সোমবার, ১৭ জানুয়ারি ২০২২, ৩ মাঘ ১৪২৮
দৈনিক ইত্তেফাক

ফরিদপুরে বিশৃঙ্খলায় পণ্ড হলো বিএনপির সমাবেশ

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২১, ২১:০৬

বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার দাবীতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসাবে মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে ফরিদপুরে। মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) বিকেলে ফরিদপুর প্রেসক্লাবের হলরুমে এ বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। তবে ফরিদপুর বিএনপি দুই গ্রুপের বিশৃঙ্খলায় সমাবেশ স্থান ত্যাগ করেন কেন্দ্রীয় নেতারা। 

বিকেল ২টায় সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও বেলা ৩ টার দিকে সমাবেশ শুরু হয়। সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। ফরিদপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ ইসলাম রিংকুর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক চিফ হুইপ জয়নাল আবদীন ফারুক, চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা জহুরুল হক শাহাজাদা মিয়া, ফরিদপুর বিভাগীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুকুর রহমান মাসুক, সেলিমুজ্জামান সেলিম, মহিলা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক চৌধুরী নায়াব ইবনে ইউসুফ প্রমুখ। 

বেলা সোয়া ২ টার দিকে মির্জা আব্বাসসহ কেন্দ্রীয় নেতারা প্রেসক্লাবে এসে উপস্থিত হন। এর আগেই কয়েক হাজার নেতাকর্মী সেখানে এসে উপস্থিত হয়। এতে ক্লাবের হলরুম, সামনের চত্বর লোকে লোকারণ্য হয়ে সামনের রাস্তায় ছড়িয়ে পরে। এত যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায় সামনের রাস্তায়। 

বেলা ৩ টার দিকে বেগম খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া কামনার মধ্য দিয়ে সমাবেশ শুরু হয়। এর পরে এক ছাত্রনেতা ও এক যুবনেতা বক্তব্য দেন। এসময় হলরুমে ও বাইরের চত্বরে নেতাকর্মীরা শ্লোগান, হট্টগোল ও উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করতে থাকেন। বিএনপির দুই ধারার কর্মীদের শ্লোগান ও হট্টগোলে কারো কথাই তেমন শোনা যাচ্ছিল না। স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতারা কর্মীদের একাধিকবার থামানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। এর মাঝেই হলরুমের মধ্যে দুই গ্রুপের দুই নেতার মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে নেতারা চেয়ার ছেড়ে দাঁড়িয়ে তাদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। 

তাতেও শ্লোগান ও হট্টগোল বন্ধ না হলে সাবেক চীফ হুইপ জয়নাল আবেদীন ফারুক ও স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রেখে সমাবেশ শেষ করেন। তবে নেতাকর্মীদের হট্টগোলের কারণে তাদের বক্তব্যও ভাল করে শোনা যায়নি। 

মির্জা আব্বাস তার বক্তব্যে বলেন, আমাদের নেত্রী অসুস্থ, আমাদের মা জেলে, আর আপনারা কি শুরু করলেন। জয়নাল আবেদীন ফারুক বলেন, আপনারা যা দেখাইলেন তা আমরা কেন্দ্রে গিয়ে জানাবো।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা বিএনপির একাধিক নেতা জানান, কয়েক নেতা ও তাদের কর্মীদের নাম জাহিরের চেষ্টার কারণেই সমাবেশে হট্টগোল ও বিচ্ছৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়েছে।

ফরিদপুর বিএনপি দুইটি ধারায় বিভক্ত। একটি ধারার নেতৃত্ব দেন সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত চৌধুরী কামাল ইবনে ইফসুফ এর মেয়ে কেন্দ্রীয় মহিলা দলের যুগ্ম সম্পাদক চৌধুরী নায়াবা ইফসুফ অপর ধারার নেতৃত্ব দেন আরেক সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত কেএম ওবায়দুর রহমানের কন্যা বিএনপির ফরিদপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ রিংকু। 

 

 

ইত্তেফাক/এসআই

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

নবজাতকের কপালে ৯ সেলাই 

আপন মানুষের ঘরে ফেরার আকুতি

ফরিদপুরে পাসপোর্ট অফিসের ৫ দালাল আটক

ফরিদপুরের ১৩ ইউনিয়নে বিজয়ী হলেন যারা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

প্রকল্প বাস্তবায়নে অনিয়ম-দুর্নীতি সহ্য করা হবে না: নিক্সন চৌধুরী

কক্সবাজারে একই স্থানে বিএনপি-যুবলীগের সমাবেশ: ১৪৪ ধারা জারি

খালেদা জিয়াকে বর্তমান সরকার প্রধান ভয় পান: নোমান

‘যারা নৌকা করে তারা রাজাকারের বাচ্চা’