয় শোক দিবসে সরকারি কর্মসূচি