মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

শিরোপাই ছিল গন্তব্য: নাফিসা কামাল

আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১২:১৫

বাংলাদেশের বর্তমান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের ক্রিকেট প্রেম পরীক্ষিত ও প্রমাণিত। ৮০-৯০’র দশকের আবাহনী থেকে শুরু করে বিসিবি, এসিসি, আইসিসির সর্বোচ্চ পদে কাজ করেছেন তিনি। বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করে ক্রিকেট আবেগে জীবন জড়িয়েছেন নাফিসা কামাল। ছোট বেলায় বাসার ড্রয়িংরুমে পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক, কিংবদন্তি ওয়াসিম আকরামকে দেখে বড় হওয়া নাফিসা এখন দেশের অন্যতম শীর্ষ নারী ক্রীড়া সংগঠক।

তার হাত ধরে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় টুর্নামেন্ট বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) তিন বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। দলটির চেয়ারপারসন হিসেবে দিগন্ত জোড়া সাফল্য পেয়েছেন তিনি। বিপিএলে পাঁচ বার অংশ নিয়ে তিন বার শিরোপা জিতেছে নাফিসার দল। ২০১৫ সালে মাশরাফি বিন মতু‌র্জার নেতৃত্বে প্রথম বার অংশ নিয়েই ট্রফি জিতে কুমিল্লা। ২০১৯ ও ২০২২ সালে ইমরুল কায়েস ট্রফি এনে দেন।

তৃতীয় বার শিরোপা জিতে ক্রিকেট অন্তপ্রাণ নাফিসা যারপরনাই খুশি। শুক্রবার রাত থেকেই চলছে জয়োত্সব। গতকাল দিনভর অবশ্য টিম হোটেল ছিল ভাঙা হাট। দেশীয় অনেক ক্রিকেটার শুক্রবার রাতেই হোটেল ছেড়েছেন। বাকিরা গতকাল সকালে প্রাতরাশ শেষে বাসায় ফিরে গেছেন। বিদেশি ক্রিকেটাররাও ফ্লাইট ধরার অপেক্ষায়। জৈব সুরক্ষা বলয়ের ধকলে শিরোপা উদযাপনে বড় কোনো অনুষ্ঠান করতে পারেনি দলটি।

মাশরাফি, তামিমদের মতো সিনিয়র ক্রিকেটারদের ছাড়াই এবার অষ্টম আসরে দল গড়েছিল কুমিল্লা। ডিরেক্ট সাইনিং দলটির পছন্দ ছিল মুস্তাফিজুর রহমান। কাটার মাস্টার তুষ্ট করে দিয়েছেন দলকে। ১৯ উইকেট নিয়ে টুর্নামেন্টের সেরা বোলার মুস্তাফিজ।

বিদেশি কোটায় ফাফ ডু প্লেসিস, সুনীল নারিন, মঈন আলিরা খেলেছেন কুমিল্লা দলে। শেষ দুই ম্যাচেই দলটির জয়ের নায়ক নারিন। শুরু থেকেই শিরোপা জয়ই ছিল কুমিল্লার গন্তব্য। গতকাল নাফিসা বলেন, ‘হোটেলে ফেরার পর ডু প্লেসিস একটা কথা বলেছে যে, আমাদের চেয়ারপারসন দল গড়ার পরই বলেছিল, এই দলটাকে চ্যাম্পিয়ন হতে হবে। এটা সবার ব্যাক অব মাইন্ডে ছিল। আমাদের কথা উইন অর উইন। জিততেই হবে ট্রফি। কারণ দলটাও আমরা তেমন শক্তিশালী করেছিলাম।’

প্রোটিয়া এই ক্রিকেটার টুর্নামেন্ট জুড়েই মেন্টরের ভূমিকায় ছিলেন। নাফিসা বলেন, ‘ফাফ প্রতিটা ম্যাচে যুক্ত ছিল। অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করেছে তরুণদের সঙ্গে শুরু থেকেই। বলতে পারেন মেন্টর, উপদেষ্টার কাজ করেছে।’

টুর্নামেন্টের শুরুতে ২ ম্যাচ হেরে হতোদ্যম হয়ে পড়া নাফিসাকে সাহস যুগিয়েছেন মঈন আলি। তিনি বলেছেন, ‘স্বাভাবিক হারলে একটু মন ভেঙে যায়। তখন মঈন আমাকে বলেছে, এই ২টা ম্যাচে হারাটা আমাদের পক্ষে গেছে। দলটা ভুলগুলো বুঝতে পারবে।’

বাবা আ হ ম মুস্তফা কামালের পথ ধরে বিসিবিতে যুক্ত হওয়ার পরিকল্পনা এখনই নেই নাফিসার। তবে অদূর ভবিষ্যতে ব্যাটে-বলে মিলে গেলে ফ্র্যাঞ্চাইজির পাশাপাশি বোর্ডে গিয়েও দেশের ক্রিকেটের জন্য কাজ করতে চান তিনি।

ইত্তেফাক/ আরাফাত

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন