শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

লাভজনক হতে পারে তিতির পালন

আপডেট : ০৯ এপ্রিল ২০২২, ১০:১৮

কমখরচে অধিক লাভবান হওয়ার কারণে বর্তমানে অনেকেই তিতির পাখি পালনে আগ্রহী হয়ে উঠছে। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, তিতির পালন খুব সহজ এবং খরচ অনেক কম। অনেকেই ব্রয়লার মুরগি পালন ছেড়ে তিতির পালনে এগিয়ে আসছেন।

প্রাপ্ত তথ্য থেকে জানা যায়, তিতির পালন লাভজনক হওয়ায় দেশের বিভিন্ন স্থানে বাণিজ্যিকভিত্তিতে তিতির খামার গড়ে উঠেছে। তিতির খামার গড়ে তোলে অনেক বেকার যুবক স্বাবলম্বী হয়েছে। তিতির খাদ্য এবং উৎপাদন ব্যয় অনেক কম। তিতির মাংস এবং ডিম বেশ সুস্বাদু। তিতির খুব শান্ত প্রকৃতির প্রাণী। যে কারণে তিতির পালন খুব সহজ।

বাংলাদেশে দুই ধরনের তিতির আছে। একটি হচ্ছে সাধারণ তিতির এবং কালো তিতির। ডিমের রং ঘন বাদামি, ছোট ছোট দাগ থাকে, লাটিম আকৃতির হয়ে থাকে। প্রতিটি ডিমের ওজন হয় ৩৮-৪৪ গ্রাম। পূর্ণাঙ্গ পুরুষ তিতির ওজন দেড় কেজি এবং স্ত্রী তিতির ওজন হয় ১ থেকে দেড় কোজির মতো। তিতির রোগপ্রতিরোধ-ক্ষমতা অনেক বেশি। প্রাকৃতিক খাদ্য খায় বলে তিতির পালনে খরচ কম পড়ে। এদের জন্য উন্নতমানের ঘরের প্রয়োজন হয় না। তিতির খোলামেলা এবং আবদ্ধ জায়গায় পালন করা যায়।

তিতির ছয়-সাত মাস বয়সে ডিম পাড়ে। পাঁচ-ছয় মাস বয়স হলে খাওয়ার উপযুক্ত হয় এবং বাজারে বিক্রি করা যায়। তিতির দানাদার খাবার খায়। অনেক ভোজনবিলাসী শখ করে তিতির মাংস রান্না করে খেয়ে থাকেন। তিতির মাংস অত্যন্ত সুস্বাদু। এক জোড়া তিতির দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা দামে বিক্রি হয় থাকে। তিতির পালন করতে বাড়তি কোনো ঝামেলা না হওয়ার কারণে গ্রামে অনেকেই তিতির পালনে এগিয়ে আসছেন।

ইত্তেফাক/এমআর

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

যে কথা আব্বাকে বলা হয়নি

বাবার মলাটে আবৃত ভালোবাসা

রসালো কাঁঠালের স্বর্গরাজ্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া

কার্ল ল্যান্ডস্ট্যাইনার: রক্তের গ্রুপ আবিষ্কার করে মানবজাতিকে ঋণী করেছেন যিনি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের বর্ণাঢ্য জীবন

ইত্যাদি ও একজন হানিফ সংকেত

সফুরা খাতুন : ভাওয়াইয়া গানের এক অনন্যা নারী গীতিকার

দায়িত্বই আমার কাছে সবচেয়ে বড়: ডা. ফেরদৌস