সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

জাফলংয়ে পর্যটকদের ওপর হামলার ঘটনায় জেলা প্রশাসককে মন্ত্রীর চিঠি 

আপডেট : ১০ মে ২০২২, ২৩:৫৭

সিলেটের গোয়ানঘাট এলাকার জাফলং পর্যটন কেন্দ্রে পর্যটকদের কাছ থেকে প্রবেশ ফি আদায় সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার অনুরোধ জানিয়ে সিলেট জেলা প্রশাসককে চিঠি দিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ।

জেলা পর্যটন উন্নয়ন কমিটির পক্ষ থেকে পর্যটন স্পটগুলোর  প্রবেশ ফি নির্ধারণ, আদায় এবং আদায়কৃত অর্থ ব্যবহার সংক্রান্ত কোনো আইনানুগ বিধান জারি হয়েছে কি না, তা জানার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন এলাকার সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী। সিলেট জেলা প্রশাসক মো. মুজিবুর রহমান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গত ৫ মে জাফলংয়ের টিকিট কাউন্টারের কর্মীরা পর্যটকদের মারধর ও নারী পর্যটক লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনার পর এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় ওঠে। অবশ্য এই ঘটনায় হামলাকারী ৫ জনকে আটক করে জেলে পাঠানো হয়। ঘটনার পর থেকে প্রশাসন নিরাপত্তা জোরদার করেছে সব পর্যটন স্পটে। মঙ্গলবার আসানির প্রভাবে সব পর্যটন কেন্দ্রেই লোকজন কম ছিল। 

এদিকে মঙ্গলবার (১০ মে) জেলা প্রশাসক মো. মুজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় জাফলংয়ে পর্যটকদের ওপর হামলার বিষয়টিও আলোচিত হয়। পর্যটন স্পটসহ সর্বত্র নিরাপত্তা আরও জোরদার  করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। সভায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। 

বিকালে জেলা প্রশাসক ইত্তেফাককে  বলেন, ‘প্রবাসী কল্যাণ ও কর্মসংস্থানমন্ত্রীর একটি চিঠি পেয়েছি। পর্যটন উন্নয়ন কমিটির পরবর্তী বৈঠক না হওয়া পর্যন্ত প্রবেশ ফি আদায় বন্ধ থাকবে। পরবর্তী বৈঠকে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’ 

মন্ত্রীর স্বাক্ষরিত চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ৫ মে পর্যটন কেন্দ্র সিলেটের জাফলংয়ে প্রবেশ ফি আদায়কে কেন্দ্র করে স্বেচ্ছাসেবক ও পর্যটকদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উভয় পক্ষের মধ্যে মারামারির দৃশ্যের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। এটি সিলেটের পর্যটন স্পটগুলো সম্পর্কে ভ্রমণ পিপাসুদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। 

মন্ত্রী ওই চিঠিতে আরও উল্লেখ করেন, এহেন ঘটনায় দেশে-বিদেশে এলাকার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে, যা কখনোই কাম্য নয়। তাছাড়া, জেলা পর্যটন উন্নয়ন কমিটির পর্যটন স্পটগুলোর প্রবেশ ফি নির্ধারণ, আদায় এবং আদায়কৃত অর্থ ব্যবহার সংক্রান্ত কোনো আইনানুগ বিধান জারি হয়েছে কি না, তা জানার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন এলাকার সংসদ সদস্য ও প্রবাস কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ। 

সিলেটে পর্যটনের অন্যতম পর্যটন স্পট জাফলংকে বলা হয় প্রকৃতি কন্যা। এখানে সব মৌসুমে পর্যটকদের ভিড় লেগে থাকে। আগে এখানে বিনামূল্যে পর্যটকরা প্রবেশ করতে পারলেও গত বছর থেকে ১০ টাকা প্রবেশ ফি চালু করে উপজেলা প্রশাসন। তবে পর্যটন মন্ত্রণালয় নির্ধারিত কার্যপরিধির বাইরে গিয়ে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলংয়ে পর্যটক প্রবেশে ফি নির্ধারণ করে জেলা পর্যটন উন্নয়ন কমিটি। 

মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনের বাইরে গিয়ে এভাবে ফি নির্ধারণকে অবৈধ ও এখতিয়ার বহির্ভূত বলছেন আইনবিশেষজ্ঞরাও। সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এমাদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহীন বলেন, ‘প্রজ্ঞাপনের কার্য পরিধিতে থাকা থাকা সত্ত্বেও পর্যটন উন্নয়ন কমিটির এভাবে ফি আদায় সম্পূর্ণ অবৈধ ও এখতিয়ার বহির্ভূত। তারা এটা করতে পারেন না। মন্ত্রণালয় নির্ধারিত কর্মপরিধির মধ্যেই তাদের থাকতে হবে।’

২০২০ সালের ৩ নভেম্বর তৎকালীন জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সিলেট জেলা পর্যটন উন্নয়ন কমিটির এক সভায় জাফলংয়ে ১০ টাকা হারে প্রবেশ ফি নির্ধারণের সিদ্ধান্ত হয়। তবে এরপরের বছর ২০২১ সালে ৮ নভেম্বর  বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব শ্যামলী নবী স্বাক্ষরিত এ প্রজ্ঞাপনে দেশের জেলাভিত্তিক পর্যটন উন্নয়ন কমিটি পুনর্গঠন করা হয়। 

পর্যটন মন্ত্রণালয়ের ওই প্রজ্ঞাপনে পর্যটন উন্নয়ন কমিটির জন্য ১৩টি কার্যপরিধি নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। এই কার্যপরিধির কোথাও প্রবেশ ফি আদায়ের কথা উল্লেখ নেই। তারপরও গতবছর থেকে জাফলংয়ে পর্যটকদের কাছ থেকে প্রবেশ ফি আদায় শুরু হয় এবং এর বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন করা উঠেছে। 

জেলা পর্যটন উন্নয়ন কমিটির ওই সভায় আরও সিদ্ধান্ত হয়, প্রবেশ ফি-এর আদায়কৃত অর্থ থেকে প্রয়োজনীয় জনবলের বেতন ও আনুষাঙ্গিক খরচ বহন করা হবে। সঞ্চিত অর্থ দিয়ে পরবর্তী সময়ে উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করা হবে। এবং জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে পর্যটন সংশ্লিষ্ট ফান্ড গঠনের জন্য একটি ব্যাংক হিসাব খুলতে হবে। 

জাফলংয়ে প্রবেশ ফি চালুর ব্যাপারে গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তাহমিলুর রহমান সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘২০২১ সালে ৮ নভেম্বর বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনের আলোকেই ফি চালু করা হয়।’ 

তবে ওই প্রজ্ঞাপনটি ঘেঁটে সংবাদ সূত্র জানায়, পর্যটন উন্নয়ন কমিটিকে ১৩ কার্যপরিধি নির্ধারণ করে দিয়েছে মন্ত্রণালয়। এতে কোথাও ফি নির্ধারণ বা আদায়ের কথা উল্লেখ নেই। 

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখিত তাদের নির্ধারিত কাজের মধ্যে রয়েছে জেলার পর্যটন আকর্ষণ চিহ্নিতকরণ, উন্নয়ন ও সংরক্ষণ। পর্যটন আকর্ষণীয় স্থানের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা বজায় রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ। পর্যটন আকর্ষণীয় স্থানে পর্যটকদের যাতায়াত ও অবস্থানের স্বাচ্ছন্দ্য বিধানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ। বিদেশি পর্যটকদের জন্য বিশেষ এলাকা নির্ধারণের প্রয়োজন ও অবকাশ থাকলে তেমন এলাকা নির্ধারণের জন্য সরকারের নিকট প্রস্তাব প্রেরণ।

ইত্তেফাক/এএইচ/এমএএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের পাশে প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি

পদ্মা সেতু: বাগেরহাটে ঘুরে দাঁড়াবে পর্যটন শিল্প

সীমান্তবর্তী বানভাসি মানুষের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দিলো বিজিবি

বিশেষ সংবাদ

নৌকা বা হেলিকপ্টার দেখলেই ত্রাণের জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন বানভাসিরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বিশেষ সংবাদ

ঘরে ফিরতেও শত বাধা

৬ দিন পর চালু ওসমানী বিমানবন্দর

চালু হচ্ছে ওসমানী বিমানবন্দর 

সিলেট-সুনামগঞ্জের বন্যার্তদের জন্য খাদ্যসামগ্রী পাঠালেন রাসিক মেয়র