বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

মোসাদ্দেকের টেস্ট ক্যারিয়ারে নতুন মোড়

আপডেট : ২৩ মে ২০২২, ০২:০৮

১৪ বছর আগের কথা। সাকিব আল হাসান তখন মাত্র ৬ টেস্ট খেলেছেন। ব্যাটিংয়ের সঙ্গে বোলিংটাও করেন। উইকেট মাত্র ৩টি। ২০০৮ সালে তখনকার হেড কোচ জেমি সিডন্স হুট করেই বিস্ময় উপহার দিলেন সাংবাদিকদের ও বাংলাদেশের ক্রিকেটকে। মোহাম্মদ রফিকের যুগের পর চট্টগ্রামে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টের আগে সাকিবকেই বাংলাদেশের মূল বাঁহাতি স্পিনার হিসেবে ঘোষণা করেন সিডন্স।

নতুন ভূমিকায় নেমেই ৩৬ রানে ৭ উইকেট সাকিবের শিকার। তারপরই টেস্টে এই বাঁহাতির ক্যারিয়ার ‘অলরাউন্ডার’ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায় এবং অনন্য সব রেকর্ডের অধিকারী হন তিনি।

বাংলাদেশের ক্রিকেটে এমন আরো অনেক ঘটনা আছে। ঘরোয়া ক্রিকেটে যেমনই হোক, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এসে ভূমিকা বদলে গেছে। যেমনটা মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান শুভাগত হোমকে বিশেষজ্ঞ অফ স্পিনার বানানোর প্রকল্পে সফল হননি চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। তবে মেহেদী হাসান মিরাজের ক্ষেত্রে সফল হয়েছিলেন ঐ লঙ্কান কোচ। বয়সভিত্তিক পর্যায়ে মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ও অফ স্পিন করতেন মিরাজ। এইচপির ক্যাম্প থেকে টেনে নিয়ে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বিশেষজ্ঞ অফ স্পিনার হিসেবে নামিয়ে দেওয়া হয় মিরাজকে। পরে বল হাতে এ তরুণ যা করেছেন, সেটি তো ইতিহাসই বটে।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আজ শুরু হতে চলা দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে তেমন আরেকটি গল্প মঞ্চস্হ হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের ক্রিকেটে। এবার কেন্দ্রীয় চরিত্র মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ঘরোয়া, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মূলত মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক। পাশাপাশি দলের প্রয়োজনে অফ স্পিনও করেন। সীমিত ওভারে টুকটাক সাফল্যও আছে তার। কিন্তু লঙ্গার ভার্সনে তেমন নয়। ৩ টেস্টের ক্যারিয়ারে ১৫ ওভার করে উইকেটশূন্য। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৪২ ম্যাচে ২৯ উইকেট তার। সেরা বোলিং ৩৩ রানে ৪ উইকেট।

ইনজুরির কারণে টেস্ট দলে নেই এখন মিরাজ। একমাত্র অফ স্পিনার নাঈম হাসানও ইনজুরিতে ছিটকে গেছেন দ্বিতীয় টেস্ট থেকে। ভান্ডারে বলার মতো কোনো অফ স্পিনার নেই বিসিবির। নাঈমের বদলিও নেওয়া হয়নি দলে। সব মিলিয়ে অফ স্পিনারের গুরুভারটা পড়তে যাচ্ছে মোসাদ্দেকের ওপর। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ব্যাটিংয়ের সঙ্গে মূল অফ স্পিনারের ভূমিকায় খেলবেন ২৬ বছর বয়সি এ ক্রিকেটার। পুরোদস্ত্তর অলরাউন্ডারের দায়িত্বই সামলাতে হবে তাকে। গতকাল ম্যাচ-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মুমিনুল হকের কথায়ও স্পষ্ট একাদশে থাকবেন এ তরুণ ক্রিকেটার। মোসাদ্দেকের খেলার বিষয়ে তিনি বলেছেন, ‘এখনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। হয়তো ওর খেলার সম্ভাবনাই বেশি।’

সাকিব-তাইজুলের সঙ্গে স্পিনে ভরসা রাখা হচ্ছে মোসাদ্দেকের ওপর। তার ভূমিকা বদলে যাবে এমনটাও বলেছেন টেস্ট অধিনায়ক। তিনি বলেন, ‘স্পিন বিভাগ দেখুন—তাইজুল গত এক-দুই বছর ধরে খুব ভালো বল করছে। সাকিব ভাই তো গত ম্যাচে খুব ভালো করেছেন। মোসাদ্দেক খেললে ওর ভূমিকা হয়তো একটু ভিন্ন হবে। মাঝেমধ্যে এমন পরিস্হিতিতে পড়তে পারেন। এভাবেই এই পরিস্হিতি থেকে কাটিয়ে উঠতে হবে। মোসাদ্দেক যদি খেলে ওকে ভালোভাবে, বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে ব্যবহার করাটাও গুরুত্বপূর্ণ। সাকিব ভাই, তাইজুল যেহেতু আছে, ওদের নিয়ে আমি অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী। আশা করি, কোনো সমস্যা হবে না।’

অবশ্য ক্রিকেটারদের ক্যারিয়ারে পালাবদলের এমন ঘটনা ক্রিকেট বিশ্বে নতুন নয়। বাংলাদেশে সাকিব-মিরাজ পেরেছেন, তিন টেস্ট খেলা মোসাদ্দেক পারবেন কি ক্যারিয়ারে নতুন মাত্রা যোগ করতে, টিকে থাকতে? নাকি শুভাগতের মতো হারিয়ে যাবেন। এই প্রশ্নের উত্তর ভবিষ্যতের জন্যই তোলা থাক।

ইত্তেফাক/টিআর

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

তাসকিনের কাছে ডোনাল্ডের চাওয়া

রাতারাতি কিছু হওয়া সম্ভব নয়: মাশরাফি

বাংলাদেশের টেস্ট সংস্কৃতি নিয়ে যা বললেন সাকিব

প্রাণপণ চেষ্টার পরও ব্যর্থ টাইগাররা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

উইন্ডিজকে ১৩ রানের লক্ষ্য দিল বাংলাদেশ

বৃষ্টি শেষে শুরু চতুর্থ দিনের খেলা

বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পথে আরও একটি সেশন

ইনিংস পরাজয়ের শঙ্কায় বাংলাদেশ