শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

কেমন হবে সাগরিকার উইকেট

আপডেট : ১৪ মে ২০২২, ০৯:৪১

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামকে ধরা হয় বাংলাদেশ জাতীয় দলের জন্য পয়মন্ত মাঠ। সৌভাগ্যের ভেন্যু হিসেবে পরিচিত সাগরিকায় টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের জয় মাত্র দুটি। এই মাঠে শেষ তিন ম্যাচেই হেরেছে বাংলাদেশ দল। ২০১৯ সালে নবাগত আফগানিস্তান, ২০২১ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাকিস্তান হারিয়েছে টাইগারদের। এখানে সর্বশেষ জয় চার বছর আগে, ২০১৮ সালে উইন্ডিজদের বিপক্ষে।

এবার অনেক আশা নিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজটা চট্টগ্রামেই শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। আগামীকাল শুরু হবে সিরিজের প্রথম টেস্ট।

টানা তিন হারের পর সাগরিকার ২২ গজে জয়ের দেখা পাবে কি না টাইগাররা, সেটিই ভাবাচ্ছে সবাইকে। কেমন হবে উইকেট? উপমহাদেশের প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পুরোপুরি স্পিন নির্ভর উইকেটে খেলাটা ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ সফরকারী দলের স্পিন আক্রমণ বেশ শক্তিশালী।

এই সিরিজে বাংলাদেশের পেস আক্রমণে নেই তাসকিন আহমেদ। তাই শরিফুল, এবাদতদের মতো তরুণদের নিয়ে পেস সহায়ক উইকেট বানানো বুদ্ধিমানের কাজ হবে না। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, অতীতের মতো স্পোর্টিং উইকেটই হতে পারে চট্টগ্রাম টেস্টে। যেমনটা ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ, পাকিস্তানের বিপক্ষে।

রান আসবে উইকেট থেকে, আবার বোলাররা খালি হাতে ফিরবেন না। তবে শেষ পর্যন্ত উইকেট অনেক ভাঙবে এমনটা নাও হতে পারে।

বাংলাদেশের হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর অনুমান উইকেটে পেসারদের জন্য খুব বেশি কিছু থাকবে না। গতকাল অনুশীলনের পর সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘আমরা জানি হয়তো শুরুতে ১-২ ঘণ্টা উইকেটে কিছু থাকতে পারে। তারপর এটা ফাস্ট বোলারদের জন্য কঠিন হয়ে যাবে। আমাদেরকে এসবই বিবেচনায় আনতে হবে।’

গত বছর ফেব্রুয়ারিতে উইন্ডিজদের কাছে ৩ উইকেটে হেরেছিল মুমিনুল হকের দল। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ ৪১০, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৫৯ রান করেছিল। ৮ উইকেটে ২২৩ রান করে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করেছিল স্বাগতিকরা। ৩৯৫ রানের টার্গেটটা চতুর্থ ইনিংসে অবিশ্বাস্যভাবে পাড়ি দেয় অভিষিক্ত কাইল মেয়ার্সের ডাবল সেঞ্চুরিতে। তাও ম্যাচের পঞ্চম দিনে, যেখানে উইকেট ব্যাটারদের দূরে ঠেলে দেয়নি। গত নভেম্বরে পাকিস্তানের কাছেও ৮ উইকেটে হারে বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে ৩৩০ করে বাংলাদেশ, পাকিস্তান অলআউট হয় ২৮৬ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে ১৫৭ রানে গুটিয়ে যায় টাইগাররা। ২০২ রানের টার্গেট পাড়ি দিতে বেগ পেতে হয়নি পাকিস্তানকে।

এটা স্পষ্ট যে উইকেট পাঁচ দিন জুড়েই ব্যাটিং সহায়ক থাকছে। তাই শেষ দিন বা চতুর্থ ইনিংসে ব্যাটিংয়ের ভয় থাকছে না। আর উইকেটের ব্যাটিং সখ্যতার কারণেই টিম ম্যানেজমেন্ট পঞ্চম বোলার খেলানোর চিন্তাই করছে। উইকেট আগের দুই টেস্টের মতোই থাকলে বাংলাদেশ দলের জন্য বড় চিন্তার কারণ হবে ব্যাটিং। ম্যাচের লাগাম পেতে ব্যাটিংয়ে বড় স্কোর গড়তেই হবে। বিশেষ করে দ্বিতীয় ইনিংসে ভেঙে পড়া, ব্যর্থতার গণ্ডি থেকে বের হতে হবে।

ইত্তেফাক/টিএ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সাফল্য পেতে আত্মবিশ্বাসী ম্যাককালাম

আইপিএল

১৪ বছর পর আইপিএলের ফাইনালে রাজস্থান

টেস্ট দলে কয়েকজনকে বাদ দেওয়ার ইঙ্গিত দিলেন ডমিঙ্গো

ব্যাটারদের ব্যর্থতায় বাংলাদেশের হার

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

শ্রীলঙ্কার দরকার ২৯ রান, হাতে ১০ উইকেট

সাকিব-লিটনকে হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

লিড নিয়ে লাঞ্চে বাংলাদেশ

‘ম্যাচ বাঁচানো কঠিন’