রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

কিশোরগঞ্জে কালবৈশাখীতে ৩০ গ্রামে কৃষকের মাথায় হাত 

আপডেট : ৩০ এপ্রিল ২০২২, ১৫:০১

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার ৯ ইউনিয়নে তান্ডব চালিয়েছে কালবৈশাখী ঝড়। ঝড়বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়ার শতাধিক হেক্টর জমির আঁধাপাকা ধানক্ষেত, ভুট্টাক্ষেত, আম, কাঁঠাল, লিচুসহ বিভিন্ন মৌসুমি ফল ও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ে বাহাগিলি, কিশোরগঞ্জ, নিতাই, পুটিমারী, গাড়াগ্রাম ও মাগুড়া ইউনিয়নের ৩০-৪০টি গ্রামের কৃষকের মাথায় হাত।

শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) রাত ১২ টা থেকে কালবৈশাখী ঝড় ও শিলাবৃষ্টি শুরু হয়ে প্রায় দেড়ঘন্টা ব্যাপি তান্ডব চালিয়ে লন্ডভন্ড করেছে শতাধিক ঘরবাড়ি, উড়ে গেছে ঘরের টিন। ভেঙ্গে গেছে হাজার হাজার গাছের ডালপালা। এছাড়াও ঝড়বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়ার কারণে শতাধিক হেক্টর জমির আধাপাকা ধানক্ষেত, ভুট্টাক্ষেত, আম, কাঁঠাল, লিচুসহ বিভিন্ন মৌসুমি ফল ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান ও কিশোরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের ষ্টেশন অফিসার রাশেদুজ্জামান। 

ঝড়ের তাণ্ডবে ভেঙ্গে গেছে শতাধিক ঘরবাড়ি, উড়ে গেছে ঘরের টিন

তবে এ রিপোর্ট লেখার সময় কিশোরগঞ্জ থানা পুলিশ ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে কথা বলে কোথায় কোন নিহত কিংবা আহতের খবর পাওয়া যায়নি।  

শনিবার সকালে বাহাগিলি ইউনিয়নের উত্তর দুরাকুটি, দক্ষিন দুরাকুটি, কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ইসমাইল, ফকিরপাড়া, রাজিব, নিতাই ইউনিয়নের নিতাই কাচারীর বাজার, মুশরুত বেলতলিসহ বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে শুক্রবার মধ্যরাতের কালবৈশাখী ঝড়ের তান্ডবে অসহায় গরীর মানুষের ঘরবাড়ি উড়ে গেছে। আম, কাঁঠাল, লিচুসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছপালা ভেঙ্গে গেছে। 

বাহাগিলি ইউনিয়নের উত্তর দুরাকুটি পশ্চিমপাড়া গ্রামের ভুটুটু মিয়া বলেন, শুক্রবার রাত ১২টার দিকে হঠাৎ করে কালবৈশাখীর তান্ডব শুরু হলে আমার পাঁকা বসতঘরের টিনের চালা উড়ে যায়। বাড়ির চারপাশে লিচু, আম, কাঁঠাল গাছগুলো ভেঙ্গে গেছে। ঝড়ের তীব্রতা এত বেশি ছিল যে, ঝড়ে গাছের ডাল উড়ে গিয়ে ১১ হাজার কেজি বৈদ্যুতিক লাইনের উপর ঝুলে রয়েছে। নিতাই ইউনিয়নের কাচারীর হাট গ্রামের আবুল কাশেম বলেন, আমার বাড়ির চারদিকে লাগানো আমগাছ, লিচুগাছ, সুপারি গাছসহ গ্রামের মানুষের কয়েকশ গাছ ভেঙ্গে গেছে।

  ঝড়ের তান্ডবে ভেঙ্গে গেছে হাজার হাজার গাছের ডালপালা

কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ফকির পাড়া গ্রামের ভুল্লামিয়া বলেন, কালবৈশাখী ঝড় আমাদের গোটা গ্রাম তছনছ করে দিয়েছে। আর কয়েকদিন পর ভুট্টাও ধান ক্ষেত কর্তন করা যেত। বর্তমানে ধান ও ভুট্টাক্ষেত গুলো মাটিতে নুয়ে পড়েছে। ঝড়ে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হবে। এদিকে বাহাগিলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুজাউদ্দৌলা লিপটন, মাগুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান মিঠু, কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী গ্রেনেট বাবু, নিতাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোত্তাকিনুর রহমান আবুসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা জানিয়েছেন গতরাতের ঝড়ের কারনে গাছপালা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়ে মৌসুমি ফল লিচু, আম ও কাঁঠালের।  

কিশোরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের ষ্টেশন অফিসার রাশেদুজ্জামন জানান, কালবৈশাখী ঝড়ের কারনে কিশোরগঞ্জ তারাগঞ্জ সড়ক, মাগুড়া কিশোরগঞ্জ সড়ক, রংপুর নীলফামারী সড়কের দুপাশে শত শত গাছের ডালপালা ভেঙ্গে গিয়ে সড়কে পড়েছে। কিছু কিছু জায়গায় এলাকাবাসীর সহায়তায় আবার কোথায় কোথাও ফায়ার সার্ভিসের টিম গাছগুলো সড়ক থেকে সড়িয়ে দিয়েছে।  

কিশোরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান বলেন, গোটা উপজেলায় কালবৈশাখীর তান্ডব বয়ে গেছে। ঝড়ে বাতাসের তীব্রতা বেশি থাকার কারণে আম, লিচু, কাঁঠালসহ মৌসুমি ফল ঝড়ে পড়েছে। পাকাঁধান ও ভুট্টাক্ষেতগুলো মাটিতে নুইয়ে পড়েছে। ঝড়ে কি পরিমান ক্ষতি হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি একটি প্রাকুতিক দুর্যোগ এখানে কারো হাত নেই। ঝড়ের গতি অনেক বেশি ছিল। তাই ক্ষতির পরিমান বেশি হতে পারে। আমাদের মাঠপর্যায়ের উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তাগন নিজ নিজ ব্লকে ক্ষতি নির্ধারনের কাজ করছে। সবগুলো রিপোর্ট এলে ক্ষতির পরিমান নির্ধারন করা যাবে।   

 

ইত্তেফাক/এআই

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

জলঢাকায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই জনের মৃত্যু

সৈয়দপুরে ভুট্টার ফলন ও দামে কৃষকের স্বস্তি

উদ্বোধনের সময় জন্ম, নাম পদ্মা-সেতু

সৈয়দপুরে আলো ছড়াচ্ছে ছয় কিশোর-কিশোরী ক্লাব

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সৈয়দপুরে ভুট্টার ভালো ফলন

সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনের ২ নম্বর প্ল্যাটফরম ঝুঁকিপূর্ণ

কিশোরগঞ্জে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় পথচারীর মুত্যু

সৈয়দপুরে নিষিদ্ধ জালে নির্বিচারে মাছ শিকার